১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৮:২২
সর্বশেষ খবর
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস

বিএনপিকে নিয়ে দেশের ভিতরে ও বাইরে চক্রান্ত হচ্ছে

বিশেষ প্রতিবেদকঃ  খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে দেশের ভেতরে ও দেশের বাইরে এমনকি বিএনপির ভেতরে ও বাইরে একটা চক্রান্ত হচ্ছে। যাতে করে খালেদা জিয়া জেলে থেকে বের হতে না পারেন। বললেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

আজ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সমাবেশে এসব কথা বলেন মির্জা আব্বাস। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সমাবেশটির আয়োজন করা হয়।

মির্জা আব্বাস বলেন, যারা আজকে বিএনপিকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে তারা একটা সময় ভেবেছিল জিয়াউর রহমানকে হত্যার পর বিএনপি ধ্বংস হয়ে যাবে। আজকেও যারা বিএনপির মাঝে ফাটল ধরানোর চেষ্টা করছে, আমি তাদের বলব, সেই সময় চলে গেছে। আমরা আমাদের দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব, তারেক রহমান দেশে ফিরবেন এবং আমরাই দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করব। বিএনপির পোড়াখাওয়া নেতা-কর্মী কখনো বেঈমানি করবে না।

যুবদলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির এই শীর্ষনেতা বলেন, ‘আমাদের এই দলটাকে দুর্বল করার জন্য বেশ কিছু প্রক্রিয়া কাজ করছে। তবে সেই প্রক্রিয়া যেন কাজ না করতে পারে, সেদিকে যুবদলকে খেয়াল রাখতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের কিছু ব্যর্থ নেতা-কর্মী রয়েছে, যারা নেতৃত্ব চায় কিন্তু নেতৃত্ব দিতে পারে না। স্বাধীনতার যুদ্ধে যারা অংশগ্রহণ করেনি। তারা আজ ক্ষমতা দখল করে বসে আছে এবং তারা এদেশকে পরাধীন করার চেষ্টা করছে।’

মির্জা আব্বাস আরো বলেন, ‘আমরা এরশাদবিরোধী আন্দোলন করেছি, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ করেছি, ৯০ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছি। বিশেষ করে ৯০-এ আমাদেরকে এই যুবদলকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। তখন আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলকে বিভিন্নভাবে সাহায্য করেছি। কারণ তখন সাহায্য না করলে সরকারের পরিবর্তন ঘটতো না। তখন আমরা কেউ পদ এবং নাম নিয়ে ভাবি নাই। আমরা সরকার পতনের চেষ্টা করেছি। আজ আপনাদের তাই করতে হবে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমাদের দেশে জেলখানায় ৩৫ হাজার বন্দি রাখা যাবে। সেখানে ৮৫ হাজার বন্দি রাখা হয়েছে। কেউ বলছে ৯৫ হাজার, এতে বোঝা যায়, কিছুদিন পর পুলিশ চাইলেও আমাকে গ্রেপ্তার করতে পারবে না। কারণ আমাদের জেলখানায় কোনো জায়গা নাই। এই জেলখানায় বন্দি শুধু বিএনপির নেতাকর্মীরা হবেন না, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও হবেন। আজকে খালেদা জিয়া শুধু জেলে নয়, গোটা বাংলাদেশ আজকে কারাগারে বন্দি।’

নির্বাচন কমিশন সম্পর্কে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আগের নির্বাচনগুলো সুষ্ঠু হয়নি। এবার  তিন সিটি নির্বাচনের কার্যকলাপ দেখব। যদি নির্বাচন সুষ্ঠু না হয় আমরা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আমরা দ্বিতীয়বার ভাবব। খালেদা জিয়া মুক্ত হয়ে আসবেন, আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশে ফিরে আসবেন। তারপর আমরা নির্বাচনে যাব।’

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রেজাউল কবীর পল। সঞ্চালনা করেন ইয়াছিন ফেরদৌস মুরাদ।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান খান, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, ঢাকা জেলার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশরাফ, যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মোর্তাজুল করিম বাদরু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.