১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:৪৬
সর্বশেষ খবর

” নির্বাচন নিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ভাবনা”

নিলয় চক্রবর্তীঃ

হাতেগোনা কয়েকজন হিন্দু মন্ত্রী, এমপি, নেতা সেইসাথে সারাদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কয়েকশো সুবিধাবাদী, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা প্রাপ্ত হিন্দু নেতাদের অনবরত তৈলমর্দন আর তোষামোদি দেখে সরকার যদি ধরেই নেন বাংলাদেশের হিন্দুরা বেশ সুখে আছেন এবং আসন্ন সংসদ নির্বাচনে চোখ বন্ধ রেখে আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন, বলতে বাধ্য হচ্ছি বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায় তথা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে নিয়ে আপনাদের অর্থাৎ সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের ধারনা ভুল। আপনাদের পালিত হিন্দু নেতা এমপি মন্ত্রীরা কিংবা সুবিধাপ্রাপ্ত তল্পিবাহক হিন্দু নেতারা মুদ্রার এপিঠের গল্প শুনাচ্ছেন! মুদ্রার ওপিঠের ঘটনা কিন্তু সম্পূর্ণ ভিন্ন। জেনে নিন, আপনাদের প্রতি মানে আওয়ামীলীগ সরকারের প্রতি বর্তমান হিন্দু সম্প্রদায়ের সত্যিকার মনোভাব। প্রতিশ্রুতি দিয়েও বিএনপি জামাত জোট আমলে সংগঠিত হিন্দু নির্যাতন গুলোর সঠিক বিচার ১০ বছরেও সম্পন্ন করতে না পারায় বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায় আপনাদের উপর চরম অসন্তুষ্ট, সাধারণ হিন্দুরা এটাকে বিশ্বাস ভঙ্গের সমতুল্য মনে করে। গত ১০ বছরে হিন্দু তথা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর চলমান হামলা, লুটতরাজ, সম্পত্তি জবরদখল, হিন্দু নারীদের ধর্ষণ, অপহরণের পর ধর্মান্তর, মন্দির ও প্রতিমা ভাঙচুর ইত্যাদি বন্ধে আপনাদের গৃহীত পদক্ষেপ মোটেও সন্তোষজনক নয়, যদি সন্তোষজনক হতো তাহলে এসব বন্ধ করতে পারছেন না কেন? শুধু তাই নয়, বহু সংখ্যক আওয়ামীলীগ নেতা, এমপি এমনকি মন্ত্রী পর্যন্ত এসব ঘটনায় জড়িত। এইসব ঘটনায় মামলা মোকদ্দমা কিংবা কিছু আসামী গ্রেপ্তার হলেও সঠিক বিচার পাওয়া নিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের মনে সন্দেহ আছে। কক্সবাজারের রামু, পাবনার সাঁথিয়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর, রংপুরের ঠাকুরপাড়ার তান্ডবের ঘটনা, জেলে রসরাজ এবং টিটু রায়ের বিরুদ্ধে মিথ্যা ধর্ম অবমাননা মামলা, হিন্দুদের ক্ষেত্রে ৫৭ ধারার অপপ্রয়োগ, সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাকে জোড় করে পদত্যাগ এবং দেশত্যাগে বাধ্য করা, এইসব ঘটনা অবশ্যই বড় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করবে সাধারণ এবং সচেতন হিন্দুদের মনে। আরো যেসব বিষয় ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করবে তা হচ্ছে, প্রতিশ্রুতি দিয়েও সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন না করা, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য সরাসরি নির্বাচনের ব্যবস্থা করে সংরক্ষিত আসনের ব্যবস্থা না করা, সংখ্যালঘু কল্যান মন্ত্রণালয় গঠন না করা, অর্পিত সম্পত্তি ইস্যুতে বিশেষ করে “ক” তপশীলের ক্ষেত্রে সরকারের ধীরে চলো নীতি, আলোচিত হিন্দু নির্যাতনের ঘটনাগুলো দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে না করা, দূর্গাপূজায় ৩ দিনের সরকারী ছুটি না দেওয়া। তোষামোদ করা সুবিধাপ্রাপ্ত হিন্দু নেতাদের কথা না ধরে সারাদেশে মাঠপর্যায়ে সাধারণ হিন্দুদের সাথে কথা বলে দেখুন আমি যা বললাম মিথ্যা কিনা??? নির্মম বাস্তবতা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেওয়ার পরও যদি আওয়ামীলীগ হিন্দু সম্প্রদায় তথা দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মনোভাব গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা না করে, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে (সুষ্ঠ এবং নিরপেক্ষভাবে হলে) ভোটব্যাংকে ধ্বস নামবেই।

শেয়ার করুন...
"মধু হই হই বিষ খাওয়াইলা"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.