১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:২৩
সর্বশেষ খবর

বিদেশি অনুদানের ৩০ শতাংশ এনজিওর নিবন্ধন মেয়াদ নেই, নিবন্ধন আছে অস্থিত্ব নেই

নবায়নের আদেশ জারি করেও সাড়া মেলেনি, অর্থ পাচার ও জঙ্গি অর্থায়নে জড়িত থাকার সন্দেহ

রাজিব শর্মা(চট্টগ্রাম ব্যুরো):
সেবা সংস্থা। একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও)। ১৯৯১ সালের ৩০ মার্চ এনজিও-বিষয়ক ব্যুরোতে নিবন্ধিত হয়। নিবন্ধন নম্বর ৪৫৬। ৩০ মার্চ ১৯৯৬ সালে সংস্থাটির নিবন্ধন নবায়নের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। শর্তানুসারে মেয়াদোত্তীর্ণের ছয় মাস আগে নবায়নের আবেদন করতে হয়। প্রায় দুই যুগ পেরিয়ে গেলেও মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেনি সংস্থাটি। ব্যুরোর তালিকায় রাজধানীর চানখাঁরপুলে ২১ নবাবকাটরা, খান ম্যানশনে এর ঠিকানা। গত ৫ এপ্রিল সরেজমিনে সেখানে সেবা সংস্থার কোনো অস্তিত্ব মেলেনি। প্রায় দুই বছর আগে সংস্থাটি ওই ঠিকানা ছেড়েছে বলে জানিয়েছেন বর্তমানে ওই বাড়ির মালিক আবু তাহের। সূত্রমতে, সেবা সংস্থার মতো বিদেশি অনুদান নিয়ে কাজ করা এনজিওগুলোর ৩০ ভাগই মেয়াদোত্তীর্ণ। এর মধ্যে অনেকগুলো অস্তিত্বহীন। অর্থ পাচার ও জঙ্গি অর্থায়নে এগুলো জড়িত থাকতে পারে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এক থেকে তিন দশকের বেশি সময় মেয়াদ না থাকা এসব এনজিও এখন কী করছে- এ ব্যাপারে নিয়ন্ত্রক সংস্থা এনজিও-বিষয়ক ব্যুরো কিছুই জানে না। এ ধরনের এনজিওগুলোকে মেয়াদ নবায়নের আদেশ জারি করেছে ব্যুরো। তবে এতে খুব একটা সাড়া মেলেনি। এ অবস্থায় যারা নবায়নের আবেদন করেনি, তাদের শোকজ করে নিবন্ধন বাতিলের উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

বৈদেশিক অনুদান রেগুলেশন আইন ২০১৬ অনুসারে, এনজিওগুলোকে ১০ বছরের জন্য নিবন্ধন সনদ ইস্যু করা হয় এবং ওই সনদ ১০ বছর অন্তর নবায়ন করতে হয়। কিন্তু ৩২ বছরেরও বেশি সময় ধরে মেয়াদ বাড়ায়নি ‘কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি সার্ভিস ওভারসিস’। দুই যুগের বেশি নিবন্ধন নবায়ন করেনি এ রকম এনজিওর মধ্যে আরও রয়েছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর ভলান্টারি স্টেরিলাইজেশন, জাতীয় চার্চ পরিষদ, শিশু চিকিৎসা কেন্দ্র, অ্যাসোসিয়েশন ফর ভলান্টিয়ারস ফর রুরাল ডেভেলপমেন্ট অব বাংলাদেশ, শিশু মঙ্গল সমাজকল্যাণ সমিতি, গণবিদ্যাপীঠ, বহুমুখী মিলন সংঘ, প্রগতি মানবিক উন্নয়ন প্রকল্প ও প্রগ্রেসিভ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন। ২০ বছর ধরে নবায়ন নেই এমন এনজিও এখন ৬০টি।
১৫ থেকে ১৯ বছর নিবন্ধন নবায়ন করেনি এ রকম প্রতিষ্ঠান রয়েছে ১০৫টি। এ বিষয়ে এনজিও-বিষয়ক ব্যুরোর মহাপরিচালক কে এম আবদুস সালাম The Crime কে বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ এনজিওগুলোকে প্রথম দফা নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এখনও যারা নবায়নের আবেদন করেনি, তাদের ‘নিবন্ধন কেন বাতিল করা হবে না’- মর্মে কারণ দর্শানো হবে। এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। এর পরেও যারা জবাব দেবে না এবং উপযুক্ত কারণ দর্শাতে ব্যর্থ হবে, তাদের নিবন্ধন বাতিল করা হবে।

নিবন্ধন আছে, অস্তিত্ব নেই : বৈদেশিক অনুদান নিয়ে কাজ করে এমন দেশি-বিদেশি দুই হাজার ৬০৮টি এনজিও রয়েছে। এর মধ্যে বিদেশি এনজিও ২৫৮টি। দীর্ঘদিন ধরে নিবন্ধন নবায়ন না করায় গত ২৩ আগস্ট মেয়াদোত্তীর্ণ ৭৯৫টি এনজিওকে ষাট দিনের মধ্যে নবায়নের আবেদন করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এ নির্দেশের সাত মাস পেরিয়ে গেলেও বেশিরভাগ এনজিও সাড়া দেয়নি। এসব এনজিওর অস্তিত্ব আছে কি-না, তা বুঝতে ‘সেবা সংস্থা’ ছাড়া আরও দুটি এনজিওর ঠিকানায় সরেজমিন যান এ প্রতিবেদক। রাজধানীর ৫৯ লেকসার্কাস, কলাবাগানের ঠিকানা দেওয়া আছে ‘স্বদেশ উন্নয়ন সংস্থা’র নামে। ১৯৯৬ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়া এনজিওটির ঠিকানায় গিয়ে অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। সেখানে নির্মাণাধীন নতুন ভবনের ব্যবস্থাপক মো. নাজিম The Crime কে বলেন, আট-নয় বছর আগে এখানে একটি ভবন ছিল। সেটি ভেঙে ফেলা হয়েছে। তখন থেকে নতুন ভবনের নির্মাণ কাজ চলছে। চার বছর ধরে এখানে কাজ করছি। এ রকম কোনো এনজিওর বিষয়ে বলতে পারব না।

মতিঝিলের আমিন কোর্ট ভবনে গিয়ে খোঁজ মেলেনি ‘সাহকো ডেভেলপমেন্ট সেন্টার’ নামে এনজিওর। ভবনে দায়িত্বরত লিফট ইনচার্জ হাসানুজ্জামান The Crime কে বলেন, কমপক্ষে ১০ বছর আগে এখান থেকে এনজিওটি চলে যায়। এখন কোথায় অফিস, তা বলতে পারব না।

বিদেশি অনুদানপ্রাপ্ত অনেক এনজিওর বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে জঙ্গি অর্থায়ন ও মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে বর্তমানে ‘টার্মস অব রেফারেন্স’ (টিওআর-২৬) মোতাবেক কোনো সংস্থা মানি লন্ডারিং বা সন্ত্রাসী অর্থায়নে জড়িত কি-না, সে বিষয়ে এনজিও-বিষয়ক ব্যুরোতে তথ্য উল্লেখ করতে হয়। যেসব এনজিওর নিবন্ধন আছে, তাদের মধ্যেও অনেকে এ ব্যাপারে তথ্য দিতে চায় না। ফলে অনেক এনজিওকে ইতিমধ্যে অডিট আপত্তির সম্মুখীন হতে হয়েছে। সংশ্নিষ্টরা বলছেন, যেখানে হালনাগাদ এনজিওগুলো এসব সংবেদনশীল বিষয়ে তথ্য দিতে গড়িমসি করে, সেখানে বড় সংখ্যায় মেয়াদহীন এনজিও গোপন কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করছে কি-না, সে ব্যাপারে ‘অন্ধকারে’ থাকা সত্যিই উদ্বেগজনক।

এ প্রসঙ্গে এনজিও-বিষয়ক ব্যুরোর পরিচালক (নিবন্ধন) শাহাদাত হোসেন The Crime কে বলেন, বছরের পর বছর নিবন্ধন নবায়ন না করলে এসব এনজিও যে কোনো ধরনের জালিয়াতি, প্রতারণা ও আর্থিক অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নিতে পারে। তাই এসব নিষ্ফ্ক্রিয় এনজিওর বিরুদ্ধে তৎপর হয়েছি। যথাসময়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি জানান, বিভিন্ন নিয়মবহির্ভূত কার্যক্রমের কারণে ২০১০ সালে ৪৪৯টি এনজিওর নিবন্ধন বাতিল করা হয়। এরপর ২০১১-১৭ সাল পর্যন্ত বাতিল হয়েছে ১২টি।

সাড়া দিয়েছে শ’খানেক : নিবন্ধন নবায়নের জন্য দেশি এনজিওর ক্ষেত্রে ত্রিশ হাজার টাকা এবং বিদেশি এনজিওর ক্ষেত্রে ছয় হাজার ইউএস ডলারের সমপরিমাণ বাংলাদেশি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করে চালানের কপি এনজিও-বিষয়ক ব্যুরোতে দিতে হয়। গঠনতন্ত্র পরিবর্তন হয়ে থাকলে তার অনুমোদনের জন্য ১৩ হাজার টাকা সরকারি কোষাগারে জমার চালানের অনুলিপিও দিতে হয়। একইসঙ্গে বিগত পাঁচ বছরে বৈদেশিক অনুদানে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের অডিট রিপোর্ট, বার্ষিক রিপোর্ট, প্রকল্পের বিবরণসহ মোট ১৪ ধরনের তথ্য ও প্রমাণপত্র জমা দিতে হয়। নিবন্ধন নবায়নে এ নির্দেশে সাড়া দিয়ে নবায়ন বাড়ানোর আবেদন করেছে মাত্র শ’খানেক এনজিও। এ রকমই একটি ‘গ্রুপ অব এক্সপার্ট অন এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড নেচার (গ্রিন)’। ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত মেয়াদ বাড়িয়েছে তারা। ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি ২০২৬ সাল, এমএসএফ বেলজিয়াম ২০২৪ সাল পর্যন্ত নবায়নের আবেদন করেছে।

এনজিওগুলোর নিবন্ধন নবায়ন না করার ব্যাপারে ব্র্যাকের জ্যেষ্ঠ পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, বর্তমানে মাঠ পর্যায়ের অভিজ্ঞতা থেকে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, অনেক এনজিও বিদেশি অনুদান পাচ্ছে না। বাংলাদেশে বিদেশি ঋণ ও অনুদান কমতির দিকে। এ অবস্থায় যেসব এনজিও আগে থেকে ক্ষুদ্র ঋণ ও নিজস্ব বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, তারাই টিকে আছে। অন্যরা সংগ্রাম করছে।

তিনি বলেন, দারিদ্র্য কমে গেলেও বাংলাদেশে এনজিওর প্রয়োজন এখনই ফুরাবে না। কারণ উন্নয়নের সঙ্গে বেকারত্ব, মাদকাসক্তি, উগ্রবাদসহ বহুমুখী নতুন নতুন সামাজিক সমস্যার উদ্ভব হচ্ছে। এসব সমস্যার মোকাবেলায় এনজিওগুলো ভালো কাজ করতে পারবে। কারণ সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার কাজটি সরকারের চেয়ে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোই ভালো পারে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.