শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:১৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সরকার কোনো বেকায়দায় নেই যে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে রিপোর্টার্স স্যান্স ফ্রন্টিয়ার্সের র‌্যাংকিং প্রত্যাখ্যান তথ্যমন্ত্রীর ফটো সাংবাদিকরা আমাকে আবেগাপ্লুত করেছেন- তথ্যমন্ত্রী প্রশ্নপত্রে পর্নোতারকার নাম ছাপার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীতদন্ত রুপির বিপরীতে কমলো টাকার মান, বাণিজ্যে বিরূপ প্রভাব মাদারীপুরে স্কুল ছাত্রীকে গনধর্ষন, মুল হোতা গ্রেফতার ফেসবুকে স্ট্যাটাস কালীগঞ্জে প্রতিবন্ধি মিথিলাকে হুইল চেয়ার দিলো পৌর মেয়র আশরাফ শার্শার গোাগা পুর্ব জিজিটাল ভিলেজ স্কুলে সাপ আতংক ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে পণ্য শতভাগ পরীক্ষণে বাণিজ্য স্থবিরের আশঙ্কা প্যারাগুয়েতে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ বরণ করলো ব্রাজিলের বাংলাদেশ দূতাবাস

মাছটির দাম সোয়া দু’কোটি টাকা! ড্রাগন ফিশ

ড্রাগন ফিশ

প্রাইভেট জেট বা ম্যানসন নয়, শুধু মাত্র একটা মাছ। কোটিপতিদের অন্যতম শখ এখন এই মাছকে ঘিরে। এটাই নাকি স্ট্যাটাস সিম্বল! দাম প্রায় দু’কোটি কুড়ি লক্ষ টাকা।

এশিয়ান অ্যারোয়ানা, বিশ্বের অন্যতম মূল্যবান জলজ প্রাণী এটি। এশিয়ার এলিটদের মধ্যে এই মাছটিকে ঘিরে ক্রমেই উৎসাহ বাড়ছে।

এই মাছগুলিকে বলা হচ্ছে ড্রাগন ফিশ। আশির দশকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় প্রায় তিন ফুট লম্বা মাছগুলির প্রজনন শুরু হয়েছিল। আগে এগুলি ঠিক পোষ্য মাছ ছিল না। তার পর আচমকাই রটে গেল, মাছগুলি বাড়িতে রাখলে নাকি সমৃদ্ধি বাড়ে, বাড়ে ধনসম্পদ। তার পরই মাছগুলিকে অ্যাকোয়ারিয়ামে রাখা শুরু হল।

বেশ কয়েক জন এতটাই ভালবেসে ফেলেন মাছগুলিকে যে, তাদের প্লাস্টিক সার্জারিও করা হচ্ছে। মাছগুলির চোখ বাঁকা হলে কিংবা, মাছের মুখ মালিকের পছন্দ না হলে মোটামুটি পাঁচ থেকে ছয় হাজারের মধ্যে সার্জারি করার ব্যবস্থাও রয়েছে।

ড্রাগন ফিশ বিশেষজ্ঞ এমিলে ভোগেট বলেন, মাছটিকে নিজের বাড়ির অ্যাকোয়ারিয়ামে রাখার জন্য উৎসাহ প্রবল বেড়ে যাওয়ার, এর দাম এক বার পৌঁছয় প্রায় ২ কোটি ২০ লক্ষ টাকায়। তবে একটা পূর্ণবয়স্ক এশিয়ান অ্যারোয়ানার ন্যূনতম দাম সিঙ্গাপুরের বাজারে প্রায় ৫২ লক্ষ টাকা।

বিরল প্রজাতির এই মাছটি পৃথিবী থেকে হারিয়েই যেতে বসেছিল। ১৯৭৫ সালে ১৮৩টি দেশের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। আন্তর্জাতিক বাজারে মাছটির বেচাকেনা বন্ধ হয়। এই মাছকে ঘিরে অপরাধও সংঘটিত হতে শুরু করে এর পর। সিঙ্গাপুরের বাজারে চারটি মাছ চুরি নিয়ে বড়সড় তদন্ত হয়েছিল। মালয়েশিয়ায় একজন অ্যাকোরিয়ামের মালিককে খুন পর্যন্ত করা হয়েছিল।

ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, চিনে সবচেয়ে বেশি চাহিদা রয়েছে এই মাছটিকে ঘিরে। মাছটি আন্তর্জাতিক বাজারে কেনাবেচা সংক্রান্ত আইনে পরবর্তীতে খানিকটা শিথিলতা এসেছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit