১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:১৫
বাগেরহাটে প্রকৌশল দপ্তরের হিসাব সহকারী

আইনের চাখে ফাঁকি বাগেরহাটে প্রকৌশল দপ্তরের হিসাব সহকারীর বদলী ঠেকাতে বিভিন্ন মহলে দৌর ঝাপ

এস.এম. সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট অফিস: বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলায় আইনকে বৃদ্ধা আঙ্গলী দেখিয়ে সরকারি নিয়মকে উপক্ষে করে নিজ ইচ্ছাকে বাস্তবায়ন করলেন প্রকৌশলী দপ্তরের কর্মরত হিসাব সহকারীর মো. আব্দুস সাত্তার শিকদার বদলি হওয়া সত্তে¡ও প্রায় ১মাস অতিবাহিত হলেও আজ পর্যন্ত তার বদলির আদেশ কার্যকরী হয়নি বরং বদলী ঠেকাতে বিভিন্ন মহলে দৌর ঝাট।

হিসাব সহকারীর মো. আব্দুস সাত্তার শিকদারের গত মাসের ১৬ জুলাই তার বদলির বদলি আদেশ দেয়া হয়। স্থানীয় প্রকৌশলী অধিদপ্তর খুলনা অঞ্চলের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী (চ:দ:)খলিফা মোঃ আবুল কালাম আজাদ স্বাক্ষরিত আদেশে যার স্মারক নং  ৪৬.০২.০০০০.১৪০.১৯.০০৪.১৭.৪৬৮.১(৮)  এ অফিস আদেশ দেন। তাকে বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার কচুয়া উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তরের হিসাব সহকারীর শূণ্য পদে বদলি করা হয়। এ আদেশ জনস্বার্থে জারী ও অবিলম্বে কার্যকরী করা হবে বলে অফিস আদেশে জানানো হয়। এ অফিস আদেশের অনুলিপি অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অতিরিক্ত  প্রধান প্রকৌশলী (খুলনা), তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী (প্রশাসন) ঢাকা, নির্বাহী প্রকৌশলী বাগেরহাট ও উপজেলা প্রকৌশলীতে প্রদান করা হয়।

হিসাব সহকারীর মো. আব্দুস সাত্তার শিকদার বদলির আদেশের কথা স্বীকার করে বলেন, এ বদলির আদেশ ফিরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। উপজেলা প্রকৌশলী আশিক ইয়ামিন জানান, তিনি এখনো পর্যন্ত বদলির আদেশের কোন অফিসিয়ান চিঠি পাইনি।  উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান এ বদলির আদেশ ও কার্যকরীর বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন বদলির অর্ডারের কোন আদেশ পাননি বলে জানান। তিনি আরো জানান বদলী যখন হয়েছে তখন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

স্থানীয় প্রকৌশলী অধিদপ্তর খুলনা অঞ্চলের তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী (চ: দ:)খলিফা মোঃ আবুল কালাম আজাদ জানান অমি বদলীর আদেশ করে তা সাথে সাথে উপজেলা প্রকৌশলী আশিক ইয়ামিন এর মেইলে দিয়ে দিয়েছি।

উল্লেখ্য উক্ত হিসাব সহকারীর মো. আব্দুস সাত্তার শিকদারের নিজ জন্মভূমি মোরেলগঞ্জ উপজেলা হওয়ার কারনে স্থানীয় প্রভাব খাটিয়ে সরকারি নিয়মের কোন তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন অনিয়মের সাথে জড়িয়ে পড়েন। সরকারি নিয়ম কানুন না মেনে নিজ ইচ্ছামতো অফিস করেন। এ সকল অনিয়মের কথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: কামরুজ্জামান জানতে পড়লে এ বছরের প্রথম দিকে তার অফিস রুমে নিজে তালা বন্ধ করে দেন। এ সকল অনিয়ম তার কাছে সবই নিয়োম।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.