১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩০
সর্বশেষ খবর
বার্ন ইনস্টিটিউট উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ন ইনস্টিটিউট উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

রাজধানীর চাঁনখারপুলে বিশ্বের সরচেয়ে বড় ৫শ শয্যার ‘শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বুধবার সকালে ১৮তলাবিশিষ্ট এ ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করা হয়।

জানা গেছে, ১৮তলা বিশিষ্ট এই ইনস্টিটিউটে পোড়া রোগীদের জন্য থাকছে ৫০০ শয্যা, ১০০টি কেবিন। ৫৪ ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিট, ৬০ শয্যাবিশিষ্ট হাইডেফিসিয়েন্সি ইউনিট, ১৮টি অপারেশন থিয়েটার এবং অত্যাধুনিক পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ড।

দ্রুততম সময়ে প্রতিষ্ঠানটি নির্মাণ করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা কাজে সম্পৃক্ত ছিলেন তাদের সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। মাত্র ২ বছরের মধ্যে কাজটি শেষ হয়েছে। তবে পুরোপুরি শেষ হতে সময় লাগবে। অনেক আধুনিক যন্ত্রপাতি কিনতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বমানের ইনস্টিটিউশন গড়ে তুলতে যা যা লাগবে সে কাজগুলো আমরা করে যাব। বিদেশ থেকে উন্নতমানের সবকিছু আমরা সংগ্রহ করবো। আগুনে পুড়লে যাতে আর বিদেশে যেতে না হয়। এখানে যাতে যথাযথ সেবা পায়। সে জন্য নার্সদের প্রশিক্ষণ দেওয়া, উন্নত নতুন যন্ত্রপাতি এলে সে বিষয়েও প্রশিক্ষণ দেব। হাতে মাত্র দশ বছর সময় পেয়েছি। এই সময়ের মধ্যে যতটুকু সম্ভব কাজ করে যাচ্ছি। চিকিৎসা সেবাটা যাতে সব দিক দিয়ে হয়, সে বিষয়টা নিশ্চিত করছি।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকাতে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও সম্পর্কে তিনি বলেন, সেই সময় এই পোড়া মানুষগুলোর চিকিৎসা আমাদের করতে হয়েছে। অনেককে বিদেশে পাঠিয়ে চিকিৎসা করতে হয়েছে। প্রায় ৪ হাজার মানুষকে তারা পুড়িয়েছে। এর মধ্যে ৫০০ মানুষ মারা গেছে। ভবিষ্যতে যাতে এভাবে মানুষকে পুড়িয়ে মারতে না পারে সে বিষয়ে দেশবাসীকে আমরা সতর্ক থাকতে বলবো।

প্রতিষ্ঠানটির চিফ কো-অর্ডিনেটর ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, ১৮তলা এই ইনস্টিটিউটে পোড়া রোগীরা যেমন উন্নততর সেবা পাবেন, তেমনি চিকিৎসক ও নার্সরা তাদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণ পাবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল এই ইনস্টিটিউটটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং মূল ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের ২৭ এপ্রিল।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব সিরাজুল হক খান। অন্যদের মধ্যে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, সেনাবাহিনী প্রধান আজিজ আহমেদ, ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বক্তব্য রাখেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.