শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ০৭:০২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
প্রকৌশলীদের সততা ও স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে -গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী কৃষকের কল্যাণে সরকার -কৃষিমন্ত্রী প্রতিমা ভাঙচুরের সময় ধরা পড়ে পুলিশে হস্তান্তর শার্শায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে মসজিদে টাকা প্রদান  ব্লাড ব্যাংক অফ কালীগঞ্জ এর আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রবীর সিকদারের বিচারের দাবীতে ফরিদপুরের কর্মরত সাংবাদিকদের মানববন্ধন গ্রাম আদালতের বিচার পেয়ে খুশী রেনু মিয়া Fuad’s ‘Cholo Bangladesh’ for the Tiger fans on ICC World Cup 2019 বিশ্বকাপে টাইগার ভক্তদের জন্য ফুয়াদের “চলো বাংলাদেশ” কামারখালী ইউনিয়নে উন্মুক্ত বাজেট ঘোষনা ও ইফতার মাহফিল

আজ দেবীপক্ষের অষ্টমী তিথিতে ১০৮টা পদ্ম দিয়ে পূজিত হবেন দেবী দুর্গা

মহা অষ্টমী

প্রসেনজিৎ ঠাকুরঃ আজ দেবীপক্ষের অষ্টমী তিথি। একশো আটটা পদ্ম দিয়ে আজ পূজিত হবেন দেবী দুর্গা৷ দুর্গাপূজার মহাষ্টমী তিথি মহামায়ার খুব প্রিয় তিথি। আদিশক্তি মহামায়ার প্রথম পুজো করেন ভগবান শ্রীকৃষ্ণ। সে দিন ছিল বাসন্তী শুক্লা অষ্টমী। ত্রেতাযুগে ভগবান বিষ্ণু রামচন্দ্ররূপে জন্ম নিয়েছিলেন বাসন্তী শুক্লা অষ্টমী ও নবমীর সন্ধিক্ষণে। আবার তিনিই কৃষ্ণ রূপে জন্ম নিলেন ভাদ্র মাসের অষ্টমীতে। অষ্টমী তিথি হলো অসুরবিনাশী শুদ্ধসত্তার আবির্ভাব তিথি। অষ্টমী তিথিতে দেবী মহালক্ষ্মীরূপা বৈষ্ণবী শক্তি। দেবীর সেদিন রাজরাজেশ্বরী মূর্তি। দু’হাতে বর দেন ভক্তদের। শ্রেষ্ঠ উপাচার সেদিন নিবেদিত হয়। পদ্ম, জবা, অপরাজিতা, বেলপাতা— কত রকমের ফুলমালায় মাকে সাজানো হয়। এদিন ৬৪ যোগিনী, কোটি যোগিনী, নবদুর্গা প্রমুখের আরাধনা হয়ে থাকে।

এদিন ভক্তেরা দেবীকে প্রার্থনা জানিয়ে বলেন— “নমস্যামি জগদ্ধাত্রি ত্বামহং বিশ্বভাবিনি”। এই অষ্টমী তিথিতে হয় অন্য এক ধরণের দুর্গাপূজা— বীরাষ্টমী ব্রত। ‘নারদীয় পুরাণ’-এ রয়েছে এই বীরাষ্টমী ব্রতের কথা। আশ্বিনমাসের শুক্লা অষ্টমীতে হয় এই ব্রত এবং আট বছর এই ব্রত করতে হয়। বীর সন্তান প্রাপ্তির জন্য এই ব্রতের সাধনা। রাজস্থানের রমণীরা আজও দুর্গাপূজার অষ্টমীতে বীরপুত্র লাভের জন্য বীরাষ্টমী ব্রত পালন করে থাকেন। বাঙালি মেয়েরা, যাঁরা দুর্গাষ্টমীতে দেবীকে অর্চনা করে তুষ্ট হতে পারেন না, তাঁদের জন্য রয়েছে ‘রাল দুর্গা’ ব্রত। অগ্রহায়ণ, পৌষ, মাঘ, ফাল্গুন— এই চার মাস ধরে যে কোনও মনোবাঞ্ছা ও সুখশান্তি কামনায় এই ব্রত পালিত হয়। দুর্গাপুজোয় কোন কোনও গৃহে অষ্টমী তিথিযুক্ত রাত্রে হয় দেবীর অর্ধরাত্র বিহিত পূজা অর্থাৎ দেবীকে কালীরূপে তান্ত্রিক মতে পূজা করা হয়। কেউ কেউ পৃথক কালী পূজাও করে থাকেন।

মাতৃজ্ঞানে কুমারীপূজাঃ হিন্দুশাস্ত্র অনুসারে, সাধারণত ১ থেকে ১৩ বছরের অজাতপুষ্প সুলক্ষণা কুমারীকে পূজায় উল্লেখ রয়েছে। ব্রাহ্মণ অবিবাহিত কন্যা অথবা অন্য গোত্রের অবিবাহিত কন্যাকেও পূজা করার বিধান রয়েছে। বয়সভেদে কুমারীর নাম হয় ভিন্ন। শাস্ত্রমতে এক বছর বয়সে সন্ধ্যা, দুইয়ে সরস্বতী, তিনে ত্রিধামূর্তি, চারে কালিকা, পাঁচে সুভগা, ছয়ে উমা, সাতে মালিনী, আটে কুঞ্জিকা, নয়ে অপরাজিতা, দশে কালসর্ন্ধভা, এগারোয় রুদ্রানী, বারোয় ভৈরবী, তেরোয় মহালক্ষ্মী, চৌদ্দয় পীঠনায়িকা, পনেরোয় ক্ষেত্রজ্ঞ এবং ষোল বছরে আম্বিকা বলা হয়ে থাকে। এদিন নির্বাচিত কুমারীকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরিয়ে ঘাটে বসানো হয়। তান্ত্রিক মতে, কুমারীপূজা চলে আসছে স্মরণাতীতকাল থেকে। কিন্তু এ পূজার ব্যাপক পরিচিতি সাধারণ মানুষের মধ্যে ছিল না।

স্বামী বিবেকানন্দ ১৯০১ সালে বেলুড় মঠে কুমারীপূজার আয়োজন করার পর থেকে এ পূজা নিয়ে ভক্তদের জানার আগ্রহ বাড়তে থাকে। স্বামীজীর কুমারীপূজা বিষয়ে কিছু আশ্চর্য কাহিনী জানা যায়। তার মানসকন্যা নিবেদিতাসহ আরও কয়েকজনকে নিয়ে কাশ্মীরে ঘুরতে গিয়ে তিনি এক মাঝির শিশুকন্যাকে কুমারী হিসেবে পূজা করেন, যা দেখে নিবেদিতাসহ তার অন্যান্য পাশ্চাত্য শিষ্যও বিস্মিত হন। পরিব্রাজক অবস্থার বিভিন্ন সময়ে তার আরও কয়েকজন শিশুকন্যাকে কুমারীরূপে পূজা করার কথা জানা যায়। এর মধ্যে খুবই আশ্চর্যজনক বিষয়, উত্তর প্রদেশের (গাজীপুর) বিখ্যাত রায়বাহাদুর গগনচন্দ্র রায়ের (যিনি রবীন্দ্রনাথেরও ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন) শিশুকন্যা মণিকা রায়কে কুমারীরূপে পূজা করেন। ১৮৯৮ সালের অক্টোবরে ক্ষীরভবানীতে তিনি কুমারীপূজা করেন। ক্ষীরভবানী কাশ্মীরের অতি প্রাচীন দেবীপীঠ। যদিও স্বামীজীর কাশ্মীর-ভ্রমণে তার সহযাত্রীদের মধ্যে মানসকন্যা নিবেদিতা ও শিষ্যা মিস্ ম্যাকলাউড ছিলেন আর ছিলেন দু’জন গুরুভাই, কিন্তু স্বামীজী এ সময় প্রায় একাকীই থাকতেন এবং ক্ষীরভবানীর প্রথা অনুযায়ী পূজা করে ‘পায়েস’ নিবেদন করতেন। সেই সঙ্গে প্রতিবারই একজন ব্রাহ্মণ শিশুকন্যাকে কুমারীজ্ঞানে পূজা করতেন।

ভারতের অন্যতম শক্তিপীঠ কামাখ্যাতে গিয়েও স্বামীজীর কুমারীপূজা করার কথা জানা যায় সেখানকার পাণ্ডাদের লিখিত পুরনো খাতা থেকে। যোগিনীতন্ত্রে কুমারীপূজা সম্পর্কে যা জানা যায় তা হল- ব্রহ্মাশাপবশে মহাতেজা বিষ্ণুর দেহে পাপ সঞ্চার হয়। সর্বজ্ঞ বিষ্ণু সেই পাপ থেকে মুক্তি পেতে হিমাচলে গিয়ে তপস্যা করতে থাকেন। তিনি মহাকালী অষ্টাক্ষরী মহাবিদ্যা দশ হাজার বছর পর্যন্ত জপ করেন। বিষ্ণুর তপস্যায় মহাকালী খুশি হন। দেবীর সন্তোষ প্রকাশ করার পরই বিষ্ণুর হৃদ্পদ্ম থেকে ‘কোলা’ নামক মহাসুরের আবির্ভাব হয়। দ্রুত সেই কোলাসুর দেবগণকে পরাজিত করে অখিল ভূমণ্ডল, বিষ্ণুর বৈকুণ্ঠ এবং ব্রহ্মার কমলাসন হরণ করেন। তখন পরাজিত বিষ্ণু ও দেবগণ ‘রক্ষ’ ‘রক্ষ’… বাক্যে ভক্তিবিনম্রচিত্তে দেবীর স্তব শুরু করেন। বিষ্ণু দেবগণের স্তবে খুশি হয়ে দেবী বলেন- ‘হে বৎস, বিষ্ণো! আমি আধুনা কুমারীরূপ ধারণ করে কোলানগরী গমনপূর্বক অসুরকুলবর্বর কোলাসুরকে সবান্ধবে নিধন করব।’ দেবী তার কথামতো কাজ করেন। সেই থেকে দেব-গন্ধর্ব, কিন্নর-কিন্নরী, দেবপত্নীগণ এবং বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সবাই নিজ নিজ ঘরে কুসুম-চন্দন-ভারে কুমারীর অর্চনা করে আসছেন।

বৃহদ্ধর্ম পুরাণের বর্ণনা অনুযায়ী, দেবতাদের স্তবে প্রসন্ন হয়ে দেবী চণ্ডিকা কুমারী কন্যারূপে দেবতাদের সামনে দেখা দিয়েছিলেন। দেবীপুরাণে এ বিষয়ে উল্লেখ আছে। দেবী ভগবতী কুমারীরূপেই আখ্যায়িত। তার কুমারীত্ব মানবী ভাব বোঝা খুবই কঠিন। কারণ তিনি দেবতাদের তেজ থেকে সৃষ্টি। শাস্ত্রীয় বিধানমতে, এক বছর বয়সী থেকে শুরু করে রজঃপ্রাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত বিভিন্ন বয়সী কুমারীকে দেবীরূপে পূজা করা হয়। সাধারণতঃ ছয়,সাত এবং আট বছরের কন্যার কুমারীপূজা বিশেষভাবে প্রশস্ত। আমাদের দেশে একজনকে একাধিকবার পূজা করার দৃষ্টান্ত রয়েছে। এক এক বছরের মেয়েদের এক এক নামে পূজা করার বিধান রয়েছে।

পূজার দিন সকালে পূজার জন্য নির্দিষ্ট কুমারীকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরানো হয় এবং ফুলের গহনা ও নানাবিধ অলঙ্কারে তাকে সাজানো হয়। পা ধুইয়ে দেয়ার পর পরানো হয় আলতা, কপালে এঁকে দেয়া হয় সিঁদুরের তিলক, হাতে দেয়া হয় মনোরম পুষ্প। কুমারীকে মণ্ডপে সুসজ্জিত আসনে বসিয়ে তার পায়ের কাছে রাখা হয় বেলপাতা, ফুল, জল, নৈবেদ্য ও পূজার নানাবিধ উপাচার। তারপর কুমারীর ধ্যান করা হয়। সাধারণত দুর্গা দেবীর মহাষ্টমী পূজা শেষে কুমারীপূজা হয়ে থাকে। অনেকের মতে নবমী পূজার দিন হোমের পর কুমারীপূজা করার নিয়ম আছে। যাগ-যজ্ঞ-হোম সবই কুমারীপূজা ছাড়া সম্পূর্ণ ফলদায়ী নয়। কুমারীপূজায় দৈব-ফল কোটিগুণ লাভ হয়। কুমারী পুষ্প দ্বারা পূজিতা হলে তার ফল পর্বত সমান। যিনি কুমারীকে ভোজন করান তার দ্বারা ত্রিলোকেরই তৃপ্তি হয়। দেবী পুরাণ মতে, দেবীর পূজার পর উপযুক্ত উপাচারে কুমারীদের ভোজনে তৃপ্ত করাতে হয়।

বর্তমানে কুমারী পূজার প্রচলন কমে গেছে। বাংলাদেশে সূদূর অতীত থেকেই কুমারী পূজার প্রচলন ছিলো এবং তার প্রমাণ পাওয়া যায় ‘কুমারীপূজা প্রযে়াগ’ গ্রন্থের পুথি থেকে। যুগজননী শ্রীমা সারদাদেবী বলেছেন, ‘কুমারীকে ভগবতীর একটি রূপ বলে।’

ঠাকুর শ্রী রামকৃষ্ণ বলেছেন,- “ দিব্যচক্ষু চাই। মন শুদ্ধ হলেই সেই চক্ষু হয়। দেখনা কুমারীপূজা। হাগা-মোতা -মেয়ে, তাকে ঠিক দেখলুম সাক্ষাৎ ভগবতী।” তিনি আরও বলেছেন,- “সারদা মাকে কুমারীর ভিতর দেখতে পাই বলে কুমারীপূজা করি।” কুমারী হল শুদ্ধ আধার। স্বামীজি নিজে কুমারীপূজা করেছিলেন। তিনি যখন ১৮৯৮ সালে কাশ্মীর ভ্রমণে গেছিলেন, তখন তিনি এক মুসলমান মেয়েকে কুমারীপূজা করেছিলেন। ১৮৯৯ সালে তিনি কন্যাকুমারী শহরে ডেপুটি একাউণ্ট্যাণ্ট জেনারেল মন্মথ ভট্টাচার্যের কন্যাকে কুমারীপূজা করেছিলেন। ১৯০১ সালে বেলুড় মঠে দুর্গাপূজা করেছিলেন। সেখানেও তিনি একসঙ্গে ৯ জন কন্যাকে কুমারীপূজা করেছিলেন। কুমারী পূজার ১৬টি উপকরণ দিয়ে শুরু হয় পূজার আচার। এরপর অগ্নি, জল, বস্ত্র, পুষ্প ও বাতাস— এই পাঁচ উপকরণে দেওয়া হয় ‘কুমারী মায়ের’ পূজা। অর্ঘ্য নিবেদনের পর দেবীর গলায় পরানো হয় পুষ্পমাল্য। পূজা শেষে প্রধান পূজারি আরতি দেন এবং তাকে প্রণাম করেন। সবশেষে মন্ত্রপাঠ করে ভক্তদের মাঝে প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় কুমারী পূজা।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit