২০শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৫ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৫৮
সর্বশেষ খবর
মোমিনুল আমিন। বিশেষ সহকারী, এনডিএম চেয়ারম্যান।

জন্মদিনের অনুভূতিটা জোয়ার-ভাটার মত

আজ ২৫ জুন! তিন দশকের কিছু বেশী সময় আগে এইদিনটা ছিলো আমার পরিবারের সবচেয়ে আনন্দের দিন। সেদিন এই পৃথিবীতে মহান আল্লাহ্‌র হুকুমে ফিতরাতের (সত্য গ্রহণ করার যোগ্যতা) উপর আমার জন্মগ্রহণ করাটা ছিলো হয়তো অতি সাধারণ এক ঘটনা। কিন্তু আমার বাব-মার আনন্দ যে ছিলো আকাশছোঁয়া সেটা নিয়ে সন্দেহ নাই। আর আমার জন্য শুরু হলো পরীক্ষা। যদিও শরীয়তের বিধি-বিধানের আবশ্যকতা থেকে নির্দিষ্ট বয়স পর্যন্ত অবকাশ ছিলো কিন্তু দুনিয়াতে শেষদিন পর্যন্ত কি করে যেতে পারলাম সেটাই হবে আমার জন্মের স্বার্থকতা নিরুপণের একমাত্র মাপকাঠি। বিচার দিবসে মানুষের আমলনামা প্রত্যেককে বুঝিয়ে দেয়া হবে এবং তখন সেটা পাঠ করে সে নিজেই তাঁর পরিণতি বুঝতে পারবে।
জীবনের প্রথম বাবা বিহীন জন্মদিনটা এমন এক সময় পালন করছি যখন বাংলাদেশের রাজনীতি এক গভীর সঙ্কটে নিমজ্জিত। গণতন্ত্রের আভিধানিক বা ব্যবহারিক অর্থ কি, ঠিক কোন ধরণের প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা গণতন্ত্রকে অর্থবহ করে তুলে সেসব এখন মানুষের কাছে গৌণ বিষয়। দুর্ণীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বলি কিনা, মাদক বিরোধী অভিযানে কথিত ক্রসফায়ারের নামে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা হচ্ছে কিনা, ঠিক কত টাকায় আগামী নির্বাচনে দলের টিকিট পাওয়া যাবে এসব আলোচনাকে ছাপিয়ে যেয়ে মানুষের মনে অজানা শঙ্কা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে যেয়ে নিজের ভোটটি দিতে পারবে কিনা। দায়িত্বটা তাই অনেক বেশী। যেদিন থেকে জাতীয় পর্যায়ের রাজনীতি শুরু করেছি প্রত্যেকটি জন্মদিন নিজেকে আরো পরিণত করে তোলার উপলক্ষ হিসাবে হাজির হয়েছে। প্রত্যেক বছর ঈদের সময় ঘরে ফেরা মানুষের সীমাহীন দূর্ভোগ আর মহাসড়কে মৃত্যুর মিছিল বেমালুম ভুলে সরকারি দলের সাধারণ সম্পাদক যখন গণমাধ্যমের সামনে নির্লজ্জের হাসি দিয়ে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে যায় তখন মনে হয় ঘরে বসে শুধু অন্তরে ঘৃণা করার দিন শেষ। সময় এখন প্রতিরোধের। সরকারের অর্থমন্ত্রী যখন ব্যাংকিং খাতের বিপর্যয়কে এড়িয়ে যেয়ে, নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগের রুপরেখা উপস্থাপন না করে এবং ক্রমবর্ধনশীল উন্নয়ন প্রকল্প সমূহের দীর্ঘমেয়াদি ব্যবস্থাপনার পরিকল্পনা উল্লেখ না করেই বাজেট পেশ করে তখন আসলেই কবির কথা মনে হয় উদ্ভট উঠের পিঠে চলেছে স্বদেশ।
জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন-এনডিএম চেয়ারম্যানের বিশেষ সহকারী হিসাবে জাতীয় ইস্যুতে জনগণের পাশে দাঁড়ানোর দায়বদ্ধতা থেকে শুরু থেকেই রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করে আসছি। সরকারের রক্ষচক্ষুকে উপেক্ষা করে যেমন ন্যায় ও সত্যের পথে বক্তব্য দিয়েছি তেমনি দিন-রাত পরিশ্রম করে তৃণমূল পর্যায়ে দলকে সংগঠিত করার কাজ করে যাচ্ছি। লক্ষ্য একটাই, জননেতা ববি হাজ্জাজের নেতৃত্বে “দেশ হবে জনতার” শ্লোগান বাস্তবায়ন করা। জীবনের প্রতিটি দিন তাই আমার কাছে নতুন। প্রত্যেকটি নতুন সূর্য যখন উদিত হয় তখন হিসাব করতে হয় আমার মহান প্রতিপালক আমার উপর সন্তুষ্ট কিনা। এনডিএম যে দায়িত্ব আমার উপর দিয়েছে সেটা আমানত। দিনশেষে জবাবদিহিতাটা নিজের কাছেই। জন্ম থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত প্রত্যেক মানুষ বয়স এবং অবস্থানভেদে ভিন্ন ভিন্ন দায়িত্ব পালন করে থাকে। জীবনের প্রতিটি বাঁক, চলার পথের প্রতিটি মহুর্ত, প্রতিটি কথা, প্রতিটি কাজ এবং প্রত্যেকটি কাজের পিছনে মানুষের অন্তরের ইচ্ছা কি ছিলো এবং সর্বোপরি ঈমানের সাথে মৃত্যুবরণ করলো কিনা সেই হিসাব আল্লাহ্‌পাক মানুষের কাছ থেকে নিবেন এবং কারো প্রতি এক চুল পরিমাণ বে-ইনসাফ করা হবে না। এমনকি জান্নাতে প্রবেশের আগ মুহুর্তে দুনিয়াতে কেউ যদি কারো সম্পদ বা হক নষ্ট করে থাকে, কারো মনে আঘাত বা কষ্ট দিয়ে থাকে তাহলে তা নিজের অর্জনকৃত নেকী (পূণ্য) দিয়ে মজলুম ব্যক্তিকে পরিশোধ করতে হবে এবং তা করতে যেয়ে নেকী শেষ হয়ে গেলে বঞ্চিত ব্যক্তির পাপ নিজের ঘাড়ে নিয়ে জান্নাতের দরজা থেকে ফিরে এসে জাহান্নামে প্রবেশ করতে হবে। দোজাহানের সৃষ্টিকর্তা মহান আল্লাহ্‌পাক যখন এই বিধান জারি করেছেন তখন প্রতিটি জন্মদিনকে নতুন করে ভাবতে হয়।
এজন্য পবিত্র কোরআন শরীফে সূরা আল-আসরে কাল বা ইতিহাসের শপথ করে মহান আল্লাহ্‌পাক বলেছেন সমগ্র মানবজাতিই ক্ষতির মধ্যে নিমজ্জিত শুধু তাঁরা ছাড়া যারা ঈমান আনয়ন করে, সৎকাজ করে, মহাসত্যের ব্যাপারে একে অপরকে উপদেশ দেয় এবং ঈমান আনার পর যেসব পরীক্ষা বা বিপদ আসে তখন ধৈর্য ধারণের উপদেশ দেয়। সুতরাং দেখা যাচ্ছে জন্মগ্রহণের স্বার্থকতাই হলো ঈমানের উপর অটল থাকা এবং মানুষকে ধৈর্য সহকারে ন্যায় এবং সত্যের পথে আহবান করা। নতুন দল হিসাবে এনডিএম প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আমরা সব ধরণের প্রতিকূলতাকে জয় করে মানুষের কাছে আদর্শিক রাজনীতির বার্তা পৌছে দিচ্ছি।
জন্মদিনের অনুভূতিটা জোয়ার-ভাটার মত। জীবনে ছোট ছোট সাফল্য স্মরণ করে যখন এইদিনটিতে আনন্দ পাই তেমনি “মালাকুল মউত” এর দর্শন লাভের পথে একধাপ এগিয়ে যাওয়ার শঙ্কাও প্রবল হয়। এটাই প্রত্যেকের হওয়া উচিৎ। সেই জীবনই তো সাফল্যময় যখন মৃত্যুর সময় মানুষ হাসতে থাকে আর দুনিয়া তাঁর বিদায়ে কাঁদতে থাকে। আমার জন্মদিনে যারা বিভিন্নভাবে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তাঁদের কাছে সবসময় দোয়া প্রার্থী। তাঁদেরকে জানাই অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে ধন্যবাদ। একইসাথে কারো মনে ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় আঘাত বা কষ্ট দিয়ে থাকলে ক্ষমাপ্রার্থী যদিও সেটা ব্যক্তিগতভাবে প্রত্যেকের কাছে চাওয়াটা আবশ্যক। সামনের দিনে জীবনের মহান কর্তব্য পালনে সকলকে পাশে পাবো, প্রত্যাশা এটাই।
মোমিনুল আমিন। বিশেষ সহকারী, এনডিএম চেয়ারম্যান।
শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.