১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩০
সর্বশেষ খবর

শিবিরের চট্টগ্রাম কার্যালয়ে বোমা বিস্ফোরণ সাজানো নাটক : অভিযোগে জামায়াত

রাজিব শর্মা(চট্টগ্রাম ব্যুরো):বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান বলেছেন, ‘চট্টগ্রাম মহানগরী শাখা ইসলামী ছাত্রশিবিরের কার্যালয়ে ব্লক রেইড দিয়ে পরিকল্পিতভাবে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পুলিশের তল্লাশি চালানো এবং সেখান থেকে ছয়টি তাজা ককটেল, গান পাউডার,প্রেট্রোল ও লাঠি জব্দ করার ঘটনা পরিকল্পিতভাবে সাজানো নাটক ছাড়া আর কিছুই নয়। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাচ্ছি।

গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, দেশে যখন রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে সরকার এক দিকে সংলাপ করছে, অন্য দিকে একতরফা পাতানো প্রহসনের নির্বাচনের ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ঠিক সেই সময়ে চট্টগ্রাম মহানগরী শাখা ইসলামী ছাত্রশিবিরের অফিসে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা যে পুলিশের পূর্বপরিকল্পিত ষড়যন্ত্র, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। দেশের ছাত্র সমাজের প্রাণপ্রিয় সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের ভাযমর্যাদা ক্ষুণœ করার হীন উদ্দেশ্যেই সরকার পুলিশ দিয়ে নাটক সাজিয়ে ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সাজানো মামলা করেছে।
পুলিশের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে আমি তাদের জিজ্ঞাসা করতে চাই যে, পুলিশ যখন এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে লোকজনকে সরিয়ে দিয়ে চার দিকে ব্লক রেইড দিচ্ছিল, তখন ইসলামী ছাত্রশিবিরের তালাবদ্ধ অফিসে বোমা আসল কিভাবে? কে কিভাবে তালাবদ্ধ অফিসে ঢুকে বোমা বিস্ফোরণ ঘটাল? আবার তারা নিরাপদে পালালই বা কী করে? তিনি বলেন, পুলিশ কোনো দলীয় বাহিনী নয়। পুলিশ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। কোনো দলের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করা পুলিশের কাজ নয়। ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা সাজানো মামলা প্রত্যাহার এবং ইসলামী ছাত্রশিবিরের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণা চালানো থেকে বিরত থাকার জন্য তিনি পুলিশ কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

ব্যারিস্টার মইনুলের ওপর হামলার নিন্দা :

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও সুপ্রিম কোর্টের প্রখ্যাত আইনজীবী ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের ওপর অসভ্য এবং বর্বর হামলার নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেন, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে গ্রেফতার অবস্থায় পুলিশ রংপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করার সময় আদালতের সামনেই তার ওপর আওয়ামী লীগ এবং তাদের অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের হামলা, উপর্যুপরি চড়-থাপ্পড়, জুতা ও ডিম নিক্ষেপ এবং ঝাড়– মিছিলের মতো অসভ্য ও বর্বর কর্মকাণ্ড কোনো সভ্য সমাজে অকল্পনীয়। আমি এ ঘটনার নিন্দা জানাচ্ছি।

ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন সরকারের ফ্যাসিবাদী কর্মকাণ্ড ও পরিকল্পিতভাবে একতরফা প্রহসনের পাতানো নির্বাচনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার কারণেই সরকার তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে সরকার তাকে রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি সরকারের অশুভ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় অবিলম্বে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান এবং সাজানো মামলা প্রত্যাহার করে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে নিঃশর্ত মুক্তি দানের জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। বিজ্ঞপ্তি।

গায়েবি মামলা দিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে পুলিশ : চট্টগ্রাম জামায়াত

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, ইসলামী ছাত্রশিবির চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের চন্দনপুরাস্থ কার্যালয়ে পুলিশি হামলা এবং ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ তুলে এর তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরের আমির মুহাম্মদ শাহাজাহান ও সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম। বিবৃতিতে তারা বলেন, পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করার চেয়ে সরকারকে মসনদে টিকিয়ে রাখার কাজে ব্যস্ত। এ জন্য তারা জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, মিথ্যা মামলা দায়ের ও জুলুম নির্যাতনের মাধ্যমে হয়রানি করছে। পুলিশ নগর শিবির কার্যালয়ে বোমা বিস্ফোরণের নাটক সাজিয়ে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দিয়ে চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে।

চট্টগ্রামের স্থানীয় ও ঢাকার জাতীয় পত্রিকায় ‘বোমা বিস্ফোরণ’ শীর্ষক প্রকাশিত এবং বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচারিত সংবাদের প্রতিবাদ ও শিবির কার্যালয় প্রসঙ্গে যুক্ত বিবৃতিতে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে চন্দনপুরার শিবির কার্যালয়টি বন্ধ। বর্তমানে তা বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম কফিল উদ্দিন কিন্ডারগার্টেনকে ভাড়া দেয়া হয়েছে। শিবির নেতাকর্মীরা সেখানে আসেও না। হঠাৎ করে পুলিশ এসে চারতলা বিল্ডিংয়ের ছাদের ওপর বোমা ফাটিয়ে, নাটক সাজিয়ে বোমা উদ্ধারের নাটক করে। নেতৃবৃন্দ বলেন, শিবির বোমাবাজিতে বিশ্বাস করে না। ইসলামী ছাত্রশিবির একটি আদর্শবাদী ছাত্রসংগঠন। মেধাবী ও চরিত্রবান ছাত্রদের ঠিকানা ছাত্রশিবির। অথচ পুলিশ সরকারি দলের পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের মাধ্যমে শিবিরকে সাধারণ মানুষের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। কিন্তু জনগণ তাদের এমন নাটক আর বিশ্বাস করে না।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচন বানচাল করার জন্য জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এসব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বন্ধের দাবি জানান।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.