১৮ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩১
মানুষকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা

বেনাপোলে ষাটোর্ধ্ব মানুষকে ফ্রি চিকিৎসা সেবা দিয়ে মানবতার সেবায় এগিয়ে মেয়র লিটন

স্টাফ রিপোর্টার বেনাপোলঃ বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন মানবতার সেবায় নিয়োজিত হয়ে আরো এক ধাপ দৃষ্টান্ত স্থাপন করল বেনাপোল সহ দেশবাসীর কাছে।

মেয়র লিটনের উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে সবথেকে বড় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন বেনাপোল পৌরসভার যাট (৬০) উর্দ্ধ মানুষকে বিনা পয়সায় চিকিৎসা ও ঔষধ প্রদান করে । তারই অক্লান্ত প্রচেষ্ঠায় বেনাপোল পৌর সভার একপাশে গড়ে উঠে ফ্রি চিকিৎসা কেন্দ্র ও পৌর ভবনের পাশে রোগ নির্নয়ের আস্থা নামে একটি পরীক্ষা কেন্দ্র। গত ২৪/১০/১৪ সালে বাংলাদেশ সরকারের নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান এমপি বেনাপোল পৌর ভবনের হেলথ সেন্টার উদ্বোধন করেন।

বেনাপোল পৌর ভবনের নিচ তলায় দুইজন ডাক্তার প্রতিদিন বিকাল ৪ টা থেকে রাত ৮ পর্যান্ত ফ্রি চিকিৎসা প্রদান করেন। আর এ চিকিৎসা নিয়ে বেনাপোল পৌর এলাকার শত শত দরিদ্র মানুষ উপকৃত হচ্ছে। সেই সাথে যাদের বয়স ৬০ তারা পাচ্ছে ফ্রি ঔষুধ সেবা। এখানে জরুরী চিকিৎসা সেবার জন্য মেয়র লিটন ও তার সহোদর এর সহযোগিতায় কিনেছে একটি অত্যাধুনিক এম্বুলেন্স। এ এম্বুলেন্সে করে জরুরী ভাবে যশোর সহ দেশের প্রত্যান্ত অঞ্চলে জরুরী রোগীদের নিয়ে যাওয়া হয় ।

বেনাপোল পৌরসভায় হেলথ সেন্টারের ঔষুধ বিভাগের দায়িত্বে মশিয়ার রহমান বলেন, বেনাপোল পৌর মেযর আশরাফুল আলম লিটনের ছোট ভাই নুরুল ইসলাম স্বপন এলাকার দরিদ্র নিরীহ বয়স্ক মানুষকে ঔষুধ প্রদান করে থাকে।

মঙ্গলবার বিকাল ৫ টার সময় তালশারী থেকে চিকিৎসা নিতে আসা মৃত রোস্তম আলীর স্ত্রী আছমা বেগম (৬৫) বলেন বেনাপোল পৌরসভা থেকে আমি ডাক্তার দেখানোর পর ডাক্তারের প্রিসক্রিপশন নিয়ে দোকানে দিলে ঔষুধ দিয়ে দেয় কোন টাকা পয়সা লাগে না। আমার ঔষুধ কিনার সামর্থ নেই । এখান থেকে ঔষুধ না দিয়ে আমার বেঁচে থাকা হত না। একই কথা বললেন ঔষুধ নিতে আসা পৌরসভা নামাজগ্রামের সাবর আলী সরদার (৬৭)।

বেনাপোল পৌর সুত্র জানায় এখানে আস্থা নামে পৌরসভার যে পরীক্ষা কেন্দ্র রয়েছে সেখানে দুঃস্থ মানুষের নিকট থেকে নামে মাত্র পরীক্ষা নিরীক্ষার টাকা নেওয়া হয়।

পৌর সচিব রফিকুল ইসলাম বলেন মেযর লিটনের এ ধরনের পদক্ষেপে অনেক পৌরসভা তাকে অনুসরন করে এ ধরনের চিকিৎসা সেবা প্রদান করছেন। মেযর লিটন এর এ সকল মানবীক গুনাবলী আজ দেশের সকল পৌরসভার গর্ব। তাকে অনুসরন করে ইতিমধ্যে অনেক পৌরসভায় এ ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.