১৮ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩৪
ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ

আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞান অপব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে আইন করা হচ্ছে : ভূমিমন্ত্রী

মোঃ লালন মিয়াঃ  আধুনিক প্রযুক্তি জ্ঞানের অপব্যবহার যারা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইন করা হচ্ছে। জনগণকে ক্ষেপিয়ে দেয়ার কৌশল এটা নয়, যারা এ বদমায়েশি করছে জনগণ তাদের ছেড়ে দিবে না। এর প্রতিশোধ জনগণ নিবে। বললেন ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ এম.পি.।

আজ রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল অডিটোরিয়ামে ফেডারেশন অব বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (এফবিজেও) কর্তৃক ‘জাতীয় শোক দিবস ও আমাদের করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ এ কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমি মন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ বলেন, প্রযুক্তি জ্ঞানের প্রসার ঘটিয়ে জাতিকে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপহার দেওয়ার প্রত্যয় নিল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার অথচ সেই প্রযুক্তিরই অশুভ ব্যবহার ঘটিয়ে এদেশের শান্ত পরিবেশকে বিঘ্ন ঘটানোর অপপ্রয়াস চালাচ্ছে এক ষড়যন্ত্রকারী অশুভ মহল। প্রযুক্তির অশুভ ব্যবহারকারী ষড়যন্ত্রকারীদের থেকে সকলকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

ভূমিমন্ত্রী শরীফ আরও বলেন, জাতীয় শোক দিবস ও আমাদের করণীয় বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য একটি বিষয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু গণতন্ত্র ও সাংবাদিকতার কথা, আদর্শের কথা, মানুষের উন্নত জীবনের অধিকারের কথা বলে গিয়েছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সাংবাদিকদের চতুর্থ স্তম্ভ ঘোষণা দিয়েছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নৃশংসভাবে হত্যার পর দেশে যেভাবে অরাজকতা, হানাহানি ও লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছিল ঠিক একইভাবে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা বিরোধী সেই অশুভ অপশক্তি আবারও দেশে গণতন্ত্র বিরোধী কাজ শুরু করেছে। গণতন্ত্রবিরোধী এই অপশক্তি ফেইসবুক প্রযুক্তির অশুভ ব্যবহার ঘটিয়ে অপপ্রচার ছড়িয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করছে।

মন্ত্রী শরীফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখনই একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে চলেন, ঠিক সেই মুহূর্তে জাতীয় ঐক্যকে বাধাগ্রস্থ করে দেশে বিশৃক্সখলা সৃষ্টি করছে ঐ অশুভ মহল। মন্ত্রী এ অশুভ মহল থেকে সকলকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান।

ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ বলেন, কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীদেরকে অন্যায় কাজে প্রলুব্ধ করা হচ্ছে। জাতিকে মেধাশূন্য করার অপচেষ্টায় লিপ্ত এ অশুভ মহলটি কোটা সংস্কারের নামে দেশে যে অরাজকতা ও বিশৃক্সখলা সৃষ্টি করার অপচেষ্টা চালিয়েছে তা জাতির কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কারের জন্য কমিটি গঠন করে দিয়েছেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, গাড়ি চালকেরা বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালায়, একটি দুর্ঘটনা মারাত্মক দুঃখজনক ঘটনার সৃষ্টি করে। তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় আমার ছেলেকেও আমি হারিয়েছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার সড়ক পরিবহন আইন অনুমোদন করেছে। বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর জন্য অর্থদন্ডসহ সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। ৩০২ ধারার মামলা হলে সর্বোচ্চ শাস্তি হবে মৃত্যুদন্ড। লাইসেন্স ও চুক্তিপত্র ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারবে না।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের আগেই উন্নত বাংলাদেশে নিয়ে যেতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় তৎপর থাকতে হবে।

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, সাংবাদিক হচ্ছে দেশের চতুর্থ স্তম্ভ। ন্যায় ও সত্যের কথা বলে সাংবাদিক। তিনি বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী সকলকে পড়ার আহ্বান জানান। আলোচনা সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণটি তৃতীয় শ্রণী থেকে অন্যান্য সকল শ্রেণীর পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার দাবী জানানা হয়।

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (এফবিজেও) এর চেয়ারম্যান এস. এম. মোরশেদ এর সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মমতাজউদ্দিন আহমেদ, সাহিত্যিক ও গবেষক সেলিম রেজা, সঞ্চালক এম.এ. মোতালিব, লায়ন নূরুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মনির, আহাম্মদ আবু জাফর, আজগর আলী মানিক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.