১৯শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:১৭
সর্বশেষ খবর
মাগুরার শ্রীপুরে ভূয়া সাংবাদিক আটক

মাগুরার শ্রীপুরে ২ ভূয়া সাংবাদিক আটক

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার তখলপুর গ্রামে সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজী করতে গিয়ে হালিমা খাতুন (২৮) ও মানিক বিশ্বাস (৩২) নামে ২ ভূয়া সাংবাদিক গণধোলাইয়ের শিকার হয়ে শনিবার বিকেলে পুলিশের নিকট আটক হয়েছে ।

তখলপুর হাতেম আলী দাখিল মাদ্রাসার সভাপতি ও ইউপি সদস্য কাজী আব্দুর রউফ জানান, উপজেলার বড়তলা গ্রামের বাটুল শেখের কন্যা হালিমা খাতুন ও তার কথিত স্বামী বারইপাড়া গ্রামের মৃত মোদাচ্ছের বিশ্বাসের পুত্র মানিক বিশ্বাস দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সাংবাদিক পরিচয়ে নিরীহ লোকজনদের বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদাবাজি করে আসছিল।

সম্প্রতি তখলপুর গ্রামের ইদ্রিস বিশ্বাসের স্ত্রী আছিয়া বেগমের নিকট থেকে ৫ হাজার টাকা, আশরাফ জোয়াদ্দারের নিকট থেকে ৫ হাজার টাকা, চরকচুয়ার মকবুল হোসেনের নিকট থেকে ২ হাজার টাকা ও হোগলডাঙ্গা, মহেশপুর, বারইপাড়াসহ বিভিন্ন গ্রাম ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে অসংখ্য নিরীহ পরিবার ও প্রধান শিক্ষককে জিম্মি করে চাঁদাবাজি করে আসছিল। এরই একপর্যায়ে শনিবার দুপুরে তখলপুর গ্রামের হতদরিদ্র পান্নু বিশ্বাসের বাড়িতে গিয়ে তার কন্যার বিবাহ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কথিত সাংবাদিক হালিমা ও মানিক ওই পরিবারের কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। তাদের চাহিদামত টাকা পরিবারের লোকজন পরিশোধ করতে না পারলেও ধার-কর্জ করে ২ হাজার ৫ শত টাকা প্রদান করে। প্রদানকৃত টাকাতে তারা খুশী না হওয়ায় পরিবারের লোকজনসহ পান্নু বিশ্বাসের কন্যা তখলপুর হাতেম আলী দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী ইয়াসমিন খাতুনের নামে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশসহ তাকে ধরে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেয়। এরপর ওইদিন দুপুর দেড়টার দিকে আটককৃত ব্যক্তিরা মাদ্রাসায় ঢুকে উক্ত ছাত্রীকে ক্লাস থেকে বাইরে ডেকে নিয়ে ক্যামেরায় ছবি তোলাসহ বিভিন্ন রকম ভয়ভীতি দেখায়। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার লোকজন, মাদ্রাসার সুপারসহ অন্যান্য শিক্ষকদের সহায়তায় তাদের দু’জনকে আটক করে গণধোলাই দেয়। সংবাদ পেয়ে শ্রীপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিকাল সাড়ে চারটার দিকে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

শ্রীপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এস.আই হামিদুল ইসলাম জানান, সংবাদ পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছে কথিত সাংবাদিক হালিমা এবং মানিককে আটক করতে সক্ষম হয়েছি। আটকের পর তাদের কাছে সাংবাদিকতার কোন বৈধ পরিচয়পত্র এবং বিবাহের কোন প্রমাণাদি পাওয়া না গেলেও তারা নাকি ঢাকা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন পত্রিকা অপরাধ তথ্যচিত্র ও যশোর থেকে প্রকাশিত দৈনিক সত্যপাঠ পত্রিকার ভিজিডিং কার্ড দেখিয়ে অপকর্ম করছিল বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.