শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ০৭:০৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
প্রকৌশলীদের সততা ও স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী কৃষকের কল্যাণে সরকার -কৃষিমন্ত্রী প্রতিমা ভাঙচুরের সময় ধরা পড়ে পুলিশে হস্তান্তর শার্শায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে মসজিদে টাকা প্রদান  ব্লাড ব্যাংক অফ কালীগঞ্জ এর আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রবীর সিকদারের বিচারের দাবীতে ফরিদপুরের কর্মরত সাংবাদিকদের মানববন্ধন গ্রাম আদালতের বিচার পেয়ে খুশী রেনু মিয়া Fuad’s ‘Cholo Bangladesh’ for the Tiger fans on ICC World Cup 2019 বিশ্বকাপে টাইগার ভক্তদের জন্য ফুয়াদের “চলো বাংলাদেশ” কামারখালী ইউনিয়নে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা ও ইফতার মাহফিল

রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের বিরোধ চরমে : আইন মানছে না রোহিঙ্গারা

রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের বিরোধ

ডেস্ক রিপোর্ট  : কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সঙ্গে স্থানীয়দের বিরোধ ক্রমশই তীব্র আকার ধারণ করছে। মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দমনপীড়নে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা টেকনাফ ও উখিয়ায় আশ্রয় নিয়ে বসবাস করছে। এ দুটি উপজেলায় বর্তমানে স্থানীয় বাসিন্দাদের চেয়ে রোহিঙ্গাদের সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি। প্রথমদিকে মানবিক কারণে অনেকে বাড়িঘর ও জমিতে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিলেও প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া প্রলম্বিত হওয়ায় জীবন-জীবিকার প্রতিটি ক্ষেত্রে নানা সংকটের মুখে পড়তে হচ্ছে তাদের। আশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধেই হিংস্র আচরণ করছে অনেক রোহিঙ্গা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে সরকার আন্তর্জাতিক দাতাসংস্থার সহযোগিতায় কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ছয় হাজার একর জমিতে আশ্রয় শিবির তৈরি করে দিয়েছে। তাছাড়া স্থানীয়রাও কিছু জমি রোহিঙ্গাদের সাময়িকভাবে থাকার জন্য তখন ছেড়ে দেয়। মানবিক কারণে তাদের আশ্রয় দেওয়া হলেও রোহিঙ্গারা এখন স্থানীয়দের জন্য বিষফোঁড়ায় পরিণত হয়েছে। তাদের হিংস্র আচরণের কারণে ধীরে ধীরে রোহিঙ্গারা এখন স্থানীয়দের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রোহিঙ্গারা এখন ক্যাম্পের অভ্যন্তরে মাদকের ব্যবসা করছে। জড়িয়ে পড়েছে চুরি, ডাকাতি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, নারী ধর্ষণ, মানবপাচারসহ বিভিন্ন অপরাধ কাজে। উজার করছে বনাঞ্চল। তাদের কিছু বললে তারা তেড়ে আসে। রোহিঙ্গাদের কারণে এখন উখিয়া-টেকনাফের লোকজনই মানবেতর জীবনযাপন করছেন।রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের বিরোধ

উখিয়ার বালুখালি পাহাড়ে দীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে বাস করেন মোমেনা বেগম। তিনি জানান, দেড় বছর আগে রোহিঙ্গারা যখন নতুন করে বাংলাদেশে আসা শুরু করে, তখন তিনি তার নিজ বাড়ির উঠানেই জায়গা দিয়েছিলেন একটি রোহিঙ্গা পরিবারকে। পাশাপাশি বাড়ির বাইরে নিজের জায়গায় রোহিঙ্গাদের অন্তত ৭০টি ঘর তুলতে দিয়েছিলেন। কিন্তু মোমেনা বেগম এখন আশঙ্কা করেছেন এসব জায়গা তিনি আদৌ ফিরে পাবেন কি-না। তিনি বলেন, ওরা বেশিদিন থাকবে না- এটা মনে করেই জায়গা দিয়েছিলাম। এখন তো ফেরত যাচ্ছে না। এদের আর তিনি রাখতে চান না বলে জানান। তিনি আরও বলেন, এরা অর্ধেক ভালো তো অর্ধেক খারাপ। ওদের জনসংখ্যাও বেশি। কিছু বললে দা-বঁটি নিয়ে তেড়ে আসে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন অফিস সূত্রে জানা গেছে, টেকনাফের মোছনি, শামলাপুর, চাকমারকুল, নয়াপাড়া এবং উখিয়ার কুতুপালং, বালুখালী, থাইংখালী, পালংখালীতে বনবিভাগের জমিতে আশ্রয় দেওয়া হয় রোহিঙ্গাদের। এছাড়া স্থানীয়রাও কিছু রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন।

স্থানীয়রা জনিয়েছেন, উখিয়া এবং টেকনাফে যে পরিমাণ জনসংখ্যা তার দ্বিগুণের বেশি রোহিঙ্গা এই দুই উপজেলায় বর্তমানে অবস্থান করছে। এতে করে এখন তারা মৌলিক অধিকার পর্যন্ত বঞ্চিত হচ্ছেন।

এ বিষয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম আজাদ গতকাল খোলা কাগজকে বলেন, একটি বিশাল জনগোষ্ঠী এখানে বসবাস করছে। ছোটখাটো ঘটনা তো ঘটতেই পারে। ওই এলাকায় যাতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিরাজ করে সে জন্য আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ করছে। বিষয়গুলো আমরা দেখছি।

জানা গেছে, রোহিঙ্গাদের কারণে কক্সবাজারের ওই এলাকায় সাধারণ মানুষের ওপর নানা ধরনের প্রভাব পড়ছে।

সরকারি ভাষ্য যাই হোক না কেন, দিনে দিনে স্থানীয় অধিবাসীদের সঙ্গে রোহিঙ্গাদের বিরোধ তীব্র হচ্ছে। শিক্ষা, কর্মসংস্থান, যোগাযোগ সবক্ষেত্রেই সমস্যার মুখে পড়ছেন তারা। বিপুল মানুষের চাপে ফসলি জমিও কমেছে। বাড়ছে অপরাধও।

শিক্ষা : উখিয়ার পালংখালী নলবনিয়া এলাকার সমাজসেবক আলী আহমদ জানান, রোহিঙ্গাদের কারণে এ এলাকার শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। শিশুরা মাঝে মধ্যে স্কুলে গেলেও হাইস্কুল এবং কলেজ শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যায় না। তারা এখন লেখাপড়া বাদ দিয়ে ক্যাম্পে চাকরির পেছনে ঘুরছে। তাছাড়া রোহিঙ্গা আগমনের শুরু থেকেই উখিয়া-টেকনাফের সিংহভাগ বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল। বর্তমানে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রোহিঙ্গামুক্ত হলেও কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান এনজিওমুক্ত করা সম্ভব হয়নি। আবার যেসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, সেখানে নিয়মিত শিক্ষার্থী আসে না।

ফসলি জমি : উখিয়া-টেকনাফে রোহিঙ্গা আগমনের শুরু থেকে ধ্বংসের মুখে পড়েছে কৃষি জমি। প্রতি বছর কৃষক যেখানে দ্বি-ফসলি চাষ হতো সেসব জমি এখন একবারও চাষ করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে খাদ্যের সংকট দেখা দিচ্ছে। এছাড়া অতিরিক্ত ১১ লাখ রোহিঙ্গার কারণে খাদ্যের ওপর দ্বিগুণ চাপ বেড়েছে। এতে সব ধরনের খাবারের দাম বেড়েছে। এ অবস্থায় অনেক সময় ক্রয় ক্ষমতার বাইরে গিয়ে খাদ্য কিনতে পারছেন না সাধারণ মানুষ।

বালুখালী গ্রামের ছৈয়দ হোসেন জানান, আমরা মানবিক কারণে শুরুতে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছিলাম। এখন মনে হচ্ছে তাদের আশ্রয় দেওয়া ভুল হয়েছে। নিজের চাষের জমিও এখন তারা দখল করে নিয়েছে। ফলে খাদ্য উৎপাদন করতে পারছি না।

শ্রম বাজার : রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয় দিনমজুরকে সবচেয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। আগে স্থানীয়রা দৈনিক ৮০০ টাকা করে কাজ করতো। এখন রোহিঙ্গারা সস্তায় শ্রম দেওয়ার কারণে স্থানীয়দের কাজে নিয়োগ দেওয়া হয় না। এতে অনেক সময় অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটে স্থানীয়দের। থাইংখালী গ্রামের রহমত উল্লাহ জানান, আগে অন্যের জমিতে দৈনিক ৮০০ টাকা করে কাজ করতাম। এখন রোহিঙ্গাদের কারণে আমাদের কাজে নেয় না।

যোগাযোগ : রোহিঙ্গাদের জন্য দেশি-বিদেশি কয়েকশত এনজিও কাজ করছে, তাদের গাড়ি। একই সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের গাড়িও রয়েছে। এ কারণে ১০ মিনিট সড়ক যোগাযোগ এখন এক ঘণ্টায় শেষ হয় না। একই সঙ্গে অতিরিক্ত যাত্রীর কারণে ভাড়াও বেড়েছে দ্বিগুণ। স্থানীয় প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব অপরাধ সংঘটিত হলেও কোনো প্রদক্ষেপ নেওয়া হয় না। ফলে সাধারণ মানুষের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। রফিকুল ইসলাম নামে স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, কক্সবাজার থেকে টেকনাফ শামলাপুর মাত্র ৬০ কিলোমিটার পথে ভাড়া দিতে হয় দেড় থেকে দুইশ টাকা। আগে যা ছিল না।

অপরাধ : রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো এখন অপরাধের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন কয়েক কোটি টাকার ইয়াবা লেনদেন হয় ক্যাম্পে। ধর্ষিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। যার ফলে নিজেদের মধ্যে ঘটছে গোলাগুলিসহ নানা হত্যাকাণ্ডের ঘটনা। এদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিওর চাকরিতে স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দিতে আন্দোলনে নেমেছে স্থানীয় বেকার শিক্ষিত যুবসমাজ। গত সোমবার তাদের আন্দোলনের মুখে পড়ে ক্যাম্পে যেতে পারেনি এনজিও সংস্থার লোকজন। এতে দিন দিন স্থানীয় ও রোহিঙ্গা বৈরী সম্পর্ক তীব্র হচ্ছে।

উৎসঃ খোলা কাগজ

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit