মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৪:০৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

বিএনপির সমাবেশে নেতারা যা বললেন

বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী

বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি দুই দিনের কর্মসূচি নিয়েছে। যারই অংশ হিসাবে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শনিবার দুপুর ২টা থেকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর জনসভা শুরু হয়।

জনসভাকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই রাজধানী ও এর আশপাশের এলাকার বিএনপি নেতাকর্মীরা বিভিন্ন ব্যানার ও মিছিল নিয়ে নয়াপল্টনে জমায়েত হতে শুরু করে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জনসমাগম ছড়িয়ে পড়ে ফকিরাপুল মোড় থেকে নাইটেঙ্গল মোড় পর্যন্ত।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, এ দেশে খালেদা জিয়া ও বিএনপি ছাড়া অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে না। সারা দুনিয়া চায় অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। নেতাকর্মীদের আন্দোলনে নামতে হবে।

তিনি বলেন, ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আজ দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছি, কারণ দলের চেয়ারপারসন কারাগারে। আওয়ামী লীগ বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে রাজনৈতিক শূন্যতার সৃষ্টি করেছিল। জিয়াউর রহমান সেই শূন্যতাপূরণ করেন। আওয়ামী লীগ যেখানে ব্যর্থ হয়েছে, জিয়াউর রহমান সেখানে সফল হয়েছেন, সেজন্য বিএনপিকে তারা এত ভয় পায়।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন ও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে সরকার দাবি মেনে নেয়ার কথা বলে ওয়াদা ভঙ্গ করেছে। এর মাসুল আওয়ামী লীগ সরকারকে দিতে হবে। তরুণ প্রজন্ম আর কোনোদিন আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে না।

তিনি বলেন, দেশের সবচেয়ে বড় ট্রাজেডি ৪৭ বছর পরও গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করতে হচ্ছে। এ লড়াই এ আমাদের জয়ী হতে হবে। আইনজীবীরা খালেদা জিয়ার জামিনের জন্য যতবার চেষ্টা করেছে, ততবার সরকার আটকে দিয়েছে। আইনি প্রক্রিয়ায় নেত্রীর মুক্তি সম্ভব নয়, তার মুক্তির একমাত্র পথ রাজপথ, তাই রাজপথে আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে হবে।

বিএনপির স্থানীয় কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, তারেক রহমানের অপরাধ তিনি জিয়াউর রহমানের বড় ছেলে, তার অপরাধ তিনি খালেদা জিয়ার বড় ছেলে। সরকার নানাভাবে দেশের মানুষের অধিকার কেড়ে নিয়েছে। এবার ভোটের অধিকার কেড়ে নিতে চায়। তাই চার হাজার কোটি টাকার প্রজেক্ট নতুন ইভিএম আনতে চায়।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আজকে গণতন্ত্র গুম, গঠনতন্ত্রের মা খালেদা জিয়া কারাগারে। খালেদা জিয়া মুক্তি পেলেই নির্বাচনে যাব কে বলেছে? সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নিরপেক্ষ সরকার, হুদা কমিশনের পরিবর্তন করতে হবে, সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনাকে বলতে চাই, খালেদা জিয়াকে যদি বেশি দিন আটক রাখেন তাহলে জেলখানায় তার সঙ্গে দেখা হতে পারে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য জমির উদ্দিন সরকার বলেছেন, জিয়াউর রহমানের নাম এদেশের জনগণ কখনও ভুলে যাবে না। কারণ বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে সমৃদ্ধশালী করেছিলেন তিনি।

জমির বলেন, দেশে এখন গণতন্ত্র নেই, এভাবে দেশ চলতে পারে না। বিএনপি ক্ষমতায় আসলে আবার সু’দিন আসবে, দেশ ভালোভাবে চলবে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit