বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০৯:৫১ পূর্বাহ্ন

দিনাজপুরে মহাশ্মশানের মন্দির ও সমাধিস্থল আবারো ভাংচুর

দিনাজপুরে মহাশ্মশানের মন্দির ও সমাধিস্থল আবারো ভাংচুর

২৪/২/১৯ইং রোজ রবিবার আছরের নামাজের পর সনকাই চৌরঙ্গী মহাশ্মশানের নবনির্মিত কালী মন্দির ও সমাধিস্থল ভাংচুরের পর আবারও মঙ্গলবার গভীর রাতে সদ্য প্রয়াত,২নং ঈশানিয়া ইউপির আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ভুটিন চন্দ্র রায়ের সমাধিস্থল ভাংচুর করে দৃর্বত্তরা।
সনকাই চৌরঙ্গী মহাশ্মশানের সভাপতি ভরত চন্দ্র রায় জানান গতকাল বিকালে মন্দির ভাঙচুর ও বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করার লক্ষ্যে দুরদূরান্ত থেকে লোকজন সমাগম হয়,তাদের উপস্থিতি দেখে তারা ভয়াবহ পরিস্থিতির আসঙ্কা করে,আতঙ্কিত হয়ে নির্বাহী কর্মকর্তাকে মুঠোফোনে জানান,নির্বাহী কর্মকর্তা খবর পেয়ে পরিদর্শনে এলে দুর্বত্তরা সরে যান।
রাত দশটা দিকে নির্বাহী কর্মকর্তা উপজেলায় ফিরে গেলে গভীর রাতে  ভুটিন বাবুর নবনির্মিত সমাধিস্থল ভাংচুর করে।
ইতিপূর্বে নবনির্মিত শশ্মানকালীর মন্দির ও শশ্মানের সমাধিস্থল ভাংচুর করে একই গ্রামের জনৈক মোঃ মান্নান(৫৫) ইস্কান্দার মির্জা (৫০) সহষপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জনৈক শফিকুল ইসলাম বাবুর(৪০)নেতৃত্বে দুই শতাধিক দুর্বৃত্ত। এতে সংখ্যালঘুদের মাঝে জনৈক গন্ডিরাম(৫৫)সহ সাত জন আহত হন বলে জানা যায়।
বোচাগঞ্জ থানা ও উপজেলা প্রশাসন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বোচাগঞ্জ থানার ইনচার্জ পৌঁছে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
ঘটনার পর দিন ২৫/২/ ১৯ইং সমবার ৩২জন চিহ্নিত ও শতাধিক ব্যক্তিকে অজ্ঞাত আসামি করে জনৈক অভয় রায়(৪০) বাদী হয়ে মন্দির ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ এবং সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার একদিন পরেই আসামিরা কোর্টে জামিনে মুক্তি পেলে স্থানীয় জনতা ২৮শে ফেব্রুয়ারি চৌরঙ্গী বাজারের অপরাধীদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে।।
অতঃপর গত বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) দিনাজপুর জেলা উত্তরের শিবির সভাপতি ও জেএমবি সদস্য আমানুল্লাহ সরকার(২৪) পিতা মৃত তরিকুল ইসলাম মসজিদ ভাংচুরের চেষ্টা, দশটি দোকান ভাঙচুর ও ১০ লক্ষ টাকা লুটপাটের অভিযোগ এনে ৪০ জন চিহ্নিত ও অজ্ঞাত ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা দায়ের করেন।
উল্লেখ্য আমানউল্লা সরকার ১৩/৬/১৬ইংয়ে ১৯টি ককটেল বিস্ফোরক ও জিহাদী বই সহ ৫জন শিবিরের সক্রিয় সদস্যকে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় গ্রেফতার করে যার মামলা বর্তমানেও আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।
এমন অবস্থায় স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন আতঙ্কিত হয়ে পরলে গত ১৩ই এপ্রিল বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনের আওয়ামী লীগের সমর্থিত প্রার্থী জনাব আবছার আলী চৌরঙ্গী বাজারের নৌকার পক্ষে একটি জন সমাবেশ করে।
সমাবেশে নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে তিনি হুঁশিয়ারি কন্ঠে বলেন যারা মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে হামলা মামলা করছেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন আনুক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
জনসমাবেশের ঐ গভীর রাত্রেই কে বা কাহারা চৌরঙ্গী বাজারের জামে মসজিদের দুই জানালার কাঁচ ও মসজিদের টিওবলের হাতা ভেঙে মসজিদের ওয়াল কাঁদা ছিটিয়ে বিশ্রী করে।
ঘটনার পরদিন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্থানীয় বক্তব্যে বলেন মসজিদ ভাংচুরের ঘটনা সুপরিকল্পিত মনে হয় স্থানীয়দের কাছে কেননা দুর্বৃতরা মসজিদ ভাংচুরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতো কিন্তু মসজিদে কাঁদা ছিটিয়ে দিয়ে বিশয়টি পরিস্কার বোঝা যায় যে তাদের লক্ষ্য মসজিদ ভাংচুরের নয় মসজিদকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা তৈরি করা। তাছাড়া মসজিদ ভাংচুরের চেষ্টা এইরুপ মামলা দায়েরের ৫দিন পর মসজিদ ভাংচুর বিষয়টি কৌতূহলের বটে। অপরাধী যেই হোক সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে কঠিন শাস্তি দাবি জানাই এলাকাবাসী।
এব্যাপারে সেই সময় মসজিদের সভাপতির সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এমতাবস্থায় স্থানীয় ভাবে চরম উৎতপ্ত পরিস্থিতি বিরাজমান বলে অনেকেই মনে করে বলেন,যে কোন মুহুর্তে নাসিরনগরের মত অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীরা।তাই এলাকাবাসীগন প্রশাসনের কাছে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প চেয়ে দরখাস্ত জমা দিবেন বলে অভয় চন্দ্র রায় জানান।।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit