১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:৩৪
সর্বশেষ খবর

নির্বাচন ঘিরে সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন বাড়ার আশংকা

সময়ের বিবর্তনে ঘুরে ফিরে আবারও এসেছে জাতীয় নির্বাচন। বিএনপি চরম আপত্তির মধ্যেই তপশীল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। ইতিমধ্যে আওয়ামীলীগ মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে। বইছে নির্বাচনী আমেজ। হাট-বাজার, দোকান-পাট সর্বত্রই নির্বাচনী আলোচনা। সর্বত্র যেন একটা নতুনের বার্তা।
তবে এরই মাঝে টকশো আলোচনা টেবিলে নির্বাচনকে অভিশাপ হিসেবে দেখছে কেউ কেউ। ইতিপূর্বে জাতীয় নির্বাচন অনেকের পিতা-মাতা, ভাই-বোন, আত্মীয়-স্বজনকে নিয়ে গেছে। মা-বাবার সামনে মেয়ের ইজ্জত, পরিবারের সবার সামনে নারী সদস্যের ইজ্জতও নিয়েছে এই নির্বাচন। সেদিন খুব বেশি দূরে নয়, মাত্র দেড় যুগ আগে। ২০০১ এর ১ অক্টোবর নির্বাচন হয়েছে। কিন্তু নির্বাচনের পরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের সংখ্যালঘুদের ওপর যে অত্যাচার আর নির্যাতন হয়েছে, তার কালিমা শত বছরেও মন থেকে মুছবে না। আবার অনেকে বলছেন এমন নির্বাচন যেন আর না আসে। কিন্তু তারপরেও নির্বাচনতো হচ্ছে এবং হবে। দেশের সংখ্যালঘুরা আর নির্যাতনের শিকার হবে না এই নিশ্চয়তা কে দিবে?
২০০১ এবং ২০১৪’র নির্বাচন সংখ্যালঘুদের জন্য যেন অভিশাপ ছিল। ওই নির্বাচনের পর ক্ষমতাসীনদেও এবং প্রতিপক্ষের হিংসাত্মক তৎপরতায় দেশের সংখ্যালঘু, ভিন্নমতাবলম্বী ও শিক্ষকরা পর্যন্ত রেহাই পায়নি। প্রশাসনের অনৈতিক আনুকূল্য ও দলীয় ক্যাডার বাহিনীর মাধ্যমে এ সময় এলাকায় ব্যাপক লুটতরাজের ঘটনা ঘটে। এ সময় অনেকেই ক্ষমতাসীন এবং প্রতিপক্ষের বাহিনী দ্বারা বর্বরোচিত হামলা, নির্যাতনে আহত হয়। ক্ষমতাসীন এবং প্রতিপক্ষের লোলুপ দৃষ্টি থেকে রক্ষা পেতে এলাকা ছেড়ে যায় বহু সংখ্যালঘু পরিবার। বাসে অগ্নিসংযোগ, ধানের পালার আগুন, মন্দিরও পুড়িয়ে দেয়া, মুর্তি ভেঙ্গে ফেলা, সংখ্যালঘু নারীদের উপর লোলুপ দৃষ্টি, ফলে শেষাবধী নারীদের উপর নির্যাতন কি হয়নি এই সময়কালে।
১৯৭১ এ অসাম্প্রদায়ীকতার ভিত্তিতে বাংলাদেশ নামের এই দেশটির জন্ম। মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশের হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান সকলেই যুদ্ধ করে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম দেয়। কথা ছিল সকলে একভাবে বসবাস করবে এখানে। কিন্তু বাস্তব কতটা নিষ্ঠুর। ২০০১ এর নির্বাচনের পরে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে সেই সহমর্মিতা যে ছিল না তার হিসাব কি কেউ রেখেছে। রাখে নাই। রাখবে না। কারণ এটি ছিল দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতনের একটি করুন ইতিহাস। যা বাস্তবে সম্ভব হয়না, তাই হয়েছে ওই সময় ক্ষমতাসীনদের সহায়তায়।
২০০১ এর ১ অক্টোবর রাতেই নির্বাচনের ফলাফল আসা শুরু হয়ে যায়। রাত যতই বাড়ে ফলাফলে একটি জোট সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে থাকে, সাথে সাথে বাড়তে থাকে বিভিন্ন এলাকায় নির্যাতন, অত্যাচার। বিশেষ করে সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকায় ওই রাত থেকেই শুরু হয়ে যায় নির্যাতন। এমন নির্যাতন যেন কেউ আর কখনো দেখেনি। ২ অক্টোবর থেকে সংখ্যালঘু মেয়েদের ওপর পাশবিক নির্যাতন শুরু হয়। পিতার সামনে কন্যা, ভাইয়ের সামনে বোন পাশবিক নির্যাতিত হতে থাকে। বলার যেন কোন ভাষা নেই। এমনি একই ভাবে চলে এসেছে ২০০১ সালের ২ অক্টোবর থেকে ২০০৭ সালের ১০ জানুয়ারী পর্যন্ত।
এমন নির্যাতনের শিকার লাখো মানুষ আশায় বুক বেঁধেছিল ওই নির্যাতনের বিরুদ্ধে তাদের মতামত প্রকাশ করবে। কিন্তু বাস্তব বড়ই কঠিন। বিএনপি-জামাত জোট নির্বাচনের নামে তালবাহানা শুরু করে দিলে ১/১১ এর মত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। আর এই ১/১১ হয় বিএনপি-জামাত জোটের জন্য আশির্বাদ। দীর্ঘ ২ বছর জরুরী অবস্থার মধ্যে থেকে দেশবাসীর নাভিশ্বাস উঠে গেছে। তারা আর এই পরিস্থিতি চায় না। চায় একটি সুষ্ঠ ও সুন্দর নির্বাচন। তারা ভুলে গেছে ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত শাসনের নামে চলমান দুঃশাসন। ফলে বিএনপি-জামাত জোট আবারও নতুন করে ভোটের মাঠে নামে। নতুন করে দেশবাসীর কাছে ভোট প্রার্থনা করে। ভুলিয়ে দিতে চেয়েছিল তাদের দুঃশাসনের কথা। মনে করিয়ে দিয়েছে ১/১১ এর পরের সরকারের কর্মকান্ডের কথা। আসলে কি তা তারা পারছেন। কারণ যে মা তার সন্তান হারিয়েছে, যে স্ত্রী তার স্বামী হারিয়েছে কিংবা যে নারী তার পরম আত্মীয়দের সামনে নিজের ইজ্জতকে হারিয়েছে। দেখতে হয়েছে মায়ের সামনে মেয়ের ওপর পাশবিক নির্যাতন, স্বামীর সামনে স্ত্রী’র। কি করে সংখ্যালঘুরা সেই দিনগুলোর কথা ভুলবে। মনের ভেতরের ছাই চাপা দেয়া আগুন বিচ্ছুরিত হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে।
দৈনিক জনকণ্ঠ নির্বাচনের পূর্বেই ২০০১ সালের ১০ সেপ্টেম্বর এক প্রতিবেদনে বলেছিল “নির্বাচন এলেই বরিশালের বানারীপাড়ার ৪টি গ্রামের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় বিএনপি’র সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মি হয়ে পড়ে; তারা সহজে ভোট দিতে পারে না; ইতোমধ্যেই তান্ডব শুরু হয়ে গেছে; অনেকেই গ্রাম ছেড়েছেন।” কিংবা ওই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর পিরোজপুরে এক জনসভায় সাবেক প্রধান মন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্য সংবাদে ছাপা হয়। তিনি বলেছিলেন “আওয়ামীলীগ আবার ক্ষমতায় গেলে দেশে কেউ ধর্মকর্ম করতে পারবে না”। এমন এক উস্কানী মূলক বক্তব্য অথবা ২০০১  সেপ্টেম্বর দৈনিক সংবাদে প্রকাশিত “ভোটকেন্দ্রে না যেতে সাঈদী সমর্থকদের হুমকি ॥ পিরোজপুরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোটাররা ভীত সন্ত্রস্থ” অথবা ওই বছরের ২০ সেপ্টেম্বর দৈনিক সংবাদে প্রকাশিত “একদিকে সর্বহারাদের অত্যাচার, অন্যদিকে জামাতের হুমকি।
পিরোজপুর নাজিরপুরের সংখ্যালঘুদের ভোট দিতে না পারার আশংকা” কিংবা ২৩ সেপ্টেম্বর ২০০১ এ দৈনিক জনকন্ঠে প্রকাশিত “ ভোলার তিনটি উপজেলার সংখ্যালঘুরা আতংকে” অথবা ২৪ সেপ্টেম্বর দৈনিক জনকণ্ঠ “ভোলা ও ফেনীতে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ॥ সংখ্যালঘুদের রক্ষার চেস্টা করারয় দৌলতখানে যুবককে জবাই করে খুন” কিংবা ৩০ জুন ২০০১ এ দৈনিক জনকন্ঠে প্রকাশিত “দেশ ত্যাগ করার হুমকি ॥ সংখ্যালঘুদের আতংক কাটেনি ॥ বরিশাল, খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষিরা ও জয়পুরহাটে বিএনপি ক্যাডারদের হামলা” সংক্রান্ত রিপোর্টগুলো ছাপা হওয়ার পরেও তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার কিংবা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনই টনক নড়েনি। তারা এ বিষয়টিকে নিছক গুজব কিংবা বানোয়াট বলে সে সময় প্রচার করেছিলেন। এ পুরো রিপোর্টগুলোই ছিল প্রাক নির্বাচনী। যদি তখন এ বিষয়গুলোর ওপর গোয়েন্দা নজরদারী জোরদার করে ব্যাবস্থা নেয়া হতো তাহলে হয়ত বা নির্ব্চানোত্তর এত বেশি নির্যাতিত হতো না সংখ্যালঘুরা। এতো গেল প্রাক নির্বাচনী নির্যাতন।
এবারে নিচে ২০০১ এর নির্বাচনোত্তর কিছু এলাকার কিছু নির্যাতনের বর্ননা দেয়া হলো, যা ওই সময় বিভিন্ন পত্রিকার পাতায় উঠে আসলেও প্রশাসন কিংবা সরকার এ ব্যাপারে কোন ভ্রুক্ষেপই করেনি। দৈনিক জনকণ্ঠ ৪ অক্টোবর ২০০১ “নির্বাচনের পরপরই ভোলার বিভিন্ন স্থানে রাজনৈতিক সহিংসতা, আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর করছে ॥ সন্ত্রাসীদের প্রধান টার্গেটে পরিনত হয়েছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়।” ৫ অক্টোবর দৈনিক জনকন্ঠ ছেপেছে “সংখ্যালঘুদের দোকানপাট ভাংচুর ও লুটপাট হয়েছে। উজিরপুরে সংখ্যালঘুদের উপর বিএনপির নারকীয় তান্ডব চলছে ॥ মোট অঙ্কের চাঁদা দাবী তরুনীরা আতঙ্কে”। দৈনিক সংবাদ ২০০১ সালের ১৭ অক্টোবর ছেপেছে “নির্বাচনোত্তর সন্ত্রাসে স্বরূপকাঠীর সংখ্যালঘু ও আ’লীগ নেতা-কর্মীরা এলাকা ছাড়া”। ৬ অক্টোর দৈনিক প্রথম আলো ছেপেছে “রাজনৈতিক ক্যাডারদের হামলায় চট্টগ্রামে সংখ্যালঘুরা দিশেহারা ॥ গ্রাম ছেড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে শহরে পাড়ি দিচ্ছেন অনেকে”।
৭ অক্টোর ২০০১ দৈনিক সংবাদ ছেপেছে “নির্বাচনোত্তর সহিংসতায় পিরোজপুরে শতাধিক লোক আহত ॥ অনেকে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে”। ওই একই তারিখে দৈনিক যুগান্তর ছেপেছে “বাগেরহাটের গ্রামের হাজার হাজার মানুষ ঘরবাড়ি ছাড়া”। এদিন দৈনিক প্রথম আলো ছেপেছে “হামলা লুটপাট অগ্নিসংযোগ চলছেই ॥ কুমিল্লার গ্রামে গ্রামে সন্ত্রাস”। ৮ অক্টোবর ২০০১ দৈনিক জনকন্ঠ ছেপেছে “বিএনপির শুদ্ধি অভিযানে বরিশালে দুই উপজেলায় সংখ্যালঘুরা এলাকা ছেড়েছে ॥ মন্দির ভাঙচুর, বাড়ীতে আগুন লুটপাট ॥ তরুনীদের অনেকেই স্কুল কলেজে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছে”। ১০ অক্টোবর দৈনিক জনকণ্ঠ ছেপেছে “দু’টি জেলার ১৫ হাজার সংখ্যালঘু নারী-পুরুষ ঘরছাড়া।” ১৫ অক্টোবর ২০০১ দৈনিক জনকন্ঠ “সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চলছেই ॥ পিরোজপুরের গ্রামে মন্দির ভাঙচুর ॥ বরিশালে মা, মেয়ে, ননদ একত্রে লাঞ্ছিত”। ওই দিনই দৈনিক জনকন্ঠ লিখেছে “চেনা মানুষগুলোই তাদের সর্বনাশ করলো”। ২৪ অক্টোবর দৈনিক সংবাদ ছেপেছে “পিরোজপুরে নির্বাচনোত্তর পরিস্থিতি ॥
সংখ্যালঘু আর আ’লীগ নেতা কর্মীরাই টার্গেট ॥ হামলা অব্যাহত ॥ পূজা না করার সিদ্ধান্ত”। ওই দিনেই দৈনিক জনকণ্ঠ ছেপেছে “সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে সংখ্যালঘু গ্রামের গৃহবধূরা সিঁথিতে সিঁদুর দিচ্ছে না”। ২১ অক্টোবর ২০০১ দৈনিক জনকন্ঠ লিখেছে “রামশীলেই নয় মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামেও শত শত সংখ্যালঘু পরিবার আশ্রয় নিয়েছে ॥ ভবিষ্যত অনিশ্চিত”। এমন হাজারো রিপোর্ট ছাপা হয়েছে বিভিন্ন পত্রিকায়, কিংবা প্রচার করা হয়েছে বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে। কিন্তু এর পরেও কি সরকার এ ব্যাপারে আদৌ কোন ব্যাবস্থা নিয়েছে।না নেয়নি। উপরন্তু সংখ্যালঘুরা এই নির্যাতনের প্রতিবাদে সারা দেশে অনাড়ম্বরে ঘট পূজার মাধ্যমে পূজা করার সিদ্ধান্ত নিলে পূনরায় তাদের ওপর শুরু হয় সরকারী সন্ত্রাস। নির্বাচনের পূর্ব থেকে হয়ে আসছিল দলীয় কর্মী সমর্থকদের হামলা, সন্ত্রাস আর এবার শুরু হয়ে গেল ক্ষমতায় থেকে সরকারের প্রশাসনকে ব্যবহার করে সন্ত্রাস। পূজা করতে হবে নাহলে বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করা হবে।
এ জাতীয় প্রশাসনিক হুমকিতে আবারো নিশ্চুপ হয়ে যায় সংখ্যালঘুরা। তারা বিএনপি-জামাতের চাপে কোথাও কোথাও পূজা করতে বাধ্য হলো। ৩ নভেম্বর ২০০১ দৈনিক সংবাদ ছেপেছে “মাকে সন্তুষ্ট করতে নয়, বিএনপিকে সন্তুষ্ট করতেই এই পূজা”। পিরোজপুরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপে পূজারীরা তাদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটায় ঠিক এমনিভাবে। পূজা মন্ডপে ব্যানারও লিখে রেখেছিল ঠিক এভাবে। এমনি পরিস্থিতির শিকার হয়ে দেশের সংখ্যালঘুরা আবারো এদেশ আমার এই চিন্তায় বাড়ি ঘর তৈরি করেছে, আশায় বুক বেঁধেছে। ভুলে গেছে সব পুরনো হিসাব নিকাশ। নতুন করে বাঁচারা স্বপ্ন দেখতে যখনই শুরু করে ঠিক তখনই পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর কায়দায় নাসিরনগর রংপুরে হামলার ঘটনা ঘটে।আবারও  এসেছে নির্বাচন, নির্যাতন, এই আশংকায় আতঙ্কিত হয়ে পড়ে সংখ্যালঘুরা। নির্বাচনে উপরোক্ত রিপোর্টগুলো আর লিখতে হবে না এই নিশ্চয়তা কে দিবে? নির্বাচন এলেই দেশের সংখ্যালঘুরা হয়ে পড়ে বলির পাঠা। যেখানে যে ধরনের সমস্যা হোক তার শিকার হয়ে যায় সংখ্যালঘুরা। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনের পরেও এর ব্যতিক্রম হবে না, এই নিশ্চয়তা সরকারকেই দিতে হবে, বলেছিল দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়।
আবারও ২০১৪ সালে এসেছে তেমনি নির্বাচন। এবারের নির্বাচনের বাস্তবতা ছিল ভিন্ন। ৭১ এর পরাজিত যুদ্ধাপরাধের মামলায় অভিযুক্ত জামায়াতকে সাথে নিয়ে ১৮ দলের নামে নাম সর্বস্ব কয়েকটি ইসলামপন্থী দলকে নিয়ে বিএনপি নির্বাচন বয়কট করেছে। কিন্তু তাতে কি? আর সেই নির্যাতনের আশঙ্কাও আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে সংখ্যালঘুদের জীবনে। ফলে যা হবার তাই হ’ল। ২০০১ এর নির্বাচনে যারা নির্যাতিত হয়েছে তারা পূনরায় নির্যাতনের আশংকায় ছিল এবং নির্বাচনের পরে কোন কোন জায়গায় নির্যাতিতও হয়েছে। ঘুরে ফিরে আবার আসে ২০১৪’র নির্বাচন। ২০১৩ সালের শেষের দিক থেকেই শুরু হয়ে যায় সারা দেশের সংখ্যালঘুদের উপর নির্মম নির্যাতন। বরিশালের আগৈলঝাড়া, পাবনার সাথিয়া, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ, দিনাজপুরের বিরল, চিরিবন্দও সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আবরো সংখ্যালঘুদের উপর নেমে আসে খড়গ। সেই খড়গ থেকে বাঁচার জন্য অনেকেই দেশ ছেড়ে চলে গেছেন, আবার কেউ কেউ এলাকা ত্যাগ করে অন্যত্র গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে।
এমনকি যুদ্ধাপরাধের দায়ে দন্ডিত আসামি কাদের মোল্লার ফাঁসির রাত্রেও ভয়াবহ হামলার স্বীকার হয়।
এর পরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর, দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জ, গাইবান্ধার আদিবাসী পল্লী কোথাও বাদ যায়নি।
দেশে যখন নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়, ঠিক তখনই ১/১১ এর জন্ম। যেখানে থাকবে না হানাহানি, বিশৃঙ্খলা। এই আশাবাদ নিয়েই ১/১১ এর জন্ম হলে দেশের সকল শান্তিপ্রিয় মানুষ সমর্থন জানাতে শুরু করেন। তত্ত্ববধায়ক সরকারও একে একে ভাল কাজগুলো করতে শুরু করে দেয়। দূর্নীতির মূলোৎপাদনে যে ভূমিকা রাখে তা সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে। কিন্তু বাঁধ সাধে নির্বাচন। নির্বাচনে সকল দলকে অংশগ্রহণ করাতে বিভিন্ন বিষয়ে সরকার নমনীয় হয়ে যান। দূর্নীতির সাথে জড়িতরা একে একে ছাড়া পেয়ে যায়। আবারও নির্বাচনে তারা অংশ নেয়ার মত প্রকাশ করে।
অতি সম্প্রতি দেশের সংখ্যালঘুদের মানবাধিকার সুরক্ষা বিষয়ক সংগঠন শারির এক গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বর্তমান সরকারের মন্ত্রী রাশেদ খাঁন মেনন তিনি সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান, এই গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন “সামনের নির্বাচনে আবারো সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার নির্যাতনের কালো থাবা নেমে আসবে।” এই আতঙ্ক এখনই শুরু হয়ে গেছে। এই আশংকা থেকে দেশের সংখ্যালঘুদের আশ্বস্ত করার দায়িত্ব বর্তমান সরকারের।
উত্তম কুমার রায় ও রঞ্জন বক্‌সী নিপু
শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.