শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
প্রকৌশলীদের সততা ও স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী কৃষকের কল্যাণে সরকার -কৃষিমন্ত্রী প্রতিমা ভাঙচুরের সময় ধরা পড়ে পুলিশে হস্তান্তর শার্শায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে মসজিদে টাকা প্রদান  ব্লাড ব্যাংক অফ কালীগঞ্জ এর আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রবীর সিকদারের বিচারের দাবীতে ফরিদপুরের কর্মরত সাংবাদিকদের মানববন্ধন গ্রাম আদালতের বিচার পেয়ে খুশী রেনু মিয়া Fuad’s ‘Cholo Bangladesh’ for the Tiger fans on ICC World Cup 2019 বিশ্বকাপে টাইগার ভক্তদের জন্য ফুয়াদের “চলো বাংলাদেশ” কামারখালী ইউনিয়নে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা ও ইফতার মাহফিল

দুর্গা মাকে সঠিক মর্যাদা দেওয়া ও মায়ের আদর্শ মেনে চলার আহ্বান

শ্যামল চক্রবর্তী

মহামায়া মন্দির আয়োজিত দ্বাদশ বর্ষ সার্বজনীন শ্রী শ্রী দূর্গা পূজায় সকলের প্রতি জানাই আন্তরিক প্রীতি ও শুভেচ্ছা। সনাতন ধর্মের চর্চা, প্রচার ও বিকাশ সাধন এবং প্রবাসী হিন্দুদের সামাজিক ও আধ্যাত্মিক উন্নয়ন লক্ষ্যে মহামায়া মন্দির সারা বছর ব্যাপী বিভিন্ন পূজা-পার্বন সহ নানাবিধ অনুষ্ঠানাদির আয়োজন করে থাকে। নিউইয়র্ক ও আশেপাশের রাজ্যগুলি থেকে প্রচুর ভক্ত সমাগম হয় এসব অনুষ্ঠানাদিতে। যখন নিন্দুকেরা হিন্দু ধর্মের ভাটার কথা বলে হা-পিত্তেশ করে তখন মহামায়া মন্দিরে ভক্তদের সরব পদচারণা ও মুখরিত কোলাহল আমাদেরকে যথেষ্ট উজ্জীবিত করে ও অনুপ্রেরণা জোগায়। তাই সকলের প্রতি অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।
দূর্গা পূজা আসলেই হিন্দু ফাউন্ডেশন এর বার্ষিক মুখপত্র বোধন সম্পাদক ও অনুজপ্রতিম প্রণব চক্রবর্তী লেখার কথা বলে। দূর্গা পূজা আসে আগমনীর ঘন্টা বাজিয়ে। আমরা প্রস্তূতি নেই পূজার আয়োজনের। কিনতু এই আগমনী ঘন্টা দুর্ভাগ্য কম বয়ে আনেনা। পূজার আগেই শুনি বাংলাদেশে এমনকি ভারতেও মূর্তি ভাঙার সংবাদ যেমনটি এবার হয়েছে মহালয়ার সময়। পূজার সময় শুনি পূজা মণ্ডপ থেকে হিন্দু মেয়েদের ধরে নিয়ে যাওয়ার সংবাদ। তার সাথে এবার যোগ হয়েছে আজান চলাকালীন সময়ে পূজা বন্ধ রাখার ডিএমপি (ঢাকা নগর পুলিশ) এর নির্দেশ। মন্ত্রী ও নেতারা গতানুগতিক তাদের বশংবদ হিন্দু উজির-নাজির সহ উপস্থিত হয়ে যান পুজো বাড়িতে। আওড়ান অতি পুরোনো বুলি– আমাদের দেশ অসাম্প্রদায়িক দেশ। হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ- খ্রিস্টানদের নিয়ে মিলে মিশে থাকা শান্তির দেশ, বাংলাদেশ। দিয়ে আসেন শান্তির সার্টিফিকেট। অথচ মূর্তিভাঙা, মন্দির ধ্বংস, নারী অপহরণকারীদের অত্যাচার করে তাদের প্রতিহত করার কোনো দাওয়া তাদের কাছে নেই।
আমাদের হিন্দু নেতারাও শান্তির সার্টিফিকেট নিয়ে বেজায় খুশী হয়ে যান। যে হিন্দুরা গোমাতাকে পরিবারের অংশ হিসাবে মান্য করে অথচ সেই হিন্দুরাই নীরবে ও নির্বিবাদে প্রকাশ্যে গোমাতার মুন্ডকর্তন মেনে নেয়। কদাচিৎ কেউ প্রতিবাদ জানালে সেই তাবেদার হিন্দুরাই আবার প্রতিবাদীর কণ্ঠ চেপে ধরতে চায়। কিছু হিন্দু তথাকথিত সাংবাদিক ও লেখকরা এই ভেলকিবাজির খেলায় রাজনৈতিক চামচাদের চেয়েও বেশী অগ্রসর। তবে আশার আলোও আছে আমাদের দৃষ্টির সীমানায়ই। এবারে নারায়ণগঞ্জের এক মন্দিরে আয়োজিত দূর্গা পূজার কার্ডে আয়োজকদের তালিকায় হিন্দুদের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন মুসলমানের নাম থেকে যথেষ্ঠ কৌতূহল বোধ করেছি। ভালো হোক বা মন্দ হোক, এটা একটা পরিবর্তনের ইশারা। যে মুসলমানরা (তাদের ধর্ম অনুযায়ী হিন্দুদের কাফের ও মূর্তিপূজা নিষিদ্ধ জেনেও) পূজার কার্ডে নাম ছাপিয়েছে আমার বিশ্বাস তারা আলোকিত আত্মা। হে আলোর পথযাত্রী, ঘরে ফিরে এসো।
দূর্গা পূজা এলে আমার অনুযোগও বেড়ে যায় অনেক। দূর্গা পূজার কথা যত না শুনি তার চেয়ে বেশি কলরব শারদ উৎসব নিয়ে। পূজা হয়ে গেছে উৎসব, শরতের উন্মাদনা। আমরা স্ট্যাটাস দেই শুভ শারদীয়ার। দিন-ক্ষণ-লগ্ন উপেক্ষা করে অনেকে একদিনেই ষষ্টি থেকে বিজয়া দশমীও সেড়ে ফেলেন। এভাবে উৎসব হয়, অফিস পার্টিও হয় কিনতু দূর্গা পূজা হয়না। কেউ কেউ তো আবার কৃষ্ণপক্ষেও দূর্গা পূজার আয়োজন করে বসেন। জেনে এবং বুঝেই আবার আমরাই এসবে অংশ নেই, অনুদান দেই এবং সমর্থন করি। অন্য ধর্মাবলম্বীরা ধর্ম চর্চার নামে এই ব্যভিচারগুলো কখনো মেনে নিবে না। আমাদের যতদিন না আত্মশুদ্ধি ঘটবে, যতদিন না নীতি ও আদর্শে অবিচল থাকতে পারবো এবং যতদিন না অন্যায়ের বিরুদ্ধে মেরুদন্ড সোজা করে দাঁড়াতে পারবো ততোদিন পর্যন্ত অন্যের কাছ থেকে প্রাপ্য মর্যাদাটুকুও আদায়ে ব্যর্থ হবো।
হিন্দু ধর্ম আজ টিকে আছে, বহাল তবিয়তেই আছে সেটা আমাদের হিন্দুদের কৃতিত্বের জন্য নয়। বরং স্রষ্টার অপরিসীম আশীর্বাদ বর্ষিত হয়েছে আমাদের উপর। স্রষ্টা তার আশীর্বাদে বিধৌত করেছেন ভারত মাতাকে, পরিপূর্ন করেছেন ধন-জ্ঞান ভাণ্ডারে। মা পার্বতীকে প্ৰতিষ্ঠিত করেছেন হিমাদ্রী শিখরে। আমরা সেই ভারত মাতার সন্তান। আসুন মাকে মর্যাদা দিতে শিখি। মায়ের আদর্শ মেনে চলি।
সকলকে আবারও পূজার শুভেচ্ছা। বিশ্বের সকল প্রাণী সুখী হোক ।
শ্যামল চক্রবর্তী
সভাপতি,আমেরিকান বাঙ্গালী হিন্দু ফাউন্ডেশন
উপদেষ্টা সম্পাদক, দি নিউজ

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit