বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১০:৩০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ফরিদপুর এলজিইডির নবাগত নির্বাহী প্রকৌশলীকে অভ্যর্থনা জানালেন প্রেসক্লাবের সভাপতি ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে অসহায় নারীদের ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা নকশী ফোঁড়ে জীবনের স্বপ্ন বুনন ঝিনাইদহে মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস কাবাডি প্রতিযোগিতা ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল দপ্তরের দুর্নীতির চিত্র- ১ বাগেরহাটে সরকারী ১২ পুকুর খননে ,চলছে পুকুর চুরি শার্শায় অবৈধ বালু উত্তোলন, জেল-জরিমানা ঝিনাইদহে সড়কের জায়গা দখল করে বালির ব্যবসা, নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ ঝিনাইদহে যৌন হয়রানি রোধে র‌্যালি ও আলোচনা সভা ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে সিএসএল প্রকল্পের উদ্বোধন কমলগঞ্জে মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্পের সুপারভাইজার ও শিক্ষকদের মাসিক সম্মানী ভাতা প্রদান কমলগঞ্জে আরডিআরএস বাংলাদেশের বাস্তবায়নে স্কুল বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে চারটি মূল লক্ষ্য -আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক  সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় বিশ্বব্যাপী জাতিসংঘের বহুমাত্রিক অংশীদারদের প্ল্যাটফর্ম ডব্লিউএসআইএস ফোরামের ‘ডব্লিউএসআইএস অ্যাকশন লাইন২০৩০’ শীর্ষক পলিসি সেশনে আলোচক হিসেবে গতকাল অংশগ্রহণ করেছেন।

উক্ত সেশনে বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী ও জাতিসংঘের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সংস্থার প্রতিনিধিগণ অংশ নেন । 

প্যানেল আলোচনায় আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তি উন্নয়ন ও বিকাশে সরকারের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের দ্রুতগতির ইন্টারনেটের যুগে নিজ সোসাইটির ট্রান্সফর্মেশন করেছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার মাধ্যমে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠার জন্য ২০০৮ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রূপকল্প ২০২১ ঘোষণা করেছেন। এই রূপকল্প বাস্তবায়নে চারটি মূল লক্ষ্য নির্ধারণ করে এগিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের সেই চারটি পিলার হলো মানবসম্পদ উন্নয়ন, ইন্টানেটের সংযোগ দেয়া, গভর্নেন্স এবং তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পখাত গড়ে তোলা। এই চারটি পিলারে বাংলাদেশকে দাঁড় করানো হচ্ছে’।

পলক বলেন, সবাইকে ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় নিয়ে আসতে বিগত আট বছরে সরকার অনেকগুলো উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। বিগত ৩ বছরে সকল সরকারি অফিসকে ইন্ট্রানেটওয়ার্ক এর আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে এবং বর্তমানে ইনফো সরকার৩ ও কানেকটেড বাংলাদেশ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে সারাদেশকে ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় নিয়ে আসতে কাজ করা হচ্ছে। তিনি বলেন ‘থ্রি এ স্ট্র্যাটেজি রয়েছে ইন্টারনেটের জন্য। ইন্টারনেট যেহেতু ফুলফিলমেন্ট অব দ্যা সোসাইটি হবে তাই এটির অ্যাভেইলেবল, অ্যাফোর্টেবিলিটি ও অ্যাওয়ারনেস নিয়ে কাজ করা হচ্ছে’ বলে তিনি উল্লেখ করেন। ২০৩০ সালের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীর ৫০ শতাংশ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সরকারের ওয়াইফাই (উইমেন আইসিটি ফ্রন্ট্রিয়ার ইনিশিয়েটিভ) প্রকল্প চালু রয়েছে। রয়েছে ফিজিক্যালি চ্যালেঞ্জ নারীদের জন্য প্রকল্প। 

প্যানেল আলোচনায় তিনি আরো উল্লেখ করেন, গ্রামের অনেকেই স্মার্টফোন ব্যবহার করে ইন্টারনেট পাচ্ছে। ইনফো সরকার৩ এর মাধ্যমে দেশের ২ হাজার ৬০০ ইউনিয়নকে ফাইবার অপটিক ক্যাবল সংযোগের আওতায় আনা হচ্ছে। দেশের সকল ডিজিটাল সেন্টারে (ইউডিসি) বিপিও সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। ইডিসিতে দুই লাখ ফিক্স ব্রডব্যান্ড সংযোগ বসছে ।

এছাড়াও লার্নিংআর্নিং, শি পাওয়ার, এলআইসিটি, সারাদেশে ২৮টি হাইটেক পার্ক, হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতায় প্রশিক্ষণ, আইডিয়া প্রকল্পের আওতায় স্টার্টআপ বাংলাদেশ ক্যাম্পেইন, এ সকল প্রকল্পের আওতায় অনেক তরুণ তরুণীর প্রশিক্ষণ নিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আগামী পাঁচ বছরে দেশে তিন লাখ তরুণতরুণীকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর তাদের কর্মসংস্থানও তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের মাধ্যমেই করা হবে।

সেশনে বিভিন্ন দেশের অংশগ্রহণকারী মন্ত্রীগণ বাংলাদেশের এসব কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন। 

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit