বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ইসকন বন্ধের দাবিতে ভোলায় মুসল্লিদের বিক্ষোভ আশাশুনির বিভিন্ন কৃষি প্রদর্শনী পরিদর্শনে ডিডি অরবিন্দ হঠাৎ করেই রাণীনগরে দিনে-রাতে চুরির হিড়িক স্পেন স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ঘাপটি মেরে থাকা কুচক্রীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকুন -মোস্তাফা জব্বার ২১ আগষ্ট গ্রানেড হামলার প্রতিবাদে বেনাপোলে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত সেমন্তি আত্মহত্যার ঘটনায় দুই যুবকের বিরুদ্ধে বাবার মামলা অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় সাবেক ওসি সাইফুল স্বস্ত্রীক দণ্ডিত গ্রেনেড হামলার দায় রয়েছে খালেদা জিয়ারও -তথ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যা, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস ও গণমাধ্যম শীর্ষক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

বিশ্বের বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ কুম্ভ মেলায়

কুম্ভ মেলা প্রাঙ্গন

কুম্ভ মেলা একটি হিন্দু উৎসব। এই উপলক্ষে ধর্মপ্রাণ হিন্দুরা তীর্থস্নান করতে আসেন। বিশ্বের বৃহত্তম শান্তিপূর্ণ সমাবেশ হিসাবে ২০১৩ সালে এখানে ১০ কোটীর বেশি মানুষের আগমন ঘটে। জায়গার অনুপাতে যা ২০১৩ সালের মহাকুম্ভ মেলার থেকে প্রায় ২৫ শতাংশ বড়। চলতি বছরে ৩৫ বর্গ কিমি অঞ্চল জুড়ে চলছে অর্ধ কুম্ভের মহাযজ্ঞ।

এখানেই শেষ নয়। ভ্যাটিকান সিটি (০.৪৪ বর্গ কিমি), মোনাকো (২.০২ বর্গ কিমি), নাউরু (২০.৯৮ বর্গ কিমি) ও তুভালুর (২৬ বর্গ কিমি) মতো দেশের সামগ্রিক আয়তনের থেকে বড় কুম্ভমেলা প্রাঙ্গন। প্রশাসনিক ভবন, পুলিশ স্টেশন, দমকল, হাসপাতাল, অনুষ্ঠান প্রাঙ্গন—সবই রয়েছে এই মেলায়।   কলা কেনাবেচা করতে আসছেন? রথ দেখার ব্যবস্থা করছে সরকার।

অর্থাৎ এ বার প্রবাসীরা আগামী সপ্তাহে ভারতে আসছেন তাঁদের শিকড়ের সঙ্গে আর্থসামাজিক সংযোগ ঝালাতে। কিন্তু সঙ্গে কুম্ভস্নান ফ্রি।

মোদী সরকারের শেষ প্রবাসী ভারতীয় দিবস অনুষ্ঠানটি আক্ষরিক অর্থেই চুপচুপে হতে চলেছে বিশুদ্ধ হিন্দুত্বের জলে! হচ্ছে কনকনে ঠান্ডার প্রয়াগরাজে। সে ভাবেই তৈরি করা হয়েছে নীল নকশা।

বিভিন্ন দেশের সাংবাদিকরা থাকেন বলে বিদেশ মন্ত্রকের সম্মেলন বরাবর হয় ইংরেজিতে। কিন্তু আসন্ন প্রবাসী ভারতীয় দিবসের সাম্প্রতিক সাংবাদিক সম্মেলনটি হল বিশুদ্ধ হিন্দিতে। আর সেখানে বিনিয়োগ টানার গল্প কম, বারাণসী থেকে প্রয়াগরাজের মাহাত্ম্য ব্যাখ্যাই বেশি। কুম্ভ মেলা

বারাণসীতে প্রবাসী দিবস অনুষ্ঠান এবং সেখানে গঙ্গা উৎসব, প্রয়াগরাজে কু্ম্ভস্নান, মেলা দর্শন আর সব শেষে প্রজাতন্ত্র দিবসে যোগদান— এই ভাবে সাজানো হয়েছে গোটা প্যাকেজটি। বিদেশ প্রতিমন্ত্রী জেনারেল ভি কে সিংহ জানাচ্ছেন, ‘‘প্রত্যেক বার ৯ জানুয়ারি এই অনুষ্ঠান হয়। এ বার পিছোনো হল কেন, এই প্রশ্ন আসতে পারে। এ বারে কুম্ভমেলা রয়েছে। বহু প্রবাসী ভারতীয় এবং তাঁদের সংগঠন চাইছেন কুম্ভের সঙ্গে নিজেদের একাত্ম করতে। তাই ২১-২৩ জানুয়ারি প্রবাসীদের অনুষ্ঠান সেরে আমরা ২৪ তারিখ তাঁদের নিয়ে যাব প্রয়াগরাজে। ২৫শে দিল্লি ফিরিয়ে আনা হবে যাতে তাঁরা প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানেও অংশ নিতে পারেন।’’ হোটেলে নন, বারাণসীতে প্রবাসীরা থাকবেন হিন্দু সংস্কারী মানুষদের আতিথ্যে। প্রবাসীরা বারাণসীর আতিথ্য, সংস্কৃতি, সংস্কার কাছ থেকে দেখার সুযোগ পাবেন। সরকার সমস্ত খরচ বহন করবে।

প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ক্ষেত্র বারাণসীকে বাছা হয়েছে প্রবাসী দিবসের অনুষ্ঠানের জন্য, এ কথা জানানোর পরই বিদেশ প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন। ওই দিন গঙ্গা নিয়ে হেমা মালিনীর একটি অনুষ্ঠান হবে।’’

বিশেষ অতিথি হিসাবে আমন্ত্রণ করা হয়েছে মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রভিন্দ জগন্নাথকে। মোদীর সঙ্গে তিনি উদ্বোধন করবেন অনুষ্ঠানের। এ ছাড়া আমন্ত্রিতের তালিকায় রয়েছেন নরওয়ের একটি দক্ষিণপন্থী দলের হিন্দুত্ববাদী নেতা হিমাংশু গুলাটি, নিউজিল্যান্ডের বিরোধী দক্ষিণপন্থী দল ন্যাশনাল পার্টির নেতা কানওয়ালজিৎ সিংহ বক্সি। গীতায় হাত রেখে যিনি শপথ নিয়েছিলেন, মার্কিন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভের সদস্য সেই তুলসী গাবার্ডকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তবে তিনি আসবেন কি না, এখনও স্থির হয়নি।

বিদেশ মন্ত্রক জানাচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের নিমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ভি কে সিংহের কথায়, ‘‘উত্তরাখণ্ড এবং হরিয়ানা– এই দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এখনও পর্যন্ত আসবেন বলে কথা দিয়েছেন।’’

সাধারণ কুম্ভমেলা প্রতি চার বছর অন্তর আয়োজিত হয়। প্রতি ছয় বছর অন্তর হরিদ্বার ও প্রয়াগে (প্রয়াগরাজ) অর্ধকুম্ভ আয়োজিত হয়। প্রতি বারো বছর অন্তর প্রয়াগ, হরিদ্বার, উজ্জ্বয়িনী ও নাসিকে পূর্ণকুম্ভ আয়োজিত হয়। বারোটি পূর্ণকুম্ভ অর্থাৎ প্রতি ১৪৪ বছর অন্তর প্রয়াগে আয়োজিত হয় মহাকুম্ভ।

২০০৭ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাস নাগাদ ৪৫ দিন ব্যাপী সর্বশেষ অর্ধকুম্ভ আয়োজিত হয়েছে। সাত কোটিরও বেশি হিন্দু তীর্থযাত্রী প্রয়াগে এই মেলায় যোগ দেন। ১৫ জানুয়ারি মকর সংক্রান্তির দিন ৫০ লক্ষ মানুষ তীর্থস্নান করেন।

২০০১ সালে সর্বশেষ মহাকুম্ভে যোগ দিয়েছিলেন ছয় কোটি হিন্দু। এটিই ছিল ইতিহাসের বৃহত্তম জনসমাবেশ।

কুম্ভমেলা চারটি ভিন্ন ভিন্ন স্থানে আয়োজিত হয়। এই চারটি স্থান নির্বাচিত হয় বৃহস্পতি ও সূর্যের অবস্থান অনুসারে। বৃহস্পতি ও সূর্য সিংহ রাশিতে অবস্থান করলে নাসিকের ত্র্যম্বকেশ্বরে; সূর্য মেষ রাশিতে অবস্থান করলে হরিদ্বারে; বৃহস্পতি বৃষ রাশিতে এবং সূর্য কুম্ভ রাশিতে অবস্থান করলে প্রয়াগে; এবং সূর্য বৃশ্চিক রাশিতে অবস্থান করলে উজ্জয়িনীতে মেলা আয়োজিত হয়। সূর্য, চন্দ্র ও বৃহস্পতির রাশিগত অবস্থান অনুযায়ী মেলা আয়োজনের তিথি (তারিখ) নির্ধারিত হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

All rights reserved © -2019
IT & Technical Support: BiswaJit