১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:৩৩
সর্বশেষ খবর
Atomic Dispepsia, অজীর্ণ রোগ কি?, অজীর্ণ কেন হয়, অম্লশূল, পিত্তশূল, পাকস্থলীর ক্ষত, অন্ত্রক্ষত,মূত্র পাথুরী, পিত্ত পাথুরি, ডায়েবিটস, অর্শ, পাইলস, অম্লশূল কেন হয়, পিত্তশূল কেন হয়, পাকস্থলীর ক্ষত, অন্ত্রক্ষত কেন হয়, মূত্র পাথুরী কেন হয়, পিত্ত পাথুরি কেন হয়, ডায়েবিটস কেন হয়, অর্শ, পাইলস কেন হয়, অম্লশূল নিরাময়, পিত্তশূল নিরাময়, পাকস্থলীর ক্ষত নিরাময়, অন্ত্রক্ষত নিরাময়, মূত্র পাথুরী নিরাময়, পিত্ত পাথুরি নিরাময়, ডায়েবিটস নিরাময়, অর্শ নিরাময়, পাইলস নিরাময়

জেনে নিন অজীর্ণ রোগ বা Atomic Dispepsia কেন হয়?

আমরা যে খাদ্য গ্রহণ করি প্রথমে পাকস্থলীতে গিয়ে পাচকরস, যকৃতের পিত্তরস প্রভৃতির সাহায্যে অর্ধজীর্ণ হয়ে উর্ধ্ব অন্ত্রে জমা হয়। বিভিন্ন পাচক রস, পিত্তরসের সাহায্যে এই অর্ধজীর্ণ খাদ্যকে Pancreas বা অগ্নাশয়ের পাচকপিত্তের সহায়তায় সম্পূর্ণ জীর্ণ করিবার ব্যবস্থা করে। এই খাদ্য সম্পূর্ণ জীর্ণ না হলে পচিয়া বিষাক্ত হয়ে উঠে অন্ত্রের পথ অবরুদ্ধ করিয়া বায়ু চলাচলে বিঘ্ন ঘটায়।

এই অজীর্ণ খাদ্যকে মলনাড়ীও মলরূপে দেহ হইতে বাহির করিতে পারে না। তখন উহা রক্তের মাঝে ছড়াইয়া পরে রক্ত বিষাক্ত হয়ে যায়। তখন এই বিষাক্ত রক্ত শোধন করিবার জন্য প্লীহা, যকৃৎ, মূত্রগ্রন্থি(কিডনি), ফুসফুস প্রভৃতিকে অত্যধিক পরিশ্রম করিতে হয়।

দেহস্থ স্নায়ুগুলিও তখন আর স্বীয় কার্য পালনে সক্ষম হয় না, অবসাদগ্রস্থ হইয়া পড়ে। তখন সমস্ত দেহ ব্যাপিয়াই একটা বিশৃঙ্খলা চলিতে থাকে। দীর্ঘদিন এই রোগ থাকিলে অম্লশূল, পিত্তশূল, পাকস্থলীর ক্ষত, অন্ত্রক্ষত,মূত্র পাথুরী, পিত্ত পাথুরি, ডায়েবিটস, অর্শ, পাইলস্‌ প্রভৃতি নানা সমস্যা দেখা দিবে।

যোগী পিকেবি প্রকাশ, পরিচালক, আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অব ইয়োগ এণ্ড যৌগিক হাসপাতাল।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.