২০শে জানুয়ারি, ২০১৯ ইং | ৭ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৩৭
সর্বশেষ খবর

চট্টগ্রামে বাড়ছে এইডস রোগীর সংখ্যা, সংক্রমণের আশঙ্কা তীব্র

রাজিব শর্মা (চট্টগ্রাম ব্যুরো): সারাদেশের মতো চট্টগ্রামেও এইচআইভি বা এইডস রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, দেশে গত দশ বছরে এই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ৩২ হাজার ৯৭ জন। অর্থাৎ গড়ে প্রতিবছর এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন ৩২১ জন। আলোচ্য সময়ে বছরে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪ হাজার ৩৭৯ জন। আর গত এক বছরে মারা গেছে ৯২৪ জন রোগী। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল সূত্র জানায়, বর্তমানে সেখানে ৩৫১ এইডস রোগী সেবা নিচ্ছেন। গত অক্টোবর পর্যন্ত চমেক হাসপাতালে ৪৫ জন এইডস রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৪ জন পুরুষ, ১৯ জন নারী ও দুইজন তৃতীয় লিঙ্গের। তাদের মধ্যে চারজন মারা গেছেন, যাদের দুইজন প্রবাসী। এর আগে গতবছর চমেকে ৩০ জন এইডস রোগী শনাক্ত করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে ১৯ জন পুরুষ, ১০ জন নারী ও একজন তৃতীয় লিঙ্গের। সে বছর আক্রান্ত তিনজন মারা যান এবং তারা সবাই প্রবাসী।

চিকিৎসকরা বলছেন, চট্টগ্রাম অঞ্চলে এইডস রোগীর সংখ্যা বাড়ার প্রধান কারণ প্রবাসীরা। সচেতনতার অভাবে অনিরাপদ যৌনমিলনের ফলে এই রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। তাদের মাধ্যমে স্ত্রী-সন্তানরাও আক্রান্ত হচ্ছে। চট্টগ্রাম বিভাগের সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ। কারণ সেখানে রোহিঙ্গা শিবিরগুলোয় বেশকিছু এইডস রোগী চিহ্নিত করা হয়েছে। রোহিঙ্গা শিবিরের বাইরেও চট্টগ্রামের বিভিন্ন জেলায় এই রোগের সংক্রমণ ঘটছে।

চমেক হাসপাতালের চর্ম ও যৌনরোগ বিভাগের সাবেক প্রধান ডা. সিরাজুল ইসলাম বলেন, অনেক কারণে এইডস আক্রান্তের হার বাড়ছে। ইতোমধ্যে সরকার অনেক ধরনের

উদ্যোগ নিয়েছে। সফলতা পেলেও সেটা পর্যাপ্ত নয়। যৌনকর্মী, মাদকসেবীর মতো ঝুঁকিপূর্ণ সব গোষ্ঠীর কাছে সেবা পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা নিতে হবে।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে আগে কয়েকটি বেসরকারি সংস্থা শুধু এইচআইভি আক্রান্তদের সেবা দিত। তবে ২০১৭ সাল থেকে সরকার এইচআইভি আক্রান্তদের বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ দেওয়া শুরু করে। বর্তমানে চট্টগ্রাম জেলার রোগীরা চমেক হাসপাতালে, কক্সবাজার জেলার রোগীরা কক্সবাজার সদর হাসপাতালে সরকারিভাবে সেবা নিচ্ছেন। এর আগ পর্যন্ত চমেক হাসপাতালে এইচআইভি আক্রান্তদের সেবা দিত ‘আশার আলো’ নামে একটি এনজিও। আশার আলোর বিভাগীয় সমন্বয়ক হাফিজ আহমেদ বলেন, চট্টগ্রামে এইডস আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। মৃত্যুর হারও বাড়ছে। এই কার্যক্রমের জন্য দরকার ব্যাপক সচেতনতা।

বর্তমানে চমেক হাসপাতালে এইচআইভি সেবা জোরদারকরণ প্রকল্পের আওতায় আক্রান্তদের জন্য সমন্বিত এইচআইভি সেবাকেন্দ্র (এআরটি) ও পিএমটিসিটি নামে দুটি সেবা চালু রয়েছে। বাংলাদেশ সরকার ও ইউনিসেফ যৌথভাবে দুটি প্রকল্প চালাচ্ছে। এ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক আলী হোসেন বলেন, ২০১৭ সাল থেকে এই হাসপাতালে এআরটি প্রকল্প চালু আছে। বর্তমানে ৩৪২ জন আক্রান্ত রোগী এই প্রকল্পের আওতায় বিনামূল্যে চিকিৎসা গ্রহণ করছেন। ইতোমধ্যে চমেক হাসপাতালে এইচআইভি আক্রান্ত ১৭ নারী সুস্থ সন্তান প্রসব করেছেন, যা আমাদের জন্য ইতিবাচক সংবাদ।

চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, অনেক রোহিঙ্গা আছেন এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত। এই রোহিঙ্গারা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে এই রোগের সংক্রমণ বাড়তে পারে। আর বাণিজ্যিক নগরী হওয়ায় এইচআইভি ভাইরাস বহনকারী অনেক বিদেশিও চট্টগ্রামে আসেন। তাদের সংস্পর্শে এসে স্থানীয়রাও এ রোগে আক্রান্ত হন। এ ছাড়া বিদেশে গিয়েও অনেকে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হন। সব মিলিয়ে একাধিক কারণে চট্টগ্রামে এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Pin It on Pinterest

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial