২০শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১২:০৭
সর্বশেষ খবর
নির্বাচনকালীন সরকার

যাদের নিয়ে নির্বাচনকালীন সরকারের কাঠামো

বিশেষ প্রতিবেদকঃ আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সুষ্ঠু অবাধ ও সংবিধান সম্মত করার জন্য বর্তমান সরকারের নীতিনির্ধারক ও শাসনতন্ত্র বিশেষজ্ঞরা বসে যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বলে জানা যায় তা নিম্নরূপ। সর্বোচ্চ ২০ থেকে ৩০ সদস্যের একটি নির্বাচনকালীন সরকার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্বে গঠিত হবে যার সদস্য হিসেবে থাকবেন বর্তমান সংসদের বিভিন্ন দল থেকে নির্বাচিত সদস্যগণ এবং টেকনোক্র্যাট কোটায় থাকবেন ২ থেকে ৩ জন নেতা যেসব দলের সংসদ সদস্য বর্তমান সংসদে নেই অর্থাৎ বিএনপি এবং অন্যান্য দল সেই হিসাবে টেকনোক্র্যাট কোথায় যারা নির্বাচনকালীন সরকারে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন তাদের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, কর্নেল অলি আহমেদ এবং বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিক এর নাম বিশেষভাবে আলোচনা স্থান পাচ্ছে। মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে যাদের থাকার সম্ভাবনা বেশি তারা হলেন বর্তমান সরকারেরই অধিকাংশ মন্ত্রী তবে ৮ থেকে ১০ জন নতুন মুখ মন্ত্রিসভাকে গ্রহণযোগ্য ও চমক সৃষ্টি করার জন্য অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলেও জানা যাচ্ছে।

সংবিধান অনুযায়ী ১০% টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী নিয়োগ করার যে সুযোগ রয়েছে সেই সুযোগই বিরোধীদলকে অন্তর্ভুক্ত করার কাজে বর্তমান সরকারের নীতিনির্ধারকরা ব্যবহার করতে চান, অন্যথায় তারা আগ্রহী দলগুলোকে নিয়ে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করবে। কারণ সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে যদি নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হয় তাহলে সেই সরকারের সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে গুরুতর প্রশ্ন উত্থাপিত হবে। পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে অনির্বাচিত সরকার ব্যবস্থা অনুসরণ করার কোন সুযোগ বর্তমানে নেই আগেও ছিল না। মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের রায় এ ব্যাপারে একটি বড় ধরনের আলোকবর্তিকা হিসেবে কাজ করছে। বর্তমান সরকার কোনোভাবেই ত্রুটিযুক্ত নির্বাচন করতে চান না কারণ প্রধানমন্ত্রী যদি সরকার প্রধান থাকে, তাহলে কোন সংসদের দ্বারা তিনি সরকার পরিচালনা করছেন বা সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে তিনি প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করছেন সেই প্রশ্নটি সামনে আসবে অপরে আর অনির্বাচিত সরকার এর দ্বারা ১ ঘন্টার জন্য রাষ্ট্র পরিচালনা করার কোনো সুযোগ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান অবশিষ্ট নেই। যদি সেই পথে যাবার কোনো রকম চেষ্টা করা হয় তাহলে এই অনির্বাচিত সরকারের ধারণা দীর্ঘায়িত হবে এবং নির্বাচিত সরকার ব্যবস্থার এবং চর্চার ক্ষেত্রে বড় ধরনের হুমকি সৃষ্টি হবে।

বর্তমান সরকার প্রধান অত্যন্ত সতর্কতার সাথে সেই বিষয়টি সামনে রেখেই কয়েকদিন আগে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা অত্যন্ত প্রণিধানযোগ্য যদি এই সংসদের নির্বাচিত সরকারের মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালিত হলে এবং নির্বাচনকালীন সময়ে কোন বিশৃঙ্খলা ও নাশকতা বা অশান্তি সৃষ্টি  হলে বর্তমান সরকার সংবিধান অনুযায়ী মহামান্য রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে বর্তমান সংসদের বৈঠক আহবান করবেন এবং এই সরকার ও সংসদের মেয়াদ তিনি সম্প্রসারিত করে নেবেন এই ক্ষেত্রেও সংবিধানে যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে তাই সরকার কোনোভাবেই কোনো ধরনের ঝুঁকি নিতে আগ্রহী নয়। বর্তমান সরকার দেশে গণতন্ত্র ও শাসনতন্ত্রের আবার বিরোধীদলের সন্মান রক্ষা করার জন্য তাদের প্রতিনিধিকে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করতে চান এরপর বিরোধী দলগুলোর রাজি না হয়, তাহলে তাদের বাদ দিয়েই সরকার সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.