বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ইসকন বন্ধের দাবিতে ভোলায় মুসল্লিদের বিক্ষোভ আশাশুনির বিভিন্ন কৃষি প্রদর্শনী পরিদর্শনে ডিডি অরবিন্দ হঠাৎ করেই রাণীনগরে দিনে-রাতে চুরির হিড়িক স্পেন স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ঘাপটি মেরে থাকা কুচক্রীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকুন -মোস্তাফা জব্বার ২১ আগষ্ট গ্রানেড হামলার প্রতিবাদে বেনাপোলে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত সেমন্তি আত্মহত্যার ঘটনায় দুই যুবকের বিরুদ্ধে বাবার মামলা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সাবেক ওসি সাইফুল স্বস্ত্রীক দণ্ডিত গ্রেনেড হামলার দায় রয়েছে খালেদা জিয়ারও -তথ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যা, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস ও গণমাধ্যম শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

এক বছর পূর্ণ হলো খালেদা জিয়ার কারাবাস

খালেদা জিয়ার কারাবন্দী

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাবাসের এক বছর পূর্ণ হলো আজ। ২০১৮ সালের এই দিনে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হওয়ায় নিম্ন আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। সেই থেকে তিনি পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন।

তবে খালেদা জিয়া খালাস চেয়ে এ সাজার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ খালেদার সাজা বৃদ্ধি চেয়ে আবেদন করেন। ৩০ অক্টোবর এ মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা ৫ বছর বাড়িয়ে ১০ বছরের আদেশ দেন বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের বেঞ্চ।

এদিকে গত ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৫ নম্বর অস্থায়ী বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে ৭ বছরের কারাদণ্ড ছাড়াও খালেদা জিয়াকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা কার হয়। জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক আলোচনা সভায় বলেছেন, খালেদা জিয়ার শারীরীক অবস্থা ভালো না। তিনি একেবারেই হাটতে পারেন না। দুই হাতেই ব্যথা। শরীরের অবস্থা আগের চেয়ে অনেক খারাপ। সরকার যে ফরমুলা করেছে এখান থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব না। তার মুক্তি সরকারের সদিচ্ছার উপর নির্ভর করছে।

১৯৮২ সালের ৩ জানুয়ারি রাজনীতিতে যোগ দেয়ার পর তিনি মোট চারবার গ্রেফতার হন। এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯৮৩ সালের ২৮ নভেম্বর, ১৯৮৪ সালের ৩ মে, ১৯৮৭ সালের ১১ নভেম্বর তিনি গ্রেফতার হন। তবে তখন তাকে বেশি দিন বন্দী থাকতে হয়নি। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর দুর্নীতির মামলায় গ্রেফতার হয়ে জাতীয় সংসদ ভবন এলাকার স্থাপিত বিশেষ সাব জেলে এক বছরেরও (৩৭২ দিন) বেশি সময় বন্দী ছিলেন তিনি।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit