শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে সব ম্যাচে হারিয়েছে ভারত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন অনুযায়ী ক্ষুধামুক্ত করাই আমাদের লক্ষ্য -প্রধানমন্ত্রী কেন্দ্রীয় নেতাদের ব্যর্থতার জন্য আরেকটি গণশুনানি দরকার দগ্ধ আশঙ্কাজনক ৯ জনকে বিদেশ নেয়ার প্রয়োজন নেই: ডা. সামন্তলাল ভোট জালিয়াতি, যুক্তরাষ্ট্রের নাইনথ ডিস্ট্রিক্টে পুনরায় ভোটগ্রহণের নির্দেশ গণআদালতের বক্তব্য বই আকারে প্রকাশ করা হবে: ড. কামাল কালীগঞ্জ নির্বাচন কর্মকর্তার মোবাইল ফোন ক্লোন করে মেয়র প্রার্থীর কাছে চাঁদা দাবি ঝিনাইদহ হরিণাকুন্ডুতে পাওনা টাকা চাওয়ায় গৃহবধুকে কুপিয়ে যখম অগ্নিকান্ডে নিহতদের স্মরণে ঝিনাইদহে মোমবাতি প্রজ্জলন ঝিনাইদহে বিপি দিবস উদযাপন

দেশেই সম্ভব ক্যানসারের চিকিৎসা

দেশেই সম্ভব ক্যানসারের চিকিৎসা

 আতঙ্ক ভর করে মানুষের মনে ক্যানসার শব্দটা শুনলেই।  পুরো পরিবারই যেন আতঙ্কগ্রস্ত  দিন যাপন করতে থাকে। তবে চিকিৎসকেরা বলেন, অসংক্রামক ব্যাধির অন্যান্য রোগের মতোই ক্যানসারকেও সহজভাবে নিয়ে নিয়মিত চিকিৎসা করাতে হবে। আর ক্যানসারের আন্তর্জাতি কমানের চিকিৎসা এখন বাংলাদেশেই সম্ভব।

প্রতিবছরের ৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ক্যানসার দিবস হিসেবে পালন করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ক্যানসার নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘দ্য ইউনিয়ন ফর ইন্টারন্যাশনাল ক্যানসার কন্ট্রোল (ইউআইসিসি)’ এ বছর থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত একটি ক্যাম্পেইন চালু করেছে। ক্যাম্পেইনের প্রতিপাদ্য ‘আমি এবং আমি করব’ অর্থাৎ ক্যানসার হওয়া মানে ভেঙে পড়া নয়। এ ক্যাম্পেইনে রোগীদের প্রতি ব্যক্তিগত প্রতিশ্রুতির আহ্বান জানাচ্ছে। তাদের ব্যক্তিগত পদক্ষেপ যেন ভবিষ্যতে প্রভাব রাখে।

অ্যাপোলো হসপিটালস ঢাকার ক্যানসার বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট রাজু তিতাস চ্যাকো বলেন, ‘ক্যানসার শব্দটা মানুষের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করে। কিন্তু ক্যানসার নিয়ে মানুষের আরও বেশি কথা বলা উচিত এবং বিষয়টিকে স্বাভাবিকভাবে নিতে হবে। যেমন ডায়বেটিস কিন্তু দীর্ঘমেয়াদি রোগ। কিন্তু এটা নিয়ে মানুষের উদ্বেগ কম, ক্যানসারকেও সেভাবে দেখতে হবে। তাহলে তা রোগী ও তার পরিবারকে তা মানসিকভাবে চাপমুক্ত করবে।’

দক্ষিণ ভারতের ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজের অনকোলজিস্ট বিভাগের সাবেক প্রধান রাজু তিতাস চ্যাকো প্রথম আলোকে বলেন, মানুষের শরীর অসংখ্য কোষ দিয়ে তৈরি। এই কোষ কখনো যদি অনিয়ন্ত্রিতভাবে বাড়তে থাকে, তখন ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এটা তখন রক্তসহ শরীরে বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়তে পারে। ক্যানসারের দুটি ধরন থাকে—বাধাহীনভাবে বাড়তে থাকা এবং দ্রুত শরীরে ছড়িয়ে পড়া। তিনি বলেন, ক্যানসার শুরুতে ধরা পড়লে সুস্থ হওয়া সম্ভব। কিন্তু শেষে গিয়ে ক্যানসার ধরা পড়লে তখন রোগীর জীবন দীর্ঘায়িত করার দিকে নজর দেন চিকিৎসকেরা।

রাজু তিতাস চ্যাকো বলেন, যদি প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যানসার ধরা পড়ে, তাহলে আক্রান্ত জায়গা সম্ভব হলে কেটে ফেলে দেওয়া হয়। তাহলে আর ক্যানসার ছড়িয়ে পড়ে না এবং রোগী পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যায়। চিকিৎসকেরা এখন ক্যানসার প্রাথমিক পর্যায়ে থাকতে নির্ণয় করার চেষ্টা করছেন, যাতে এটা শরীরে দ্রুত ছড়াতে না পারে।

দ্য ইকোনমিস্টের ২০১৭ সালের তথ্য তুলে ধরে রাজু তিতাস চ্যাকো বলেন, বাংলাদেশে মৃত্যুর ষষ্ঠতম কারণ হচ্ছে ক্যানসার এবং প্রতি ১০ জনের ১ জন মারা যায় ক্যানসারে। তা ছাড়া এ দেশে যাদের ক্যানসার হয়, তার ৬০ ভাগ হচ্ছে ৩০ থেকে ৬৫ বছর বয়সী মানুষ এবং তারা হচ্ছে কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী।

রাজু তিতাস চ্যাকো বলেন, বাংলাদেশে শীর্ষ দশটি ক্যানসারের মধ্যে স্তন ক্যানসার এক নম্বরে রয়েছে। এরপরে আছে খাদ্যনালির ক্যানসার, জরায়ু মুখের ক্যানসার ও ফুসফুস ক্যানসার। স্তন ক্যানসার এ দেশে বাড়ছে। তবে পশ্চিমা অর্থাৎ উন্নত বিশ্বে এর পরিমাণ আরও বেশি। কিন্তু উপমহাদেশীয় দেশগুলোতে ধীরে ধীরে বাড়ছে। জীবনযাত্রার পরিবর্তনকে এর অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন চিকিৎসকেরা।অন্যদিকে ক্যানসারের এখনো অন্যতম বড় কারণ হিসেবে ধূমপানকে দায়ী করেন চিকিৎসকেরা। অ্যাপোলোর চিকিৎসক রাজু তিতাস চ্যাকো বলেন, ধূমপান বন্ধ হলে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ক্যানসার হওয়া থেকে ঝুঁকিমুক্ত থাকা সম্ভব।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit