১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:১২
সর্বশেষ খবর
বর্ণাঢ্য এক রাজনৈতিক জীবনের ইতি

বর্ণাঢ্য এক রাজনৈতিক জীবনের ইতি

বিশেষ প্রতিবেদকঃ তরিকুল ইসলাম রবিবার বিকেলে মারা গেছেন। বাম ধারার ছাত্র সংগঠনের মাধ্যমে রাজনীতিতে আসা বরেণ্য এই রাজনীতিক পরে কমিউনিস্ট পার্টি, ন্যাপ ঘুরে বিএনপির নীতিনির্ধারণী কমিটি পর্যন্ত পৌঁছান। তরিকুল ইসলাম ১৯৪৬ সালের ১৬ নভেম্বর জন্ম নেন যশোর শহরে। তার বাবা আলহাজ আবদুল আজিজ ছিলেন যশোর শহরের একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। মা নূরজাহান বেগম ছিলেন গৃহিণী। পারিবারিক পরিবেশে বাল্যশিক্ষার মাধ্যমে পড়ালেখায় হাতেখড়ি হয় তরিকুলের। ১৯৫৩ সালে তিনি তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন যশোর জিলা স্কুলে। ১৯৬১ সালে জিলা স্কুল থেকে প্রবেশিকা (এসএসসি), ১৯৬৩ সালে এমএম কলেজ থেকে আইএ, ১৯৬৮ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অর্থনীতিতে বিএ (অনার্স) ও ১৯৬৯ সালে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন তরিকুল ইসলাম। তার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। বিএনপির প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রাজনৈতিক অঙ্গন আলোকিত করে ছিলেন তরিকুল ইসলাম। রাজনীতি করতে গিয়ে তাকে অনেকবার জেলে যেতে হয়েছে; সহ্য করতে হয়েছে নির্যাতন।

১৯৬২ সালে তরিকুল ইসলাম যশোর এমএম কলেজের শিক্ষার্থী থাকাবস্থায় দেখতে পান, শহরের শহীদ মিনারটি ভাঙাচোরা। তরিকুল ইসলাম, তার বন্ধু ও সহপাঠীরা একটি শহীদ মিনার তৈরি করেছিলেন। সেই ‘অপরাধে’ তৎকালীন পাকিস্তান সামরিক সরকারের রোষানলে পড়ে গ্রেফতার হন তরিকুল। ১৯৬৩-৬৪ শিক্ষাবর্ষে ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থী হিসেবে যশোর এমএম কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস নির্বাচিত হন তিনি। বৃহত্তর যশোর জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে ‘সর্বক্ষেত্রে রাষ্ট্রভাষা প্রতিষ্ঠার আন্দোলন’-এর যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন।

১৯৬৬ সালে তৎকালীন এমএনএ মুসলিম লীগের আহম্মদ আলী সর্দারের রুজু করা মামলায় কিছুদিন কারাভোগ করেন। ১৯৬৮ সালে আইয়ুববিরোধী আন্দোলনের জন্য রাজবন্দি হিসেবে যশোর ও রাজশাহীতে কারাভোগ করেন নয় মাস। ১৯৬৯ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গণআন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ায় গ্রেফতার হন তিনি। এরপর দীর্ঘদিন ধরে তিনি রাজশাহী কারাগারে ছিলেন।

ছাত্রাবস্থায় তরিকুল ইসলাম কমিউনিস্ট পার্টির রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। ১৯৭০ সালে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টিতে যোগ দেন। মুক্তিযুদ্ধকালে সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। ভাসানী আহূত ফারাক্কা লং মার্চেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল তার। পাকিস্তানি সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে কথা বলে যেমন কারাভোগ করেছেন, দেশ স্বাধীনের পর শেখ মুজিবুর রহমানের সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারী হিসেবেও তাকে যেতে হয়েছে জেলে।

ভাসানী ন্যাপ থেকে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল (জাগদল) হয়ে বিএনপির রাজনীতিতে যুক্ত হন বরেণ্য এ রাজনীতিক। জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বিএনপির ৭৬ সদস্যবিশিষ্ট প্রথম আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য ছিলেন তরিকুল ইসলাম। সেই সঙ্গে বিএনপির যশোর জেলা আহ্বায়কের দায়িত্বও পান। পরে পর্যায়ক্রমে তাকে দলের যুগ্ম মহাসচিব, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব, ভাইস চেয়ারম্যান ও ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত দলের পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিলে স্থায়ী কমিটির সদস্য করা হয়।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তরিকুল ইসলামকে মাড়িয়ে আসতে হয়েছে কাঁটা বিছানো পথ। রাজনীতিতে দৃঢ়চেতা এ নেতা সামরিক শাসক জেনারেল এরশাদের আমলে গ্রেফতারের পর তিন মাস অজ্ঞাত স্থানে আটক ছিলেন। পরে তাকে এক ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। শিকার হন নিষ্ঠুর নির্যাতনের। তিনি রাজনৈতিক জীবনে মিথ্যা মামলা ও কারাভোগের শিকার হয়েছেন বহুবার। যশোরে উদীচী হত্যা মামলা, দৈনিক রানার সম্পাদক আর এম সাইফুল আলম মুকুল হত্যাসহ নানা মামলায় আসামির তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে তার নাম। ওয়ান ইলেভেনের সময় অন্য সিনিয়র রাজনীতিকের মতো গ্রেফতার হন তরিকুল ইসলাম। কারাভোগ করেন দীর্ঘ দেড় বছর। আওয়ামী লীগ তথা মহাজোট সরকারের আমলেও নতুন নতুন মামলার আসামি করা হয় বয়োবৃদ্ধ এই নেতাকে। গ্রেফতার ও কারাভোগও করতে হয়েছে তাকে।

১৯৭৩ সালে যশোর পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার মাধ্যমে তরিকুল ইসলাম নাম লেখান জনপ্রতিনিধির খাতায়। পরে ১৯৭৮ সালে যশোর পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৭৯ সালের জাতীয় নির্বাচনে যশোর সদর আসন থেকে এমপি নির্বাচিত ও ১৯৮১ সালে সড়ক ও রেলপথ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। জাতীয় রাজনীতিতে প্রভাবশালী চরিত্র হলেও ভোটের রাজনীতিতে তার রয়েছে মিশ্র অভিজ্ঞতা। ১৯৯১ সালের পঞ্চম সংসদ নির্বাচনে অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন তিনি। তবে বিএনপি সরকার গঠন করলে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান টেকনোক্র্যাট কোটায়। পরের বছর হন পূর্ণমন্ত্রী।

১৯৯৪ সালের উপ-নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর দায়িত্ব পান ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের পূর্ণমন্ত্রীর। ১৯৯৬ সালের সপ্তম জাতীয় নির্বাচনে প্রথমবারের মতো এককালের দুই বন্ধুর মুখোমুখি হন তিনি। বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যাওয়া আলী রেজা রাজু ও জাতীয় পার্টির খালেদুর রহমান টিটোর সঙ্গে ভোটযুদ্ধে মুখোমুখি হন তিনি। তরিকুল-টিটোকে হারিয়ে সংসদে যান রাজু। ২০০১ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে আসা টিটো যশোর সদর আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশা করলেও দলের দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতা তরিকুলকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে মনোনয়ন দেননি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এদফায় বাল্যবন্ধু আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলী রেজা রাজুকে বিপুল ভোটে হারিয়ে এমপি নির্বাচিত হন তরিকুল ইসলাম। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে পর্যায়ক্রমে খাদ্য, তথ্য এবং শেষে বন ও পরিবেশমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তরিকুল ইসলাম।

ওয়ান ইলেভেন পরবর্তী ২০০৮ সালের নবম জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টি, বিএনপি ঘুরে আওয়ামী লীগে ঠাঁই নেওয়া এককালের বন্ধু খালেদুর রহমান টিটোর কাছে পরাজিত হন তিনি। বিএনপি ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন বর্জন করায় প্রার্থী হননি তিনি।বিএনপির প্রতিটি শাসনামলে যশোরসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন তরিকুল ইসলাম। এজন্য তিনি ‘যশোর উন্নয়নের কারিগর’ হিসেবেও খ্যাতি পান। তারই প্রচেষ্টায় যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর মেডিকেল কলেজ, যশোর কারিগরি প্রশিক্ষণ মহাবিদ্যালয়, যশোর জেনারেল হাসপাতালে করোনারি কেয়ার ইউনিট, বিভাগীয় কাস্টমস অফিস, বেনাপোল স্থলবন্দর, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, যশোর মডেল পৌরসভা, আঞ্চলিক পাঠাগার, টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারসহ অসংখ্য প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও উন্নয়ন হয়েছে।

যশোরের শিক্ষা, সামাজিক, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সভাপতি ও উপদেষ্টা হিসেবে দশকের পর দশক দায়িত্ব পালন করেছেন এই জননেতা। রাজনীতির পাশাপাশি যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক লোকসমাজ পত্রিকার প্রকাশক ছিলেন তরিকুল ইসলাম।
পারিবারিক জীবনে তরিকুল দুই ছেলের বাবা। তার স্ত্রী অধ্যাপক নার্গিস বেগম যশোর সরকারি সিটি কলেজের উপাধ্যক্ষ হিসেবে অবসরে যান ২০০৬ সালে। ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি নার্গিস ইসলাম চারদশক ধরে বিএনপির রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন। বর্তমানে তিনি যশোর জেলা বিএনপির সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়কের দায়িত্বে আছেন।

তরিকুল-নার্গিস দম্পতির বড় ছেলে শান্তুনু ইসলাম সুমিত ব্যবসার পাশাপাশি দৈনিক লোকসমাজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন। ছোট ছেলে অনিন্দ্য ইসলাম অমিত রাজনীতি করেন। ছাত্রজীবনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সঙ্গে যুক্ত অমিত বর্তমানে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। আর তরিকুল ইসলামের ভাতিজা মারুফুল ইসলাম যশোর নগর বিএনপির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত টার্মে তিনি যশোর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.