১৮ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৩১

একুশ শতকের দীর্ঘতম চন্দ্র গ্রহণ ২৭শে জুলাই

বিশেষ প্রতিবেদকঃ  একই সঙ্গে দু’-দু’টি মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী থাকবে ভারত-সহ বিশ্বের একটি বড় অংশ। শুক্রবার থেকে আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত। স্বাভাবিক ভাবেই আলোড়ন বিশ্ব জুড়ে। সেই দু’টি মহাজাগতিক ঘটনা কী কী আর তা কেন ঘটে, তা জানতে সল্টলেকের পজিশনাল অ্যাস্ট্রোনমি সেন্টারের অধিকর্তা সঞ্জীব সেনের সঙ্গে কথা বললেন প্রতিবেদক।

  • একুশ শতকের (২০০১ থেকে ২১০০ সাল) দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ হবে ২৭ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৮ জুলাই ভোর রাত পর্যন্ত। তারই সঙ্গে, ২০০৩ সালের পর পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে আসবে ‘লাল গ্রহ’ মঙ্গল, ৩১ জুলাই। ফলে, মঙ্গলকে ওই সময় উজ্জ্বল ও স্পষ্ট ভাবে দেখা যাবে রাতের আকাশে। কোন পরিস্থিতিতে হয় চন্দ্রগ্রহণ?

সঞ্জীব সেন: পূর্ণিমার রাতে হয় চন্দ্রগ্রহণ। সূর্যকে কেন্দ্র করে নিজের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে পৃথিবী, আর পৃথিবীকে কেন্দ্র করে নিজের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে চাঁদ। যে যার নিজের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করতে করতে যখন চাঁদ ও সূর্যের মাঝখানে পৃথিবী চলে আসে, তখন হয় পূর্ণিমা। আর পূর্ণিমার দিন সূর্য, পৃথিবী ও চাঁদ যদি প্রায় বা পুরোপুরি একই সরলরেখায় থাকে, সে ক্ষেত্রে পৃথিবীর ছায়া-কোণে ঢুকে পড়ে চাঁদ। আংশিক ভাবে বা পুরোপুরি। পৃথিবীর ছায়াকোণে চাঁদ আংশিক ভাবে ঢুকলে হয় আংশিক চন্দ্রগ্রহণ। আর ছায়া-কোণে চাঁদ পুরোপুরি ঢুকে পড়লে হয় পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ।

  • এ বার ভারতীয় সময়ে কখন থেকে শুরু ও কখন শেষ হবে শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ?

সঞ্জীব সেন: ২৭ জুলাই রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে চাঁদ পৃথিবীর ছায়া-কোণে ঢুকে পড়তে শুরু করবে। তার মানে, তখন থেকেই শুরু হবে আংশিক চন্দ্রগ্রহণ। চাঁদ পুরোপুরি পৃথিবীর ছায়ায় বা ছায়া-কোণে ঢুকে পড়বে রাত ১টায়। তখন শুরু হবে পূর্ণগ্রাস। সেই পূর্ণগ্রাস চলবে রাত ২টা ৪৩ মিনিট পর্যন্ত। তার পর চাঁদ ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসতে শুরু করবে পৃথিবীর ছায়া বা  ছায়া-কোণ থেকে। তার মানে, চাঁদকে আবার তখন দেখা যাবে আংশিক গ্রহণ হলে যেমন হয়, সেই অবস্থায়। সেই আংশিক গ্রহণ পুরোপুরি শেষ হবে ২৮ জুলাই ভোর ৩টা ৪৯ মিনিটে। আংশিক ও পূর্ণগ্রাস মিলিয়ে মোট ৩ ঘণ্টা ৫৪ মিনিটের গ্রহণ। এটিই শতাব্দীর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ।

  • কেন এই পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণকে বলা হচ্ছে শতাব্দীর দীর্ঘতম?

সঞ্জীব সেন: চাঁদ পৃথিবীকে কেন্দ্র করে উপবৃত্তাকার কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে। এক বার পাক খেতে সময় নেয় গড়ে প্রায় সাড়ে ২৭ দিন। এই সাড়ে ২৭ দিনে চাঁদ তার কক্ষপথে এক বার পৃথিবীর নিকটতম বিন্দুতে (পেরিজি বা অনুভূ) থাকে। আর এক বার থাকে দূরতম বিন্দুতে (অ্যাপোজি বা অপভূ)। ২৭ জুলাই চাঁদ থাকবে অ্যাপোজিতে। বা, তার কক্ষপথের দূরতম বিন্দুতে। ওই অবস্থানে থাকার সময় চাঁদের গতিবেগ কম হবে। শুধু তাই নয়, এই গ্রহণে চাঁদ পৃথিবীর ছায়া-কোণের প্রায় কেন্দ্রস্থল দিয়ে অতিক্রম করবে। তার মানে, কম গতিবেগে তার কক্ষপথে থাকা চাঁদ তার গ্রহ পৃথিবীর ছায়া-কোণের প্রায় দীর্ঘতম পথ অতিক্রম করবে। আর ওই সময় চাঁদের গতিবেগ কম থাকবে বলে পৃথিবীর ছায়া-কোণের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যেতে বেশি সময় লাগবে চাঁদের। তাই এটি হবে শতাব্দীর দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ।

  • পূর্ণগ্রাসের সময় চাঁদ কেন লাল আভার (ব্লাড মুন) হয়? তার কি কোনও বৈজ্ঞানিক কারণ রয়েছে, নাকি তা চোখের বিভ্রান্তি?

সঞ্জীব সেন: পৃথিবীর ছায়া চাঁদকে পুরোপুরি ঢেকে ফেললেই হয় পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। ওই সময় চাঁদকে কিছুটা লালচে দেখায়। এ ক্ষেত্রে চাঁদ পুরোপুরি অদৃশ্য হয়ে যায় না পৃথিবীর ছায়ায়। ঠিকই, পূর্ণগ্রাস চলার সময় সূর্যের আলো চাঁদের গায়ে পড়ে না। কিন্তু পৃথিবীর ওপর যে বায়ুমণ্ডলের স্তর রয়েছে, তার ওপর তো সূর্যের আল‌ো এসে পড়ে। সূর্যের সাদা আলো সাতটি রংয়ের আলোর সংমিশ্রণ। তাদের মধ্যে বেগুনি, নীলের মতো কম তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলোকরশ্মি বায়ুমণ্ডলে বেশি বিচ্ছুরিত (স্ক্যাটার্ড) হয়। ফলে ওই রংয়ের আলো চার দিকে ছড়িয়ে পড়ে।

গ্রহণে যে ভাবে চাঁদ ধীরে ধীরে হয়ে উঠবে ব্লাড মুন

অন্য দিকে, কমলা ও লাল- এই দু’টি দীর্ঘ তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলোকরশ্মি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে কম বিচ্ছুরিত হয়। ওই দু’টি আলোকরশ্মি তাই বেশি ছড়িয়ে পড়তে পারে না। বায়ুমণ্ডলে ওই দু’টি তরঙ্গদৈর্ঘ্যের আলোকরশ্মির প্রতিসরণ (রিফ্র্যাকশন) ঘটে। আর তার ফলে সেই আলো কিছুটা বেঁকে গিয়ে পড়ে চাঁদের গায়ে। তাই পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদের লাল আভা দেখা যায়।

সূর্য, পৃথিবী (মাঝে) আর চাঁদ যে ভাবে থাকলে হয় পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ

  • এই সময় তো আরও একটি মহাজাগতিক ঘটনার সাক্ষী হতে চলেছি আমরা। ১৫ বছর পর পৃথিবীর এত কাছে আসছে মঙ্গল। তাতে আকাশে ‘লাল গ্রহ’কে বেশি উজ্জ্বল দেখাবে। কিন্তু কেন ১৫ বছর পর এই ঘটনা ঘটছে? কেন মঙ্গলকে তখন উজ্জ্বল দেখাবে?

সঞ্জীব সেন: এই মুহূর্তে ‘লাল গ্রহ’ মঙ্গল পৃথিবীর কাছে আছে এবং আকাশে উজ্জ্বল অবস্থায় তাকে দেখা যাচ্ছে। মঙ্গলের অবস্থান পৃথিবীর বাইরের ঠিক পরের কক্ষপথেই। মঙ্গলের আকার পৃথিবীর প্রায় অর্ধেক। পৃথিবী তার কক্ষপথে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে সময় নেয় ৩৬৫ দিন। আর সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে মঙ্গলের লাগে ৬৮৭ দিন। এই দু’টি গ্রহের প্রদক্ষিণের সময়ের হিসেব কষলে দেখা যায়, প্রায় ৭৮০ দিন অন্তর (প্রায় প্রতি ২ বছর ২ মাস বা, ২৬ মাস অন্তর) মঙ্গল আর সূর্যের মাঝখানে চলে আসে পৃথিবী। সূর্য ও মঙ্গল পৃথিবীর দু’দিকে ও পৃথিবী ঠিক মাঝখানে থাকলে মঙ্গল গ্রহ পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে চলে আসে। এটারই নাম ‘মঙ্গলের প্রতিযোগ’ বা ‘অপোজিশন’। এই সময় মঙ্গলকে উজ্জ্বল অবস্থায় দেখা যায়।

২৭ জুলাইয়ে শতাব্দীর দীর্ঘতম পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের দিন মঙ্গলের প্রতিযোগও হবে। তার ফলে, মঙ্গলকে আকাশে ওই সময় গ্রহণের চাঁদের কাছাকাছি উজ্জ্বল অবস্থায় দেখা যাবে। তবে মঙ্গল পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে আসবে ৩১ জুলাই। সে দিন মঙ্গলের সঙ্গে পৃথিবীর দূরত্ব কমে হবে প্রায় ৫ কোটি ৭৬ লক্ষ কিলোমিটার। আর পৃথিবীর এত কাছে মঙ্গল আসছে ১৫ বছর পর।

মঙ্গলের সঙ্গে পৃথিবীর সবচেয়ে কম যে দূরত্ব হতে পারে, সেটি প্রায় ৫ কোটি ৫০ লক্ষ কিলোমিটার। আর এই দু’টি গ্রহের সবচেয়ে বেশি দূরত্ব হতে পারে প্রায় ৪০ কোটি কিলোমিটার। তার মানে, সারা বছর ধরে পৃথিবী থেকে বিভিন্ন দূরত্বে অবস্থান করে মঙ্গল গ্রহ। তখন মঙ্গলকে খুব বেশি উজ্জ্বল দেখা যায় না। মঙ্গলকে তখনই সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল দেখা যায়, যখন তার প্রতিযোগ হয় আর পৃথিবীর কাছে চলে আসে ‘লাল গ্রহ’। ১৫ বছর আগে, ২০০৩ সালের অগস্টে মঙ্গলের যে প্রতিযোগ হয়েছিল, তাতে ‘লাল গ্রহ’ গত প্রায় ৬০ হাজার বছরে সবচেয়ে কাছে এসেছিল পৃথিবীর। তখন দু’টি গ্রহের মধ্যে দূরত্ব কমে হয়েছিল প্রায় ৫ কোটি ৫৪ লক্ষ কিলোমিটার। ২০০৩-এর পর পৃথিবীর এত কাছে মঙ্গল আসছে ৩১ জুলাই। ওই দিন দু’টি গ্রহের দূরত্ব হবে প্রায় ৫ কোটি ৭৬ লক্ষ কিলোমিটার।

  • আরও একটা ঘটনা ঘটতে চলেছে এ বার। তা হল, মঙ্গলের ‘সুবর্ণ প্রতিযোগ’ বা ‘ফেভারেব্‌ল অপোজিশন’। কাকে বলে সেই ‘সুবর্ণ প্রতিযোগ’? তার বিশেষত্ব কোথায়?

সঞ্জীব সেন: মঙ্গল উপবৃত্তাকার কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে সূর্যকে। তার ফলে, মঙ্গল তার কক্ষপথে এক বার সূর্যের নিকটতম বিন্দুতে (পেরিহিলিয়ন) থাকে। আর এক বার থাকে দূরতম (অ্যাপিহিলিয়ন) বিন্দুতে। মঙ্গল তার কক্ষপথে পেরিহিলিয়ন বিন্দুতে থাকার কাছাকাছি সময় যদি প্রতিযোগ হয়, তা হলে মঙ্গল আরও কাছে চলে আসে পৃথিবীর। এটাকেই বলে, ‘ফেভারেব্‌ল অপোজিশন বা সুবর্ণ প্রতিযোগ’। ২৭ জুলাই এই সুবর্ণ প্রতিযোগই হবে মঙ্গলের। তার ফলে, ‘লাল গ্রহ’কে আরও উজ্জ্বল দেখাবে রাতের আকাশে।

মঙ্গল তার কক্ষপথে পেরিহিলিয়ন বিন্দুতে থাকবে ১৬ সেপ্টেম্বর। মঙ্গলের এই সুবর্ণ প্রতিযোগ হয় প্রতি ১৫ বা ১৭ বছর অন্তর। পরবর্তী সুবর্ণ প্রতিযোগ হবে ১৭ বছর পর। ২০৩৫-এর ১১ সেপ্টেম্বর। তখন মঙ্গল ও পৃথিবীর দূরত্ব কমে হবে প্রায় ৫ কোটি ৬৯ লক্ষ কিলোমিটার।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.