১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১২:২৩
স্কুল ছাত্রীকে এসিড নিক্ষেপ

চরফ্যাশনে রাতের আঁধারে স্কুল ছাত্রীকে এসিড নিক্ষেপ,আটক-৫

ভোলা প্রতিনিধি॥  ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার শশীভূষণ থানার রসুলপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডে রাতের আঁধারে আয়শা (১৩)নামের এক অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে এসিডে নিক্ষেপ করেছে দুর্র্র্বৃত্তরা। রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ৩ টায় দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আয়শা স্থানীয় শশীভূষণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী এবং রসুলপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বাবুলের মেয়ে।

থানা ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে দাদা মান্নান খনকারের বসতঘরের একটি কক্ষে একাই ঘুমিয়ে ছিল আয়েশা। ওই কক্ষের জানালা খোলা ছিল। ওই খোলা জানালা দিয়ে রাত সাড়ে ৩টার সময় কে বা কাহারা আয়েশার গায়ে এসিড ছুঁড়ে পালিয়ে যায়। এসিড আক্রান্ত আয়েশাকে সোমবার সকাল সাড়ে ৭ টায় চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিক্ষিপ্ত এসিডে আয়েশার মুখের ডান চোয়াল ও গলা, ডান হাতের বেশীর ভাগ অংশ এবং পায়ের উর্ধাংশ ঝলসে যায়। গভীর রাতে ডাক-চিৎকারে স্বজনরা ছুঁটে আসেন এবং তাকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. নুরমোহাম্মদ তালুকদার জানান,তার গায়ে এসিড জাতীয় দাহ্য পদার্থ ছোঁড়া হয়েছে। তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। চরফ্যাশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আয়েশা জানান, তিন যুবক স্কুল ও কোচিং-এ আসা-যাওয়ার পথে তাকে প্রায়ই উত্ত্যক্ত করতো। তাদের কেউ এ ঘটনা পারে বলে সে জানায়। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, আয়েশা একই সাথে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া একাধিক কিশোর ও যুবকের সাথে প্রেম-প্রণয়ে জড়িয়ে ছিল। বহুপ্রেমের অনাকাঙ্খিত পরিনতি হিসেবে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

শশীভূষণ থানায় অফিসার ইনচার্জ(ওসি) হানিফ সিকদার এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (লালমোহন সার্কেল) রাসেলুর রহমানসহ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় থানায় কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। তবে এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।

তবে ভিক্টিমের দেয়া তথ্যানুযায়ী জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শশীভূষণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র রাকিব ও একই স্কুলের সাবেক ছাত্র জুলহাস, কাশেমগঞ্জ স্কুলের ১০ম শ্রেণির ছাত্র আইমান এবং রহিমা ইসলাম কলেজের একাদ্বশ শ্রেণির ছাত্র তমাল ও খালেদকে আটক করা হয়েছে। এছাড়াও স্থানীয় কলেজের আরো ২ শিক্ষার্থীকে আটকের জন্য পুলিশ অভিযান অব্যহত রয়েছে। আটক শিক্ষার্থীরা আয়েশার সাবেক ও বর্তমান প্রেমিক বলে জানা যায়।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.