১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৫০
বরিশাল সিটি নির্বাচন

বরিশাল সিটি নির্বাচনে ১২৩ ভোট কেন্দ্রের ১১২টি ঝুঁকিপূর্ণ

বরিশাল থেকে তাপস চক্রবর্তী : বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৪২ হাজার ১৬৬ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১২৩টি। এর মধ্যে ১১২টিকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে প্রশাসন। বেশির ভাগ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ভোটারদের মনেও সহিংসতার আশঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া টাকা ছড়ানোর অভিযোগও রয়েছে। অবশ্য প্রশাসন যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ও ভোট কেন্দ্রে সুষ্ঠু ভোটগ্রহণ নিশ্চিত করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুলিশ-র‌্যাব ও বিজিবি সমন্বয়ে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া ১১২টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থাসহ ১৯ প্লাটুন বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

ইতোমধ্যে শনিবার (২৮ জুলাই) সকাল থেকে বিজিবি সদস্যরা নগরীর বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছেন। এছাড়া তৎপর রয়েছে র‌্যাব। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মোটরসাইকেলে টহল দিচ্ছেন র‌্যাব সদস্যরা।

এ বিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের (বিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বরিশাল নগরীতে মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য মোটরযানের ওপর নজরদারি বৃদ্ধি করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। নগরীর তিনটি প্রবেশ মুখে পুলিশের স্থায়ী চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। নগরীর ভেতরে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে সর্বাক্ষণিক চেকপোস্ট বসিয়ে যানবহনে নজরদারি রাখা হচ্ছে। এছাড়া বহিরাগতদের নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে আবাসিক হোটেলগুলোতে চালানো হচ্ছে তল্লাশী অভিযান।

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন জানান, ভোটাররা যাতে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেন সেজন্য ১২৩টি কেন্দ্রের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কমতি রাখা হচ্ছে না। আর ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থাও করা হচ্ছে।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন আরও জানান, প্রতিটি ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ২২ জন সদস্য। এর মধ্যে অস্ত্রধারী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য সংখ্যা ১০ জন। আর ঝুঁকিপূর্ণ (গুরুত্বপূর্ণ) কেন্দ্রে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ২৪ জন সদস্য। এর মধ্যে অস্ত্রধারী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য সংখ্যা ১২ জন।

এছাড়া ১৫ প্লাটুন বিজিবি সদস্য ও ৩০০ জন র‌্যাব সদস্য ভোটকেন্দ্র ও চারপাশের পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখতে দায়িত্ব পালন করবেন। স্ট্রাইকিং রিজার্ভ ফোর্স হিসেবে বিজিবির আরও ৪ প্লাটুন ও র‌্যাবের ২০ জন সদস্যকে প্রস্তুত রাখা হবে। আপদকালীন সমস্যা দেখা দিলে তারা জরুরি ভিত্তিতে সেখানে পৌঁছে পরিস্থিতি সামাল দেবে। এছাড়া আরও থাকছেন ১০ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং ৪০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

সুষ্ঠু ভোট গ্রহণ নিশ্চিত করতে যা প্রয়োজন তা-ই করা হয়েছে বলে জানান সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন।

বরিশাল মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) শামসুল আলম বলেন, ট্রাফিক পুলিশের চেকপয়েন্টে মোটরসাইকেল ও অন্যান্য মোটরযানের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এ টিমের সঙ্গে পুলিশের ক্রাইম জোনের সদস্যরাও রয়েছেন। যাতে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র বহনকারীসহ অন্যান্য অপরাধীদের তাৎক্ষণিক আটক করা যায়।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.