১৯শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:১৬
সর্বশেষ খবর

চট্টগ্রাম ইসকনের রথযাত্রার মহাশোভাযাত্রায় অংশ নেবে দেড় শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় সংগঠন

রাজিব শর্মা, (চট্টগ্রাম ব্যুরো): আবহমান কাল ধরে রথযাত্রা একটি অন্যতম অসাম্প্রদায়িক চেতনাসম্পন্ন উৎসব হিসেবে উদযাপিত হচ্ছে। শ্রীশ্রী জগন্নাথদেবের রথযাত্রা সনাতনী ধর্মালম্বীদের বৃহৎ উৎসব। রথযাত্রা উপলক্ষে সমগ্র বাংলাদেশে আপামর জনসাধারণের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়। কিন্তু সরকারী ছুটি না থাকার কারণে অনেকে তাদের এই প্রাণের উৎসবে যোগদান করতে পারেন না। তাই সরকারের কাছে রথযাত্রায় সরকারি ছুটি ঘোষণার দাবি জানান আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইস্কন) চট্টগ্রামের নেতৃবৃন্দ।

গত শনিবার দুৃপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়। আগামী ১৪ জুলাই ৯দিনব্যাপী রথযাত্রা মহোৎসব উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রবর্তক মোড়ে মন্দির অডিটোরিয়ামে ইস্কন উক্ত সম্মেলনের আয়োজন করে ইস্কন। লিখিত বক্তব্যে ইস্কন প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরের সাধারণ সম্পাদক শ্রীপাদ দারুব্রহ্ম জগন্নাথ দাস ব্রহ্মচারী রথযাত্রা মাহাত্ম্য বর্ণনার সাথে সাথে বর্তমান সমাজে জাতিগত বিদ্বেষ, ধর্মীয় উন্মাদনা, বর্ণবৈষম্য ও বিশ্বভ্রাতৃত্ব রক্ষায় রথযাত্রা গুরুত্ব তুলে ধরেন।
সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন শ্রীপাদ লীলারাজ গৌর দাস ব্রহ্মচারী। তিনি বলেন, এবারের রথযাত্রায় প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় সংগঠন মহাশোভাযাত্রায় যোগদান করবেন। চট্টগ্রামে বিভিন্ন উপজেলা থেকে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে হাজার হাজার নরনারী ব্যানার, প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন, পৌরাণিক সাজ ও বাদ্যযন্ত্র নিয়ে যোগদান করবেন। ৯দিনব্যাপি অনুষ্ঠানমালার শুভসূচনা করার জন্য ভারতের শ্রীধাম বৃন্দাবন থেকে ইস্কনের অন্যতম সন্ন্যাসী শ্রীমৎ ভক্তি আশ্রয় বৈষ্ণব স্বামী মহারাজ ও শ্রীধাম মায়াপুর থেকে শ্রীপাদ তারক কৃষ্ণ নাম দাস ব্রহ্মচারী চট্টগ্রামে আগমন করবেন। রথযাত্রার দিন প্রায় ৫০ হাজার মানুষের মাঝে জগন্নাথদেবের মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে। রথযাত্রায় ১৪ জুলাই বেলা ৩টায় ইস্কন প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে রথযাত্রার উদ্বোধন করবেন সিটি মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দিন। এছাড়া চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক, সিএমপি কমিশনার ও অন্যান্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন। এরপর বর্ণাঢ্য মহাশোভাযাত্রা নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করবে। রথযাত্রা প্রবর্তক মোড় হতে আরম্ভ হয়ে চট্টেশ্বরী মোড়, কাজীর দেউরী, জামালখান, আন্দরকিল্লা, নিউ মার্কেট হয়ে হাজারী লেইনে শেষ হবে। ২২ তারিখ উল্টো রথযাত্রা হাজারী লেইন থেকে শুরু করে উল্টো পথে প্রবর্তক মোড়ে শেষ হবে। সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রূপেশ্বর গৌরাঙ্গ দাস, স্বতন্ত্র গৌরাঙ্গ দাস, উত্তমানন্দ নিতাই দাস, সুচারু কৃষ্ণ দাস, সোমনাথ দাস, পা-ব গোবিন্দ দাস, জগদার্তিহা দাস

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.