১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:৪৭
বর্ষীয়ান রাজনীতিক তরিকুল ইসলামের জীবনাবসান

বর্ষীয়ান রাজনীতিক তরিকুল ইসলামের জীবনাবসান

বিশেষ প্রতিবেদকঃ বর্ষীয়ান রাজনীতিক তরিকুল ইসলাম (৭২) আর নেই। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার বিকেল পাঁচটার কিছু সময় পর তিনি মারা যান। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় বেশ কিছুদিন আগে তাকে অ্যাপোলোতে ভর্তি করা হয়েছিল।

তরিকুল ইসলামের ভাইপো ও যশোর পৌরসভার সাবেক মেয়র মারুফুল ইসলাম বিকেলে অ্যাপোলো হাসপাতালেই ছিলেন। সেখান থেকে বিকেল পাঁচটা ২০ মিনিটের দিকে তিনি সুবর্ণভূমিকে বলেন, ‘এখন থেকে মিনিট দশেক আগে চাচা মারা গেছেন। মৃত্যুর সময় আমি তার কাছেই ছিলাম।’ যশোর নগর বিএনপি সভাপতি মারুফ জানান, ডায়ালিসিস দেওয়ার সময় তরিকুল ইসলামের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। দুপুরের দিকে ডাক্তাররা নিশ্চিত করেন, ডায়ালিসিস দেওয়ার সময় তার ‘হার্ট অ্যারেস্ট’ হয়েছে। বেলা দেড়টার দিকে তাকে লাইফ সাপোর্ট দেন ডাক্তাররা। আর বিকেল পাঁচটার কিছু সময় পর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

‘চাচার শরীরের সঙ্গে সংযুক্ত যন্ত্রপাতি খুলছেন ডাক্তাররা। এরপর মরদেহ বুঝিয়ে দেবে,’ বলছিলেন মারুফুল ইসলাম। অ্যাপোলো হাসপাতালে ছিলেন তরিকুল ইসলামের স্ত্রী অধ্যাপক নার্গিস বেগম, দুই ছেলে শান্তনু ইসলাম সুমিত ও অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, তাদের স্ত্রীসহ নিকটাত্মীয়রা। ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বাঘারপাড়া উপজেলা সভাপতি টিএস আইয়ুব, যশোর জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন প্রমুখ।
বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রবীণ জননেতা তরিকুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে নানাবিধ রোগের সঙ্গে লড়ছিলেন। দেশ-বিদেশের নামী হাসপাতালগুলোতে তাকে চিকিৎসা নিতে হয়েছে।

গত ১২ অক্টোবর তিনি ঢাকার বাসায় থাকাবস্থায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেইদিনই তাকে ভর্তি করা হয় পুরান ঢাকার গে-ারিয়ার আসগর আলী হাসপাতালে। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পরদিন ১৩ অক্টোবর তাকে অ্যাপোলো হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। অ্যাপোলোতে ডাক্তাররা তাকে নীবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে চিকিৎসা দিচ্ছিলেন। ওই সময়ই ‘তরিকুল ইসলামের মৃত্যু হয়েছে’ বলে গুজব রটে যায়। যদিও দুই-তিনদিনের মধ্যে ডাক্তাররা আশার বাণী শুনিয়েছিলেন। বলেছিলেন, বেশ ভালো আছেন এই বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ। একপর্যায়ে তাকে আইসিইউ থেকে স্থানান্তরও করা হয়েছিল।

কিন্তু ফুসফুসে ইনফেকশন, কিডনি জটিলতাসহ নানা রোগে আক্রান্ত তরিকুল ইসলাম এর পর আর হাসপাতাল ছাড়তে পারেননি। অবশেষে বিকেলে তিনি ভক্ত-অনুসারীদের কাঁদিয়ে চিরবিদায় নিলেন।তরিকুল ইসলাম অ্যাপোলোতে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় তার রাজনৈতিক সহকর্মীসহ বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের মধ্যে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়ে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, গয়েশ্বরচন্দ্র রায়, কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু টিএস আইয়ুব, আবুল হোসেন আজাদসহ যশোর থেকে যাওয়া নেতাকর্মীরা নিয়মিত ভিড় করেন অ্যাপোলো হাসপাতালে। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা থাকায় পরিবারের সদস্যরা আর হাতেগোনা কিছু ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি ছাড়া তার সঙ্গে কেউ দেখা করতে পারেননি।

বর্ষীয়ান নেতা তরিকুল ইসলামের মরদেহ রাজধানীর শান্তিনগরের বাসায় নেওয়া হয়। রাজধানীতে জানাজা শেষে মরদেহ আজ সোমবার যশোর পৌঁছাবে। ওইদিন বাদ আছর যশোর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে নামাজে জানাজা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।অ্যাপোলো হাসপাতালে রয়েছেন তরিকুল ইসলামের স্নেহধন্য রাজনীতিক বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলা সভাপতি প্রকৌশলী টিএস আইয়ুব। তিনি সন্ধ্যায় জানান, মরদেহ এখন ঢাকার বাসার উদ্দেশে নেওয়া হচ্ছে। এখনো সিনিয়র নেতারা এসে পৌঁছাননি। তারা এসে মরহুমের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে বিস্তারিত ঠিক করবেন।

তবে টিএস আইয়ুব ধারণা দেন, সোমবার সকালের দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও সংসদ প্লাজায় নামাজে জানাজা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এরপর মরদেহ নেওয়া হবে তার জন্মস্থান যশোরে। যশোর সদরের সাবেক এই সংসদ সদস্যের নামাজে জানাজা যশোর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে হবে। সম্ভাব্য সময় বাদ আছর।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.