শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
প্রকৌশলীদের সততা ও স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী কৃষকের কল্যাণে সরকার -কৃষিমন্ত্রী প্রতিমা ভাঙচুরের সময় ধরা পড়ে পুলিশে হস্তান্তর শার্শায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে মসজিদে টাকা প্রদান  ব্লাড ব্যাংক অফ কালীগঞ্জ এর আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রবীর সিকদারের বিচারের দাবীতে ফরিদপুরের কর্মরত সাংবাদিকদের মানববন্ধন গ্রাম আদালতের বিচার পেয়ে খুশী রেনু মিয়া Fuad’s ‘Cholo Bangladesh’ for the Tiger fans on ICC World Cup 2019 বিশ্বকাপে টাইগার ভক্তদের জন্য ফুয়াদের “চলো বাংলাদেশ” কামারখালী ইউনিয়নে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা ও ইফতার মাহফিল

অযত্নে অবহেলায় ধ্বংসের পথে অবিভক্ত বাংলার অর্থমন্ত্রীর বাড়ি

বাংলার অর্থমন্ত্রীর বাড়ি

কেন্দুয়া (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি ॥ নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় অযতেœ অবহেলায় ধ্বংসের পথে অবিভক্ত বাংলার অর্থমন্ত্রী নলিনী রঞ্জন সরকারের বাড়িটি। সঠিক রক্ষনাবেক্ষন ও সংস্কারের অভাবে পড়ে থাকা বাড়িটি অস্তিত্ব হারাতে বসেছে অবিভক্ত বাংলার অর্থমন্ত্রীর ঐতিহ্যবাহী পৈত্রিক বাড়িটি।

বাংলার অর্থমন্ত্রীর বাড়িটি কেন্দুয়া উপজেলার ১১ নং চিরাং ইউনিয়নের সাজিউড়া গ্রামের কালের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে। এলাকার স্থানীয় প্রবীণ লোকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে অর্থমন্ত্রী নলিনী সরকার ও তার অন্য সহোদরেরা স্বাধীনতা যুদ্ধের অনেক পূর্বেই ভারতে চলে যান, এবং দেশ ত্যাগ করার সময় তারা কেন্দুয়া উপজেলায় নিজ গ্রামে রেখে যান ৩৫০ একর ফসলী জমিসহ বিশাল পুকুর এবং কয়েক কোটি টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ। স্বাধীনতার পূর্বে ও পরে এসমস্ত সম্পদ সরকারি সম্পত্তি হিসেবে ষোষিত হওয়ার পর স্থানীয় লোকজন নলিনী রঞ্জন সরকারের রেখে যাওয়া কয়েক একর জমি , পুকুর স্থানীয় সরকারের কাছ থেকে লিজ নিয়ে বসবাস ও চাষাবাদ করে আসছে অনেকেই। শত বছরের এই বৃটিশ আমলের এই বাড়িটি ঘুরে ফিরে দেখা যায়, দেয়াল ও ছাঁদ থেকে খসে পড়ছে প্লাস্টার। লতাপাতা শেকড়- বাকড়ে ক্রমশ বন্দি হয়ে বিলীন হতে চলেছে বাড়িটির অস্তিত্ব।

স্থানীয় ইউ.পি চেয়ারম্যান মাহবুব আলম খান জরিপ জানান, ইতিহাসের সাক্ষী নলিনী রঞ্জন সরকারের পৈত্রিক ঐতিহাসিক এই বাড়িটি সরকারিভাবে সংস্কার ও সংরক্ষন করা খুবই প্রয়োজন। স্থানীয় সচেতনমহল ও এলাকাবাসী জানান এভাবে অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে থাকলে নলিনী রঞ্জন সরকারের স্মৃতিটুকুও কিছুদিন পরে খুজে পাওয়া যাবেনা। তাই স্থানীয় সরকার বা সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ যদি এই বাড়িটির সংস্কারের উদ্যোগ নেন তাহলে ঐতিহ্যবাহী এই বাড়িটি হতে পারে আমাদের কেন্দুয়ার অন্যতম পর্যটক কেন্দ্র।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit