মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০৬:৫৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ভারত ও ভুটানের কূটনীতিকগণের জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন ভারতীয় ও ভুটানী ফরেন সার্ভিসের প্রশিক্ষণার্থীদের পররাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ সবচেয়ে বেশি কল ড্রপের ভোগান্তিতে গ্রামীণফোনের গ্রাহক আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক না হলে বিশ্বাসযোগ্য ও গ্রহণযোগ্য শব্দ দুটির উজ্জ্বলতা থাকে না শেষ হল বিশ্ব ইজতেমা মার্স এবং ভেনাসের বিস্ময়কর সব তথ্য এবার হিন্দু শিক্ষিকাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত! দিনাজপুরের উৎসব মুখর পরিবেশে ১৩ উপজেলায় ১৯৩ জন প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল ইহুদিবিদ্বেষী লেবারপার্টির ৭ এমপির পদত্যাগ যুক্তরাজ্যের

বিলুপ্তির পথে বাংলাদেশের জাতীয় খেলা হা-ডু-ডু

বিলুপ্তির পথে বাংলাদেশের জাতীয় খেলা হা-ডু-ডু

কাবাডি বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় খেলা।বর্তমান আধুনিকতার যুগে এসে আজ বাঙালি জাতি হারিয়ে ফেলছে বাংলার ঐতিহ্যবাহী জাতীয় খেলা কাবাডি।মাঝেমধ্যে গ্রাম্যঞ্চলে তরুণ যুবকদের খেলতে দেখা যায়।দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো এই খেলাকে বিভিন্ন নাম দিয়ে খেলে থাকেন।বাংলাদেশে এই খেলা হা-ডু-ডু নামে পরিচিত। বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন নামে খেলা হয়ে থাকে।বাংলাদেশের ফরিদপুরে কাবাডি খেলার প্রথম সূচনা হয় বলে জানা যায়।

গ্রাম্যঞ্চলে আধুনিক খেলাধুলা প্রসারের পূর্বে হা-ডু-ডু ছিল চিত্তবিনোদনের অন্যতম উৎস।কাবাডি বাংলাদেশের জাতীয় খেলা।বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এদেশে কাবাডি ফেডারেশন গঠিত হয়।ভারতীয় উপমহাদেশে ১৯ শতাব্দীতে কাবাডি খেলা হুটুটু,ছেড়গুড়,বা ডুডুডু ইত্যাদি নামে প্রায় সর্বত্র খেলা হতো।শ্রীলংকায় গুডু,বাংলাদেশে হা-ডু-ডু, থাইল্যান্ডে যিকুব,পাকিস্তানে হা-ডু-ডু,ভারতে কাবাডি নামে খেলা হতো।

ভারতীয় উপমহাদেশে কাবাডি উৎপত্তি হলেও সঠিকভাবে কার মাধ্যমে কোন জায়গায় এর প্রচলন হয়েছে তা জানা জায়না।১৯৫০ সালে ভারতীয় জাতীয় কাবাডি ফেডারেশন গঠিত হয়। এরপর থেকে কাবাডি খেলার ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসে।১৯৫৩ সালে কাবাডি খেলার আইন কানুন প্রণীত ও ১৯৬০ এবং ১৯৬৬ সালে কাবাডি খেলার আইন সংশোধিত হয়।১৯৭৩ সালে বাংলাদেশের দুইজন কর্মকর্তা বাংলার আসানসোলে ভারতীয় জাতীয় কাবাডি প্রতিযোগিতা দেখতে যান।তারা দেশে ফিরে কাবাডি ফেডারেশন গঠন করেন।১৯৭৪ সালে এশিয়ান এ্যামেচার কাবাডি ফেডারেশন গঠিত হয়।

১৯৭৪ সালে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে কাবাডি টেস্ট অনুষ্ঠিত হয়।এই খেলায় প্রতিদলে ১২ জন খেলোয়াড় অংশ নেয়।কিন্তু প্রতিদলের ৭ জন খেলোয়াড় একসাথে মাঠে নামে। বাকি ৫ জন খেলোয়াড় অতিরিক্ত হিসাবে থাকে।খেলা চলাকালীন সর্বাধিক ৩ জন খেলোয়াড় পরিবর্তন করা যাবে।৫ মিনিট বিরতি সহ দুই অর্ধে পুরুষদের ২৫ মিনিট করে আর মেয়েদের ২০ মিনিট করে খেলা হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit