২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:৫৫
সর্বশেষ খবর

চট্টগ্রামে ভারতীয় গরু না থাকায় খুশি দেশীয় বিক্রেতারা

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঈদুল আজহায় ভারতীয় পশু বাজারে আসার কারণে এক ধরণের অস্থিতিশীলতা ছিলো। দেশীয় খামারি ও বিক্রেতারা অনেকটা বেকায়দায় পড়তেন। তবে এবার ভারতীয় সীমান্তে কড়াকড়ির কারণে দেশের অন্যান্য বাজারগুলোর মতো চট্টগ্রামের বাজারেও ভারতীয় পশুর সংখ্যা নগণ্য। ফলে বিক্রেতারা যেমন খুশি, তেমনি ক্রেতারাও দাম পরিবর্তনের আশা না করে আগেভাগেই পশু কিনে নিচ্ছেন।

এমনিতেই দেশের অন্যান্য অঞ্চলের চেয়ে চট্টগ্রামের বাজারে দেশীয় পশুর চাহিদা বেশি। চট্টগ্রাম নগরীর আশপাশের উপজেলাগুলোতে স্থানীয়ভাবে পালিত গরুর প্রতি বেশি ঝোঁক স্থানীয় ক্রেতাদের। অনেকটা বেশি দামে হলেও কিছুটা মাঝারি গড়নের এসব পশু কিনে নেন স্থানীয়রা। যদিও অংশীদারি ভিত্তিতে কোরবানি দেওয়ার ক্ষেত্রে দাম কমের জন্য অনেকে ভারতীয় গরু কিনেছেন গত কয়েক বছর ধরে। তবে এবার এই চিত্র পাল্টে যাবে বলে মনে করছেন পশু ব্যবসায়ীরা।

চট্টগ্রাম গবাদি পশু ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সভাপতি মো. শফিকুর রহমান দি নিউজকে বলছিলেন, এবারের বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণে স্থানীয় গরু আছে। দেশের উত্তরাঞ্চলসহ অন্যান্য জেলা থেকেও প্রচুর গরু এসেছে। আগের বছরগুলোতে এই সময়ে অনেকে অপেক্ষায় থাকেন যদি ভারতীয় গরু আসে তাহলে দাম কিছুটা কমতে পারে। তবে এবার ভারত থেকে গরু কম আসায় কেউ দাম পরিবর্তনের আশা করছেন না। ফলে অনেকেই আগেভাগে পশু কিনে নিচ্ছেন।

যদিও বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, শনিবার পর্যন্ত বেচাকেনায় তারা সন্তুষ্ট নন। তবে তাদের আশা রবি ও সোমবার প্রচুর পরিমাণে বেচা বিক্রি হবে। তেমনই একজন চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার গরু ব্যবসায়ী আজিজুল হক। তিনি দি নিউজকে বলছিলেন, তার নিজের খামারের ৪০টি গরু তিনি সাগরিকা ও বিবিরহাট বাজারে তুলেছেন। গত দুইদিনে মাত্র তিনটি গরু বিক্রি হয়েছে। ক্রেতারা দর কষাকষি করেছে বেশি।

তবে কর্ণফুলী বাজারে আসা উত্তরাঞ্চলের পশু ব্যবসায়ী আলম হোসেন দি নিউজকে জানান, তিনি ২৫টি দেশীয় গরু মোটাতাজা করে এনেছেন। এরমধ্যে তিনদিনে ছয়টি গরু বিক্রি করেছেন। তবে তিনি বাকী গরুগুলো শীঘ্রই বিক্রি হয়ে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় পশুর হাট হচ্ছে সাগরিকা ও বিবিরহাট বাজার। এছাড়াও স্টিলমিল, পতেঙ্গা সিটি করপোরেশন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ, কমল মহাজন হাট, কর্ণফুলী নূর নগর হাউজিং সোসাইটি পশুর বাজারেও ইতিমধ্যে কেনাবেচা বেড়েছে।
বিবিরহাট বাজারের ইজারাদার জামশেদ খান দি নিউজকে জানান, বাজারে ক্রেতাদের ঢল দেখে তারা আশাবাদী।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.