সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ০৮:০৪ অপরাহ্ন

ব্রাজিলে দ্বিতীয় বারের মতো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদ্‌যাপন

ব্রাজিলে মাতৃভাষা দিবস, মাতৃভাষা দিবস, দ্বিতীয় বারের মতো মাতৃভাষা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত, মাতৃভাষা দিবস উদ্‌যাপন, ব্রাজিলে শহীদ দিবস, ব্রাজিলে মহান ভাষা শহীদ দিবস, ব্রাজিলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

ব্রাজিলের সাও পাওলোয় দ্বিতীয় বারের মতো বাংলাদেশ দূতাবাসের আয়োজনে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন: একুশে উদযাপনের দ্বিতীয় পর্যায় ব্রাজিলিয়ায় ২৭শে ফেব্রুয়ারী।

বাংলাদেশ দূতাবাস ব্রাসিলিয়া ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯, বিকেলে যথাযোগ্য ভাবগাম্ভীর্য ও মর্যাদায় ব্রাজিলের বৃহত্তম নগরী এবং প্রধান বাণিজ্য কেন্দ্র সাও পাওলোয় দ্বিতীয় বারের মতো মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করেছে। এবারেই প্রথম বাংলাদেশ সময় অনুসারে ব্রাজিলে একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয় I

পৃথিবীর পঞ্চম বৃহত্তম রাষ্ট্র ব্রাজিলের নানা শহরে বাংলাদেশের নাগরিকরা ছড়িয়ে থাকলেও সাও পাওলো শহরেই সর্বোচ্চ সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীর বসবাস। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে প্রথম বারের মত বাংলাদেশ দুতাবাস, ব্রাসিলিয়া, সাও পাওলো-তে প্রবাসী বাংলাদেশের নাগরিকদের সাথে মহান ভাষা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছিল। এ বছরও দূতাবাসের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিন শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশের নাগরিক বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার  সাথে এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

সাও পাওলোর বাংলাদেশী অধ্যুষিত ব্রাস শহরের কার্লোস দো কাম্পোস খেলার মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী  শহীদ মিনারে মান্যবর রাষ্ট্রদূতের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের মধ্য দিয়ে বিকেল পাঁচটায় অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর বাংলাদেশ কম্যুনিটির বিভিন্ন সংগঠন ও প্রবাসী বাঙ্গালীরা শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। মূল অনুষ্ঠানের শুরুতে ভাষা শহীদদের সম্মানে নীরবতা পালন করা হয় এবং তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। এরপর শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।

অনুষ্ঠানের পরবর্তী অংশে ছিল উন্মুক্ত আলোচনা। প্রবাসী বাংলাদেশের নাগরিকরা এ সময় তাদের নানা সমস্যা তুলে ধরেন এবং দূতাবাসের কাছে তাদের কি প্রত্যাশা তা ব্যক্ত করেন। উন্মুক্ত আলোচনা পর্বে বক্তাগণ সাও পাওলো-তে প্রবাসীদের সাথে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং ভবিষ্যতে সকল জাতীয় দিবস তাদের সাথে উদযাপনের জন্য রাষ্ট্রদূতের নিকট অনুরোধ করেন। বক্তারা ব্রাজিল প্রবাসী বাংলাদেশের নাগরিকদের কন্স্যুলার পরিষেবা প্রদান সহজতর করার লক্ষ্যে নানা উদ্যোগ গ্রহণের জন্য  রাষ্ট্রদূতের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সময় প্রবাসীরা সাও পাওলো-তে একটি কনস্যূলেট স্থাপনের দাবি জানান এবং নানা কারণে ব্রাজিলে মৃত্যুবরণ করা বাংলাদেশের নাগরিকদের মৃতদেহ ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সরকারের আর্থিক সহায়তা প্রদানের অনুরোধ করেন। । সাও পাওলো-তে বাংলাদেশের কোন কনস্যুলেট না থাকায় বিভিন্ন কনস্যুলার সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রবাসীরা নানা প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হন। উল্লেখ্য, সাও পাওলো-তে বসবাসরত অধিকাংশ প্রবাসী ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী অথবা রেস্তোরা কর্মী। কনস্যুলার পরিষেবা গ্রহণের জন্য দু’হাজারেরও বেশী ব্রাজিলিয়ান রিয়েল খরচ করে বিমান যোগে ব্রাসিলিয়াতে আসা তাদের সাধ্যের বাইরে। অন্যদিকে বাস যোগে ১৬ ঘন্টারও বেশী সময় ভ্রমণ করে আসাটাও অত্যন্ত কষ্টসাধ্য। বাসে ব্রাসিলিয়া আসা যাওয়া করে কন্স্যুলার পরিষেবা গ্রহণ করতে তাদের তিন দিনেরও বেশী সময় ব্যয় হয় যার ফলে অনেক সময় তারা চাকুরিচ্যূত হন । সাও পাওলো প্রবাসীরা সেখানে একটি কন্স্যুলেট স্থাপনের মাধ্যমে এ সকল সমস্যার স্থায়ী সমাধানের দাবি জানান ।

রাষ্ট্রদূত মোঃ জুলফিকার রহমান তাঁর শুভেচ্ছা বক্তব্যে বাংলাদেশ দুতাবাসের এ আয়োজনে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণের জন্য সাও পাওলো প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানান এবং তাদের ঐক্যবদ্ধভাবে একে অন্যকে বিপদে সহায়তার অনুরোধ জানান। তিনি উল্লেখ করেন যে, আগামীতেও দূতাবাস এ ধরণের উদ্যোগ গ্রহণের চেষ্টা করবে। তবে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসসহ অন্যান্য দিবস রাজধানী ব্রাসিলিয়াতে আয়োজনের গুরুত্ব তুলে ধরে তিনি জানান যে সকল জাতীয় দিবস সাও পাওলো-তে উদযাপন সম্ভব নয় । ব্রাজিলের সাথে বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধি এবং প্রবাসীদের কন্স্যুলার পরিষেবা সহজতর করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সাও পাওলোতে কন্স্যুলেট স্থাপনের একটি প্রস্তাব তিনি মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন বলে রাষ্ট্রদূত জানান। এ তথ্য উপস্থিত সকলের মধ্যে বিপুল প্রাণ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। সাও পাওলো এবং অন্যান্য দূরবর্তী শহরে বসবাসরত বাংলাদেশের নাগরিকদের কন্স্যুলার পরিষেবা প্রদানের জন্য দূতাবাস থেকে মোবাইল টিম পাঠানো অব্যাহত রাখা হবে বলে তিনি ঘোষণা করেন। মৃত্যুবরণ করা বাংলাদেশের নাগরিকদের মৃতদেহ ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সহয়তার বিষয়ে আরো উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে তিনি জানান। তবে মৃত্যুবরণ করা বাংলাদেশের নাগরিকদের মৃতদেহ দেশে ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সরকারের নীতিমালা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত জানান যে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের নাগরিকরা অনিয়মিত পথে ব্রাজিল আগমন করেন বিধায় সরকারী নীতিমালায় উল্লেখিত শর্তসমুহ পূরণ করে মৃতদেহ স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা করা দুরূহ হতে পারে।

 ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারীতেই যে বাঙ্গালী জাতির স্বাধীনতাযুদ্ধের বীজ রোপিত হয়েছিল, তা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত তাঁর বক্তব্যে বলেন যে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পরিচালিত মাতৃভাষা বাংলা রক্ষার আন্দোলনই পরবর্তীতে বাঙ্গালী জাতিকে স্বাধিকার আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ করে। যার ফলশ্রুতিতে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অভ্যূদয় ঘটে স্বাধীন স্বার্বভৌম বাংলাদেশের । ১৯৯৯ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের ভাষা শহীদ দিবস পায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি। ২০১৭ সালে দক্ষিণ কোরিয়ায় রাষ্ট্রদূত হিসেবে দ্বায়িত্ব পালনের সময় সেখানে একটি শহীদ মিনার স্থাপনের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে তিনি সাও পাওলো-তে একটি শহীদ মিনার নির্মাণের পরিকল্পনার কথা জানান। এ বিষয়ে তিনি প্রবাসীদের সহযোগিতা কামনা করেন।

 রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের পর সাও পাওলো প্রবাসী ব্রাজিল-বাংলা ব্যান্ডের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় ব্রাসিলিয়াতে অবস্থিত ব্রাজিলের জাতীয় গ্রন্থাগারের অডিটরিয়ামে ১৩টি ভিন্ন ভাষাভাষী শিল্পীদের পরিবেশনায় একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ব্রাসিলিয়াতে মহান ভাষা শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হবে ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit