মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ০১:২৮ অপরাহ্ন

কালীগঞ্জের চিত্রা নদী দখলমুক্ত করার ঘোষনায় মহাচিন্তায় দখলবাজেরা

মুক্ত করার ঘোষনায় মহাচিন্তায় দখলবাজেরা

আরিফ মোল্ল্যা, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥  ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের চিত্রা নদীর জায়গা দখল চলে আসছে দীর্ঘ দিন ধরে। সময় গড়ানোর সাথে সাথে নতুন নতুন দখলবাজদের আবির্ভাব ঘটে। নিয়ন্ত্রন না থাকায় ক্ষমতার পালাবদলে দখলবাজদের সংখ্যাই দিন দিন বৃদ্ধি পেয়েছে। স্থানীয় প্রভাবশালীরা নদীর জমিতে বসতবাড়ি,ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। আবার জায়গা আয়ত্বে রাখতে কাটা হয়েছে ছোট বড় পুকুর। কেউ কেউ নদী দখল করে ফসলী মাঠে পরিণত করেছে । এখন দখলবাদে নদীর মাঝখানে যতটুকু জায়গা আছে দুর থেকে মনে হচ্ছে এ যেন সরু খাল। আবার এখানেই চলছে দুষন সৃষ্টির পাল্লা। সর্বোপরি খননের অভাবে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে এ নদীটি।

স্থানীয়দের ভাষ্য, অতীতে অনেকবার নদী দখলমুক্ত করতে সরকারীভাবে উদ্যোগ নিয়ে কিছুটা কাজ করা হলেও অদৃশ্য কারনে তা বন্ধ হয়ে গেছে। সম্প্রতি বর্তমান সরকারের অনেক দায়িত্বশীলতার স্থান থেকে নদীগুলো দখলমুক্ত করে খননের কথা বারবার প্রচার করছেন। স্থানীয় প্রশাসনও নদীর জায়গা মেপে সার্ভেও করেছেন। স্থানীয়দের আশা এবারই দখলমুক্ত করে শুরু হবে চিত্রার খননের কাজ। এদিকে দখলমুক্ত করার ঘোষনায় দখলবাজেরা রয়েছে আতঙ্কে। না জানি কখন কি হয়ে যায়।

চিত্রার দু’ধারের বাসিন্দারা জানান, এক সময়ের প্রমত্তা চিত্রা নদীটি আজ অস্তিত্ব সংকটে। দেশের দক্ষিণাঞ্চালের কয়েকটি জেলার সংযোগকারী এ নদীর ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ অংশের নিমতলা ও মধুগঞ্জ বাজার সংলগ্ন এলাকার দু-পাশে দেদারছে ফেলা হচ্ছে ময়লা আবর্জনা। শহরের ড্রেনের মাধ্যম দিয়ে নদীতে চলে যাচ্ছে বর্জ্য। ফলে যতটুকু পানি আছে তা দূষিত হয়ে যাচ্ছে। দু’পাড় থেকে জায়গা দখল করে তৈরি করা হয়েছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বসতবাড়ি, বড় বড় ভবন। দখলের কবলে ৩৯ মিটার প্রস্থের নদীটি এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে। এখন যতটকু জায়গা আছে তা মাত্র কয়েক মিটার প্রসস্থ হবে। দিনের পর দিন এক শ্রেণীর প্রভাবশালী মানুষ নদী দখল করলেও যেন দেখার কেউ নেই। এখন মাটি ভরাট হয়ে বর্ষাকালে কিছুটা পানি থাকলেও শুকনা মৌসুমে পানি চোখে পড়ে না বললেই চলে। চিত্রা হারিয়ে ফেলেছে তার নাব্যতা। এমনটা হলেও প্রভাবশালীদের ভয়ে কিছু বলতেও পারে না সাধারন মানুষ।

সরেজমিন জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত ঐতিহ্যবাহী চিত্রা নদীর তীর ঘুরে দেখা যায় চিত্রা নদীর দুই তীর দখল করে মাটি দিয়ে ভরাট করে তৈরি করা হয়েছে পাকা বাড়ি , ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, ক্লাব ঘর, রাজনৈতিক দলের অফিস কিংবা ধমীয় প্রতিষ্ঠান। নদীর বুকে চাষাবাদ দেখে মনে হচ্ছে এটা যেন ফসলী ক্ষেত। এখন বর্ষা শুরু হলেও নদীতে পানি নেই। কোন কোন স্থানে অল্প অল্প পানি থাকলেও পরিমানটা হাটু পানির বেশি নয়। আর যে সকল স্থানে পানি আছে সেখানে ময়লা আবর্জনা ফেলে নদী দুষণ করা হচ্ছে। ফলে নষ্ট হচ্ছে নদীর পানি, দুষণ ছড়িয়ে পড়ছে আশপাশে। এক দিনের দেশীয় মাছের বিচরন ক্ষেত্র নদী আজ পানির অভাবে মাছ শুন্য। বেকার হয়ে পড়েছে নদী এলাকার মস্যজীবিরা।

ঝিনাইদহ পরিবেশ ও জীববৈচিত্র সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান জানান, নদীগুলো দখল মুক্ত করতে আমরা জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। প্রশাসন বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছি। প্রশাসনও বারবার বলছে আমরা নদীগুলোর সীমানা নির্ধারণ করে অচিরেই দখলমুক্ত করবো। কাজ খুব তাড়াতাড়ি শুরু হবে। যদিও এখনও পর্যন্ত কোন উদ্যোগ তেমন একটা দৃশ্যমান হচ্ছে না। উদ্যোগ না নিলে এক সময় নদীর অস্তিত্ব থাকবে না। তিনি বলেন, নদীর মধ্যে মাটি এবং বর্জ্য দিয়েও ভরাট করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, আজ নদীর সাথে সংযুক্ত খালেও নেই পানি। এর ফলে প্রভাব পড়েছে কৃষি জমির সেচ কাজেও।

কালীগঞ্জের চিত্রা বাঁচাও আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী শিবুপদ বিশ্বাস জানান, চিত্রাকে বাঁচাতে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছি। চিত্রার অনেক স্থানে দখল করেছে প্রভাবশালীরা। প্রশাসন ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শণ করেছেন। কিন্তু এখনো এগুলো উচ্ছেদ করা হয়নি। তিনি বলেন, জরুরী ভিত্তিতে চিত্রা নদী দখলমুক্ত করা দরকার। সেই সাথে পরিবেশ রক্ষায় নদীটি খনন করে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা দরকার।

ঝিনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সরোয়ার জাহান সুজন জানান, ঝিনাইদহ নদী গুলো দখলমুক্ত করার ব্যাপারটা সম্পূর্ণই প্রশাসনের হাতে। প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা নজর দিলে অবৈধ দখলবাজদের উচ্ছেদ করা যাবে। তিনি বলেন, নদীর প্রবাহ ধরে রাখতে শুস্ক মৌসুমে নদীর পাশাপাশি খাল খননেও নেওয়া হবে পদক্ষেপ। তিনি আরো বলেন, চিত্রা নদী খনন করা হবে। এ ব্যাপারে আমরা সার্ভেও শুরু করেছি।

ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ জানান, নদী গুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে অবৈধ দখলকাজদের চিহ্নিত করা হয়েছে। এদের দ্রুতই উচ্ছেদ করা হবে। তিনি আরো বলেন, এর আগে নদীগুলোতে যারা পাটা দিয়ে নদীর স্বাভাবিক গতিপ্রবাহ বন্ধ করেছিল তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া নদীগুলোতে দুষণ চলছে এমন অভিযোগ পেয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা অব্যাহত রয়েছে। তবে পরিবেশ রক্ষায় চিত্রাকে বাঁচানো দরকার। উপরি নির্দেশনা মোতাবেক তারা চিত্রা দখলমুক্ত করবেন বলে আশ্বাস দেন।

শুধু আশ্বাস নই,দখলমুক্ত করতে কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন কর্তৃপক্ষ,এমন দাবি এ এলাকার সচেতন মহলের। তারা বলছেন,দ্রুত খনন কাজ শুরু করা না হলে হারিয়ে যাবে একদিনের প্রমত্তা চিত্রা নদী। পানি সংকটে সেচ কাজ ব্যাহত হয়ে প্রভাব পড়বে কৃষি উৎপাদনে। প্রভাব পড়বে পরিবেশেও।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit