মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
দেশের কৃষির উন্নয়ণ ও কৃষকের স্বার্থ রক্ষার জন্য ১৯৭২ সালে এ দিনে বঙ্গবন্ধু কৃষক লীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন-উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম ধর্মের নামে মানুষ হত্যাকারীরা ধর্মের ক্ষতি করে -মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী থানায় ছাত্রলীগের হামলা, ভাঙচুর ওসিসহ আহত-৬,গ্রেপ্তার-৭ রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য স্বাভাবিক রাখতে বিভাগীয় কমিশনারদেরকে বাণিজ্যমন্ত্রীর চিঠি চিলমারীতে ব্রীজ নির্মাণে অনিয়ম; রাতের আঁধারে চলছে ঢালাইয়ের কাজ, এলাকাবাসির সাথে হাতাহাতি ঝিনাইদহে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম-প্রহরীদের চাকুরী জাতীয়করণের দাবিতে মানববন্ধন ঝিনাইদহে স্বামী-শ্বাশুড়ীর বিরুদ্ধে গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগে লাশ নিয়ে সড়ক অবরোধ নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে লক্ষ্মীপুরে পূজা উদযাপন পরিষদের মানববন্ধন ধর্ষণ মুক্ত নিরাপদ দেশ চাই, মা বোনদের নিরাপত্তা চাই নতুন প্রজন্মকে বই পড়ার অভ্যাস করতে হবে- শিক্ষামন্ত্রী

মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :

“মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে যশোরের সাগরদাঁড়িতে ‘মধুমেলা’ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। এ উপলক্ষে আমি সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

সাহিত্যের প্রবাদ পুরুষ মাইকেল মধুসূধন দত্ত বাংলা সাহিত্যের আকাশে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। কালজয়ী এ সাহিত্যিকের লেখনীতে ফুটে উঠেছে বাঙালির স্বজাত্যবোধ ও স্বাধীনচেতা মনোভাব। তাঁর অনন্য সাহিত্যকর্ম বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অমূল্য সম্পদ। পুরাতন ধ্যান-ধারণা ও মূল্যবোধকে উপেক্ষা করে তিনি বাংলা সাহিত্যকে নবজীবন দান করেছেন। তিনি আমাদের বিচিত্র কাব্য-সম্ভার উপহার দিয়েছেন।

মধুসূদন দত্ত বাংলা ভাষায় মহাকাব্য রচনা এবং বাংলা কবিতায় অমিত্রাক্ষর ছন্দ প্রবর্তনের পথিকৃৎ। বিশ্ব সাহিত্যের ভান্ডারে প্রবেশ করে মণি-মুক্তা আহরণ করে তিনি বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। নাটক, প্রহসন, মহাকাব্য, পত্রকাব্য, সনেট, ট্র্র্র্যাজেডিসহ সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তাঁর অমর সৃষ্টি বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে উন্নত মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছে।
মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের প্রতি উৎসর্গীকৃত শ্রদ্ধাস্মারক ‘মধুমেলা’ প্রকাশের উদ্যোগকে আমি সাধুবাদ জানাই। আমি আশা করি, এ শ্রদ্ধাস্মারক কবির অনন্য সাহিত্য প্রতিভা ও দেশাত্ববোধ নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখবে।

আমি ‘মধুমেলা-২০১৯’ এর সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit