বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ০৯:৩৫ পূর্বাহ্ন

চলো ঘুরে আসি নন্দন পার্ক

নন্দন পার্ক

মো. আমির সোহেলঃ  সাভারের নবীনগর-চন্দ্রা হাইওয়ের বাড়ইপাড়া এলাকায় দৃষ্টিনন্দন বিনোদন কেন্দ্র নন্দন পার্ক। নন্দন পার্ক ঢাকার কাছে একটি আন্তর্জাতিক মানের বিনোদন কেন্দ্র। আন্তর্জাতিক মানের রাইড এবং নিরাপদ ও মনোরম পরিবেশের কারনে ইতিমধ্যেই পার্কটি ভ্রমণ পিয়াসীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সাভারের নবীনগর-চন্দ্রা হাইওয়ের বাড়ইপাড়া এলাকায় প্রায় ৩৩ একর জমির ওপর ২০০৩ সালের অক্টোবর মাস থেকে নন্দন থিম পার্কের যাত্রা শুরু। থিম পার্কের সামনে প্রায় ১,৫০০ গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে। নন্দন থিম পার্কটির বিশেষত্ব হচ্ছে সবুজের সমারোহ। হাঁটতে হাঁটতে ক্লান্ত হলে/জিরিয়ে নিতে বসতে পারেন ঘাসের সবুজ গালিচাতে।

আন্তর্জাতিক মানের রাইড, মানসম্পন্ন খাবারের দোকান ও প্রাকৃতিক পরিবেশ সত্যিই ভ্রমণকারীদের বারংবার নন্দন পার্কে আসার ইচ্ছা জাগায়। প্রবাসী বাংলাদেশী বিনিয়োগকারীদের অর্থায়নে নন্দন গ্রুপ এবং ভারতের বৃহত্তম পার্ক পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান নিকো পার্কস অ্যান্ড রিসোর্টস লিমিটেডের সাথে যৌথ উদ্যোগে এই পার্ক প্রতিষ্ঠিত। রাজধানী ঢাকার নিকটে নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কে বিকেএসপি ও চন্দ্রার মাঝামাঝি সাভারের বাড়ইপাড়ায় ৬০ বিঘা জায়গার উপর পার্কটি অবস্থিত।

নন্দন পার্কের আকর্ষণীয় রাইডঃ

জিপ রাইড : ৪৫ ফুট উচ্চতাবিশিষ্ট টাওয়ার থেকে ৪৫ ডিগ্রি স্লোপে ১৪ মি.মি. স্টিল ওয়ারের সাহায্যে স্যান্ডিং পয়েন্টে বা ভূমিতে অবতরণ করতে হয়। এটি একটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় রোমাঞ্চকর রাইড।

রক ক্লাইম্বিং: এই রাইডটি ৪৫ ফুট উচ্চতাবিশিষ্ট ৯০ ডিগ্রি খাড়া একটি টাওয়ারে পর্বতাকৃতি করে তৈরি করা হয়েছে। ওই পর্বতের গায়ে লাগানো কৃত্রিম পাথর বেয়ে পর্বতারোহণ করতে হবে এই দুঃসাহসিক খেলায়। আরোহণকারীর নিম্ন পতন রোধের জন্য রয়েছে বিশেষ ধরনের নিরাপত্তাব্যবস্থা।

র‌্যাপলিং : বর্তমান প্রযুক্তির যুগে র‌্যাপলিং একটি অত্যন্ত সহজ ও আনন্দদায়ক রাইড। এটাও ৪৫ ফুট উঁচু টাওয়ারের ওপর থেকে টাওয়ারের খাড়া গা বেয়ে স্ট্যাটিক রোপের সাহায্যে কৃত্রিম পাথরে র‌্যাপলার, পা দু’টি একসঙ্গে কাঁধ বরাবর বাঁকা করবে এবং হাঁট ৯০ ডিগ্রি সোজা করে টাওয়ারের গায়ে জোরে ধাক্কা মেরে পেছনে যাবে এবং একই সময় হাতের মধ্যে স্ট্যাটিক রোপ রিলিজ করে নিচে অবতরণ করতে হবে এই দুঃসাহসিক খেলায়।

চ্যালেঞ্জ কোর্স : এটা অ্যাডভেঞ্চার জোনের আরো একটি দুঃসাহসিক ও রোমাঞ্চকর রাইড। এই রাইডটি বার্মা ব্রিজ, প্লাংক পেন্ডুলাম, প্যারালাল রোপ ও হর্স পেন্ডুলামের সমন্বয়ে গঠিত। প্রতিটি রাইডের উচ্চতা ১৮ ফুট এবং দৈর্ঘ্য ২৪ ফুট।

অবস্ট্যাকল কোর্স : এই রাইডটি সম্পূর্ণভাবে ৫ থেকে ১০ বছরের শিশুদের জন্য। এই রাইডটি উপভোগ করার সময় রাইডারের নিরাপত্তার জন্য অভিভাবক সঙ্গে থাকবেন এবং নিরাপত্তা বিধান করবেন। মাত্র ৬০ টাকার টিকিটের বিনিময়ে এই রাইডগুলো উপভোগ করা যাবে। এ রাইডগুলোর ব্যবহারের নিয়মনীতি ও নিরাপত্তানীতি কঠোরভাবে মেনে চললে দুর্ঘটনার কোনো অবকাশই নেই।

অ্যাডভেঞ্চার রাইড, ওয়াটার ওয়ার্ল্ড, ওয়াটার কোস্টার, ক্যাবল কার, আইসল্যান্ড, টাইটানিকসহ এ পার্কে রয়েছে বিশ্বমানের ২৮টি রাইড।

ফাইভ-ডি সিনেমা থিয়েটার : নন্দন পার্ক বাংলাদেশে বিনোদনের ইতিহাসে সংযোজন করেছে এক নতুন মাত্রা। বাংলাদেশে এই প্রথম নন্দন পার্কে স্থাপিত হয়েছে ‘ফাইভ-ডি সিনে মা থিয়েটার’ প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের এক নবতর সংযোজন, যা আপনাকে দেবে এক অসাধারণ মজার অভিজ্ঞতা। ‘ফাইভ-ডি সিনেমা থিয়েটার’ এ আপনার বসার চেয়ারটি বিশেষভাবে সংযোজিত, যা নির্দিষ্ট ধারায় ছবির কাহিনীর সাথে তাল মিলিয়ে নড়াচড়া করবে। অর্থাৎ এখানে আপনি সিনেমার গল্পের সাথে সক্রিয় চরিত্র হিসেবে অংশগ্রহণ করবেন।

নন্দন পার্ক ওয়াটার ওয়ার্ল্ড নন্দন ড্রাই পাকের্র সাথে ওয়াটার ওয়ার্ল্ড নিয়ে এসেছে পানির রোমাঞ্চকর সব খেলা, যা আনন্দের এবং গরমে প্রাণ জুড়ানো। এখানে সব মজা করতে পারেন পরিবারের সবাই। নন্দন ওয়াটার ওয়ার্ল্ডের রাইডের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে ওয়েভ পুল : সমুদ্রের স্বাদ নিয়ে এলো ওয়েভ পুল। সমুদ্রের মজা পাওয়ার জায়গা সমুদ্র ছাড়া এই একটাই। নানান ঢেউয়ের মেলা এখানে। হালকা ঢেউ, ভারী ঢেউ , উত্তাল ঝোড়ো ঢেউ। ঢেউয়ের সাথে নাচবে মন, সাথে শরীর যাবে ভেসে। স্যুট ও ফ্যামিলি কার্ভ টিউব স্লাইড : প্রায় তিন তলা সমান উচ্চতা থেকে দু’টি ভিন্ন ধরনের টিউবের ভেতর দিয়ে সোজা পানিতে। প্যাঁচানো পথে রাবারের ভেলায় চেপে পানির সাথে স্লাইড করে নামা। এ রাইডে আছে জোশ, আছে উত্তেজনা।

ওয়েভ রানার : একেবারে নয়, কিছুটা গড়িয়ে, স্লাইড করে তীব্র গতিতে নামা, এর নাম ওয়েভ রানার। দারুণ থ্রিলিং এক ফান গেম। প্রায় ৭০ ফুট ওপর থেকে রাবারের ভেলা বা ম্যাটে চড়ে টিউবের মাঝ দিয়ে সোজা গিয়ে পড়া নন্দন সাগরের মাঝে, মানে পুলে। এক অন্য রকম আনন্দ। এ যেন সমুদ্রের উঁচু ঢেউয়ের ওপর দিয়ে সারফেসিং করে ভেসে যাওয়া। এ রাইড প্রচণ্ড উত্তেজনার।

ডুম স্লাইড : পানির মাঝে ছোট্ট পাহাড়, পানির মাঝে ঢেউ, ডুম স্লাইডের পাহাড় থেকে গড়িয়ে পড়ে কেউ। পুলের মাঝখানে এ স্লাইডের মজা বেশ। হাত-পা ছড়িয়ে পানির মাঝে পিছলে পড়ার মজা মানেই ডুম স্লাইড। সোজা হয়ে চিৎ হয়ে কিংবা কাৎ হয়ে ইচ্ছেমতো গড়িয়ে পানিতে মাছের মতো সাঁতার কিংবা হুটোপুটি। ডুম স্লাইড। হলো মজার পাহাড়, যার ওপরে আছে এক ঝরনা। পাহাড় থেকে গড়িয়ে পানিতে পড়ার আনন্দ এনে দেয়ে ডুম স্লাইড।

মাল্টি প্লে জোন : পানিতে মজার খেলার জায়গা। যেখানে খেলা আছে ধুলা নেই। পানির রাজ্যে ধুলা আসবে কোথা থেকে? সাঁতার শেখা আর খেলা দুটোই হবে এখানে। এখানে আছে দোলনার দোল আর আছে স্লিপার। এক জাদুর বালতি ওপর থেকে ঢেলে দেবে রাশি রাশি পানির ফোয়ারা। এখানে নামা মানে বাসার কথা ভোলা। সারাদিন পানির মাঝে খেলা। ছোটদের এখানে ডুবে যাওয়ার ভয় নেই, আছে অপার আনন্দে ভেসে যাওয়ার মজা।

ওয়াটার ফল অ্যান্ড মিস্ট : ওয়াটার ফল অ্যান্ড মিস্টে এলে পাওয়া যাবে কুয়াশার মতো এক মিস্ট, যা ছড়িয়ে থাকে এলাকাজুড়ে। এক জলপ্রপাত থেকে পানি পড়ছে জলপ্রপাতের কিনারায় দাঁড়িয়ে দেখা যাবে ইলশেগুঁড়ির চেয়ে এক মিহি বৃষ্টি ঝরছে চার পাশে। আরো আছে নানা চমক জাগানো আলোর খেলা। নন্দন ওয়াটার ওয়ার্ল্ডের এ এক রহস্যময় জায়গা। আছে মিউজিক আর

ওয়াটার ফল অ্যান্ড মিস্ট : ওয়াটার ফল অ্যান্ড মিস্টে এলে পাওয়া যাবে কুয়াশার মতো এক মিস্ট, যা ছড়িয়ে থাকে এলাকাজুড়ে। এক জলপ্রপাত থেকে পানি পড়ছে জলপ্রপাতের কিনারায় দাঁড়িয়ে দেখা যাবে ইলশেগুঁড়ির চেয়ে এক মিহি বৃষ্টি ঝরছে চার পাশে। আরো আছে নানা চমক জাগানো আলোর খেলা। নন্দন ওয়াটার ওয়ার্ল্ডের এ এক রহস্যময় জায়গা। আছে মিউজিক আর আলোর খেলা। ওপর থেকে পড়ছে বৃষ্টির অঝোর ধারা। মনে হবে যেন প্রাকৃতিক বৃষ্টির মধ্যে আপনি ভুলে যাবেন বর্তমান, মিউজিকের তালে ফিরে পাবেন আপনার স্মৃতিময় দিনগুলো। আর সুরের মূর্ছনায় মন নেচে উঠবে। হবে ফান আর মাস্তি।

ওয়াটার গেমস বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফান গেমস আর ওয়াটার পার্কগুলো সবচেয়ে জনপ্রিয় বিনোদন পার্ক হিসেবে বিবেচিত। এখন বাংলাদেশের সর্ব প্রথম নন্দন ওয়াটার ওয়ার্ল্ডে রয়েছে সেই ওয়াটার রাইডগুলো ।

যেহেতু ওয়াটার ফানের মজা পেতে গেলে বিশেষ পোশাকের দরকার, তাই ওয়াটার ওয়ার্ল্ডে রয়েছে লকার ও চেঞ্জ রুম। আছে এক্সট্রা পোশাক ও তোয়ালে। ওয়াটার ওয়ার্ল্ডের পানি প্রতিদিন বিশেষ প্রক্রিয়ায় পারিষ্কার করা হয়। যার ফলে পানি সবসময়ই থাকে স্বচ্ছ ও জীবাণুমুক্ত।

ওয়াটার ওয়ার্ল্ডের ফান গেমগুলো এমন ভাবে তৈরি যেখানে পানিতে ডুবে যাওয়ার ভয় নেই, সাঁতার জানা বা না জানা যে কেউ এর মজা করতে পারবে। নন্দনের সব রাইড ভয়হীন উত্তেজনার। ওয়াটার ওয়ার্ল্ডে নেই আহত হওয়ার ভয়।

নন্দন পার্কে প্রবেশ মূল্যঃ
১। প্রবেশ মূল্য – ২৯৫ টাকা জনপ্রতি (সাথে ড্রাই পার্কের ০২ টি রাইড ফ্রি)
২। ষ্ট্যাণ্ডার্ড প্যাকেজ – ৪২৫ টাকা জনপ্রতি (প্রবেশ সহ ড্রাই পার্কের ১০ টি রাইড ফ্রি)
রাইড গুলো – কেবলকার, ওয়াটার কোস্টার, ক্যাটার পিলার, মুন রেকার, প্যাডেল বোট, ফান গেম, নেট ও বল, টিলট এ হুইরল, রক ক্লাইম্বিং, জিপ স্লাইড। (বাচ্চাদের রাইড, আইস ল্যান্ড, সফট বল ক্যানন, বাম্পার কার ও ফাইভ ডি সিনেমা ছাড়া)।
৩। ওয়াটার ওয়ার্ল্ড প্যাকেজ- ৫৪০ টাকা জনপ্রতি (প্রবেশ সহ ওয়াটার ওয়ার্ল্ড এর সব রাইড ফ্রি)। ড্রাই পার্কের কোন রাইড অন্তর্ভুক্ত নয়।
৪। সুপার সেভার প্যাকেজ- ৬১০ টাকা জনপ্রতি (প্রবেশ সহ ওয়াটার ওয়ার্ল্ড এর সব রাইড ও ড্রাই পার্কের ১০ টি রাইড ফ্রি)। (বাচ্চাদের রাইড, আইস ল্যান্ড, সফট বল ক্যানন, বাম্পার কার ও ফাইভ ডি সিনেমা ছাড়া)।
৫। সম্পূর্ণ পার্ক প্যাকেজ – ৬৯৫ টাকা জনপ্রতি (প্রবেশ সহ ওয়াটার ওয়ার্ল্ড এর সব রাইড ও ড্রাই পার্কের ১৪ টি রাইড ফ্রি)। (বাচ্চাদের রাইড,ছাড়া)।
৬। সম্পূর্ণ পার্ক প্যাকেজ ও লাঞ্চঃ – ৮৯৫ টাকা জনপ্রতি (দুপুরের খাবার – চিকেন বিরিয়ানি, মিনারেল ওয়াটার, সফট ড্রিংক এবং প্রবেশ সহ ওয়াটার ওয়ার্ল্ড এর সব রাইড ও ড্রাই পার্কের ১৪ টি রাইড ফ্রি। (বাচ্চাদের রাইড ছাড়া)।
৭। ফ্যামিলি প্যাকেজ – ০৪ জনের জন্য ৩৪০০ টাকা। (দুপুরের খাবার – চিকেন বিরিয়ানি, মিনারেল ওয়াটার, সফট ড্রিংক এবং প্রবেশ সহ ওয়াটার ওয়ার্ল্ড এর সব রাইড ও ড্রাই পার্কের ১৪ টি রাইড ফ্রি,। (বাচ্চাদের রাইড ছাড়া)।

খোলা ও বন্ধের সময়সূচীঃ
রবিবার থেকে বৃহস্পতিবারে সকাল ১১ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শুধুমাত্র শুক্রবার সকাল ১০ টা থেকে রাত ৮ ট পর্যন্ত খোলা থাকে।

কিভাবে যাওয়া যায়ঃ
ঢাকার মতিঝিল থেকে এখানে বাসযোগে পৌঁছতে সময় লাগে প্রায় দুই ঘন্টা। হানিফ, সুপার ও আজমেরী বাস সার্ভিস যোগে নন্দনে যাতায়াত করা যায়। আবাবিল পরিবহন মতিঝিল থেকে ছেড়ে গুলিস্তান, মগ বাজার, মহাখালি, বনানি, উত্তরা, আশুলিয়া ইপিজেড হয়ে যায়।

যোগাযোগঃ
নন্দন পার্ক লিমিটেডেঃ
মোবাইল ০১৭৫৫৬৪৬৮০৫, ০১৭৫৫৬৪৬৮০৯, ০১৭৫৫৬৪৬৮২৯, ০১৭৫৫৬৪৬৮৩০
ওয়েব সাইটঃ www.nandanpark.com

অন্যান্য সুবিধাঃ
নন্দন পার্কটি উদ্বোধনের পর থেকেই বিশেষ দিন যেমন স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, ঈদ, পূজা, পয়লা বৈশাখ ও বিভিন্ন উপলক্ষে কনসার্টের আয়োজন হয়ে আসছে। তা ছাড়া করপোরেট পিকনিক, সভা/সেমিনার, মিটিংয়ের আয়োজন করা যায় এখানে।

তা ছাড়া পার্কের রয়েছে নিজস্ব রেস্টুরেন্ট। কেউ ইচ্ছে করলে রেস্টুরেন্টে অর্ডার দিয়ে নিজেদের প্রয়োজনমতো খাবার সংগ্রহ করতে পারেন।রয়েছে সুনিশ্চিত নিরাপত্তাব্যবস্থা ও হকার মুক্ত পরিবেশ।

নন্দন পার্কটি উদ্বোধনের পর থেকেই বিশেষ দিন যেমন- স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, ঈদ, পূজা, পয়লা বৈশাখ ও বিভিন্ন উপলক্ষে কনসার্টের আয়োজন হয়ে আসছে। তা ছাড়া করপোরেট পিকনিক, সভা/সেমিনার, মিটিংয়ের আয়োজন করা যায়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit