১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:০৭
ভাই ফোঁটা

ভাই ফোঁটা কেন দেওয়া হয়

ডাঃ পল্লবী কাসারলে, পুনে, ভারতঃ ভাইফোঁটা হিন্দুদের একটি বিশেষ উৎসব। এই উৎসবের শাস্ত্রসন্মত নাম ভ্রাতৃদ্বিতীয়া। কার্তিক মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে অর্থাৎ দীপাবলী উৎসবের দুই দিন পরে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

কার্তিক মাসের শুক্লা দ্বিতীয়ার দিনে হিন্দু বাঙালী বোনেরা উপবাস পালন করেন। ঘরে ঘরে বোনেরা ভাইদের জন্য নানা রকম নাড়ু,মোয়া, বরফি,মোহনভোগ, ক্ষীর ও মিষ্টান্ন তৈরী করেন। এ ছাড়া দোকান থেকে কিনে আনা নানা স্বাদের নানা পদের মিষ্টি তো আছেই। ঐ দিন বোনেরা সকাল সকাল স্নান সেরে ভাইদের কপালে ফোঁটা দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। সুন্দর আসন পেতে ভাইদের বসতে দেওয়া হয়। সন্মুখে একটি বরণ ডালায় থাকে ধান,দুর্বা,চন্দন বাটা,শিশিরের জল,ঘি,জ্বলন্ত প্রদীপ ও হাত পাখা।

বাড়ির অন্যান্য মহিলারা ঘন ঘন শাঁখ বাজান ও হুলু ধ্বনি দেন। বোনেরা প্রথমে ভাইদের পাখা দিয়ে বাতাস করেন,তারপরে জ্বলন্ত প্রদীপ ভাইয়ের মুখের সামনে কয়েক বার ঘুরিয়ে ভাইকে বরণ করেন এবং মাথায় ধান দুর্বা ছড়িয়ে আশীর্বাদ বা মঙ্গল কামনা করেন। এরপরে ক্রমান্বয়ে ভাইদের কপালে বাম হাতের কড়ে আঙ্গুল দিয়ে প্রথমে শিশির জলের ফোঁটা,তারপরে ঘি-এর ফোঁটা এবং শেষে চন্দনের ফোঁটা দেন। ফোঁটা দেওয়ার সময় বোনেরা ভাইদের দীর্ঘায়ু কামনা করে একটি ছড়া কেটে বলেন –

“ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা,

যমের দুয়ারে পড়লো কাঁটা।

যমুনা দেয় যমকে ফোঁটা,

আমি দিলাম আমার ভাইকে ফোঁটা।

এরপরে বোনেরা ভাই বয়সে বড় হলে তাকে প্রণাম করেন ও ভাই বয়সে ছোট হলে দিদিকে প্রণাম করেন। এইসময় ভাই ও বোনেরা পরস্পর উপহার বিনিময় ও করে থাকেন। এরপরে ভাই দের সামনে পানীয় জল ও নানা পদের ঘরে প্রস্তুত ও দোকান থেকে কিনে আনা মিষ্টি থালায় সাজিয়ে খেতে দেওয়া হয়। এখানেই শেষ নয়,ঐ দিনই মধ্যাহ্নে বোনেরা পুনরায় ভাইদের মাছ মাংস ও নানা ব্যঞ্জন সহকারে মধ্যাহ্ন ভোজে অপ্যায়িত করেন। যে সব মেয়েদের আপন ভাই নেই,তারা জ্যেঠতুতো,খুড়তুতো,পিসতুতো,মাসতুতো,ও মামাতো ভাই, এমন কি সম্পর্কিত ভাইদের ও ভাইফোঁটা দিয়ে থাকেন।

ভ্রাতৃদ্বিতীয়া হিন্দু বাঙালীদের একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠান বা লোকোৎসব হলেও,এই উৎসব পালনের পিছনে নানা কিংবদন্তী আছে।কারও কারও মতে,শ্রী কৃষ্ণ ভয়ঙ্কর দৈত্য নরকাসুর কে হত্যা করে ক্ষুধার্ত ও ক্লান্ত শরীরে বোন সুভদ্রার গৃহে আসেন। সুভদ্রা তখন বিজয়ী শ্রীকৃষ্ণের কপালে বিজয় তিলক হিসাবে একটি ফোঁটা দেন এবং শ্রীকৃষ্ণকে শীতল পানীয় ও নানাবিধ মিষ্টান্ন দিয়ে অপ্যায়িত করেন। সেই থেকেই ভাইফোঁটা উৎসবের প্রচলন হয়।

অপর সর্বাধিক প্রচলিত কাহিনীটি হলো:

সূর্য্যদেব ও ঊষার যমজ সন্তান হলোঃ যম ও তার বোন যমুনা বা যমী। কোন এক কার্তিক মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে যমুনা দেবী ভাই যমের মঙ্গল কামনায় গভীর ধ্যান মগ্ন হয়ে পূজা করেন এবং তার কপালে ফোঁটা দিয়ে দেন। সেই পূজার ফল স্বরূপ যমদেব অমরত্ব লাভ করেন। তাই এই তিথি কে যমদ্বিতীয়া ও বলা হয়। যমদেব মৃত্যুর দেবতা,তাই কোন ভাইকে যেন যমরাজ অকালে না নিয়ে যেতে পারেন,সেই জন্য যমের দুয়ারে কাল্পনিক কাঁটা স্থাপন করে বাঙালী বোনেরা যমের আসার পথ রুদ্ধ করেন ও ভাইয়ের কপালে ফোঁটা দিয়ে যমুনার মতই ভাইয়ের দীর্ঘায়ু প্রার্থনা করেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.