১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:২২
সর্বশেষ খবর
বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্স, বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উরুগুয়ে, উরুগুয়ে বনাম ফ্রান্স, কিলিয়ান এমবাপে, পল পোগবা, রাফায়েল ভারান, আঁতোয়া গ্রিজ়ম্যান, লুইস সুয়ারেস, দিয়েগো গদিন, ফের্নান্দো মুসলেরা, উরুগুয়ের রণনীতি, অলিভিয়ের জিহু-রা, উরুগুয়ের পেনাল্টি বক্স, ম্যাঞ্চেস্টার সিটি মিডফিল্ডার

উরুগুয়ের পায়ের মার খেয়েও ফ্রান্সের জয়

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্স বনাম উরুগুয়ে ম্যাচটা নিয়ে আগ্রহ তুঙ্গে ছিল ফুটবলপ্রেমীদের। এক দিকে কিলিয়ান এমবাপে, পল পোগবা, রাফায়েল ভারান, আঁতোয়া গ্রিজ়ম্যান-সহ একঝাঁক তারকা। অন্য দিকে লুইস সুয়ারেস, দিয়েগো গদিন, ফের্নান্দো মুসলেরার মতো ফুটবলারেরা। কিন্তু ম্যাচটা শুরু হওয়ার পরেই ধাক্কা খেলাম উরুগুয়ের রণনীতি দেখে। লাতিন আমেরিকার শিল্পের বদলে শারীরিক শক্তি ব্যবহার করে ফ্রান্সকে আটকানোর চেষ্টা। চোটের কারণে এদিনসন কাভানি দল থেকে ছিটকে যাওয়ার জন্যেই হয়তো ওঁরা ভেবেছিলেন, শক্তি প্রয়োগ করে খেললে ভয় পেয়ে যাবেন এমবাপেরা। ছন্দ নষ্ট হয়ে যাবে ফ্রান্সের খেলায়। এখানেই মারাত্মক ভুল করেন উরুগুয়ের কোচ অস্কার তাবারেস।

ফ্রান্সের সব চেয়ে ইতিবাচক দিক হল, সবাই বল ধরে খেলতে পারেন। ম্যাচের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। অধিকাংশ ফুটবলারই ইউরোপের সেরা লিগে খেলেন। তাই শক্তি  দিয়ে যে ওঁদের কখনওই ৯০ মিনিট আটকে রাখা যাবে না, প্রমাণ করে দিলেন অলিভিয়ের জিহু-রা। এই ছন্দ ধরে রাখতে পারলে বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হতে পারেন এমবাপেরা।

শেষ ষোলোর ম্যাচে আর্জেন্টিনার  যাবতীয় প্রতিরোধ ভেঙে পড়েছিল ফ্রান্সের গতির কাছে। নেপথ্যে এমবাপে। শুক্রবার নিঝনি নভগোরদে ম্যাচটা শুরু হওয়ার পরে দেখলাম, এমবাপে বল ধরলেই তিন-চার জন ওঁকে ঘিরে ফেলছেন। মিনিট দশেকের মধ্যেই রণনীতি বদলে ফেললেন ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ে দেশঁ। নিজেদের মধ্যে অসংখ্য পাস খেলতে শুরু করলেন পোগবা-রা।

দুর্দান্ত পরিকল্পিত ফুটবল। ছোট-ছোট পাস খেলতে খেলতে আক্রমণে ওঠা। উইং দিয়ে যখন সে ভাবে আক্রমণে করা সম্ভব হচ্ছে না, তখন সেট পিস কাজে লাগানোর চেষ্টা করা। ৪০ মিনিটে ভারানের দুর্দান্ত গোল এই পরিকল্পনারই ফসল। উরুগুয়ের পেনাল্টি বক্সের বাইরে ফ্রি-কিক পায় ফ্রান্স। গ্রিজ়ম্যানের শট দুরন্ত হেডে জালে জড়িয়ে দেন ভারান। রিয়াল মাদ্রিদ ডিফেন্ডার যে কখন উঠে এসেছেন, খেয়ালই করেননি গদিনরা। চার মিনিট পরেই অবশ্য সমতা ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিল উরুগুয়ে। কিন্তু পেনাল্টি বক্সের মধ্যে থেকে নেওয়া মার্তিন কাসেরেসের হেড অবিশ্বাস্য দক্ষতায় বাঁচান ফ্রান্সের গোলকিপার হুগো লরিস।

এক জন গোলরক্ষক তাঁর দলকে বাঁচালেন। আর এক জন ডোবালেন। তিনি, উরুগুয়ের ফের্নান্দো মুসলেরা। ৬১ মিনিটে পেনাল্টি বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া গ্রিজম্যানের শট ধরতে গিয়ে নিজের গোলেই ঢুকিয়ে দিলেন। বুঝতে পারলাম না মুসলেরা বলটা কেন গ্রিপ না করে ফিস্ট করার চেষ্টা করলেন। এই গোলটাই উরুগুয়েকে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দিল। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল জ়িনেদিন জ়িদানের দেশ।

বেলজিয়ামকে হারিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে উৎসব করতে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। ভাবিনি অভিশপ্ত কাজ়ানে ব্রাজিলেরও বিশ্বকাপ অভিযান শেষ হয়ে যাবে। বেলজিয়াম গোলকিপার থিবো কুর্তোয়াই কার্যত আমাদের হারিয়ে দিলেন।

কাজ়ানে বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে শুরুটা কিন্তু দুর্দান্ত করেছিল ব্রাজিল। আট মিনিটে নেমার দা সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)-এর কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে থিয়াগো সিলভার পুশ ধাক্কা খায় ক্রসবারে। ব্রাজিলের আক্রমণের ঝড়ে রীতিমতো অসহায় দেখাচ্ছিল বেলজিয়াম ডিফেন্ডারদের। কে ভেবেছিল, পাঁচ মিনিটের মধ্যেই বিপর্যয় নেমে আসবে। এডেন অ্যাজারের কর্নার বিপন্মুক্ত করতে গিয়ে নিজের গোলেই বল ঢুকিয়ে দেবেন কার্লোস কাজিমিরোর পরিবর্তে প্রথম দলে সুযোগ পাওয়া ফের্নান্দিনহো লুইস রোসা।

দ্বিতীয় গোলটার ক্ষেত্রেও আংশিক ভাবে দায়ী ফের্নান্দিনহো। ওঁকে নামানো হয়েছিল মাঝমাঠে বেলজিয়ামের ছন্দ নষ্ট করার জন্য। কিন্তু গোল করার জন্য নিজের জায়গা ছেড়ে বারবারই উঠে যাচ্ছিলেন বিপক্ষের পেনাল্টি বক্সে। ফলে মাঝমাঠ ও রক্ষণের মধ্যে শূন্যস্থান তৈরি হয়েছিল। ৩১ মিনিটে সেটাই দুর্দান্ত ভাবে কাজে লাগাল বেলজিয়াম। রোমেলু লুকাকু বল নিয়ে উঠে পাস দিলেন কেভিন দে ব্রুইনকে। দুরন্ত শটে গোল করতে ভুল করেননি ম্যাঞ্চেস্টার সিটি মিডফিল্ডার।

০-২ পিছিয়ে যাওয়ার পরেও কিন্তু জয়ের আশা ছাড়িনি। কিন্তু এই ধরনের বড় ম্যাচে সামান্য একটা ভুলই বিপর্যয় ডেকে আনে। নেমাররা এই ম্যাচে একের পর এক ভুল করে গেলেন। কেন বারবার বেলজিয়ামের পেনাল্টি বক্সের সামনে গিয়ে হারিয়ে যাচ্ছিলেন উইলিয়ান, রবের্তো ফির্মিনহো-রা? অথচ ৫৭ শতাংশ বলের দখল ছিল ফিলিপে কুটিনহোদের। ৫৫৭টির মধ্যে ৪৯২টি নিখুঁত পাস। শট নিয়েছিলেন ২৬টি। যার মধ্যে লক্ষ্যে ছিল নয়টি শট। প্রতি আক্রমণ নির্ভর ফুটবল খেলে অ্যাজারেরা পুরো ম্যাচে আটটি শট নেন। লক্ষ্যে শট তিনটি। পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট, আধিপত্য কাদের ছিল। রেকর্ড বুকে লেখা থাকবে ব্রাজিলকে ২-১ হারিয়ে ৩২ বছর পরে সেমিফাইনালে উঠল বেলজিয়াম। কেউ মনে রাখবে না ২০১৮ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে দুর্ধর্ষ ফুটবল খেলেছে ব্রাজিল।

হতাশ করেছেন নেমারও। প্রথমার্ধে একেবারেই ছন্দে ছিলেন না। অকারণে পায়ে বল রাখছিলেন। সুইৎজ়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচেও একই কাজ করেছিলেন। সে দিন ম্যাচ রিপোর্টে লিখেছিলাম, নেমারের উচিত, দ্রুত পাস দিয়ে জায়গা নেওয়া। পায়ে বেশি ক্ষণ বল রাখার চেষ্টা করলে ভুল করবেন। পরের তিনটি ম্যাচে নিজেকে শুধরে নিয়েছিলেন। বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে নেমারের ফের বল পায়ে রাখার প্রবণতা দেখলাম।

বেলজিয়ামকেও কৃতিত্ব দিতে হবে। জাপানের বিরুদ্ধে শেষ ষোলোর ম্যাচে ০-২ পিছিয়ে পড়েছিল। সেই ম্যাচে ওদের রক্ষণ ও মাঝমাঠের ফুটবলারদের মধ্যে কোনও বোঝাপড়া ছিল না। ব্রাজিলের বিরুদ্ধে সেই ভুল শুধরে নিয়েই বাজিমাত করলেন অ্যাজারেরা।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.