১৭ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১২:২৩
সর্বশেষ খবর

সারাদেশে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

দিনিউজ ডেস্ক:

টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারে টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তিন ইউনিয়নে শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। হবিগঞ্জে খোয়াই নদীর পানি কমলেও জেলার অন্য নদীগুলোর পানি বেড়েই চলেছে। ফেনীর মুহুরী নদীর আটটি পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে ২০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। সাতক্ষীরার আশাশুনিতে খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙে শতাধিক মত্স্য ঘের ও ফসলি জমি তলিয়ে গেছে। অন্যদিকে খাগড়াছড়ি জেলা শহর ও রামগড় উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও অপরিবর্তিত রয়েছে জেলার দীঘিনালা উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি।

ফেনী : টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে ফেনীর মুহুরী নদীর আটটি পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে ফুলগাজী ও পরশুরাম উপজেলার ২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পাহাড়ি ঢলে ফুলগাজীর ছয়টি স্থানে ও পরশুরামের চিথলিয়া ইউনিয়নের দুটি স্থানে বাঁধ ভেঙে যায়। এতে জোয়ারের পানি লোকালয়ে প্রবেশ করায় এসব গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। এলাকার গ্রামীণ সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে শত শত পুকুর ও মাছের ঘের। অনেক বাড়িতে ঘরে ঢুকে পড়েছে পানি।

সাতক্ষীরা : জেলার আশাশুনিতে খোলপেটুয়া নদীর বাঁধ ভেঙে একটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। আর পানিতে তলিয়ে গেছে শতাধিক মত্স্য ঘের ও ফসলি জমি। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে অর্ধশতাধিক পরিবার। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার আনুলিয়া ইউনিয়নের বিছট গ্রামের সরদার বাড়ির সামনে ৭/২ পোল্ডার-সংলগ্ন এলাকায় খোলপেটুয়া নদীর তিনটি স্থানে প্রায় দেড়শ ফুট বেঁড়িবাধ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রবল জোয়ারের চাপে হঠাত্ করেই দুপুরে বাঁধটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এতে অর্ধশতাধিক পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে শতাধিক মত্স্য ঘের ও ফসলি জমি। আনুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আলমগীর আলম জানান, প্রায় ছয় মাস ধরে বাঁধটি ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। বাঁধ সংস্কারে পানি উন্নয়ন বোর্ড কোনো উদ্যোগ নেয়নি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের গাফিলতির কারণেই প্রতাপনগর ইউনিয়নবাসীর এই দুর্দশা।

মৌলভীবাজার : গত তিন দিনের টানা বৃষ্টি ও ভারত থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে মনু ও ধলাই নদীর পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করেছে। এতে গ্রাম প্রতিরক্ষা বাঁধ ভেঙে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ, কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলার নয়টি ইউনিয়নের ১২টি স্থান ভেঙে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়েছে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ। ডুবে গেছে আউশ ধান, সবজি খেতসহ গ্রামীণ সড়ক। আকস্মিক বন্যায় চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এলাকাবাসী। দুই দিন পার হয়ে গেলেও শুধু কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ তত্পরতা চোখে পড়ে। অন্য দুই উপজেলার পানিবন্দীরা এখনো কোনো ত্রাণ পাননি। ফলে  বন্যাদুর্গত এলাকায় খাদ্য সংকটে রয়েছেন লক্ষাধিক মানুষ। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, বুধবার বন্যাকবলিত মানুষের জন্য প্রাথমিক অবস্থায় ১১৫ টন চাল ও দেড় লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জের খোয়াই নদীতে পানি কমলেও অন্যান্য নদীতে পানি বেড়েই চলেছে। গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে শহর ঘেঁষে বয়ে যাওয়া খোয়াই নদীর পানি বিপত্সীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এর ফলে হুমকিতে ছিল হবিগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধ। আতঙ্ক বিরাজ করে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে।

লালমনিরহাট : ভারী বর্ষণ ও উজানের ঢলে শুকিয়ে থাকা তিস্তায় হু হু করে পানি বাড়ছে। ব্যারাজ পয়েন্টে পানি বিপত্সীমা ছুঁই ছুঁই করছে। বুধবার সন্ধ্যার পর থেকে রংপুর অঞ্চলে ভারী বর্ষণের ফলে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় অবস্থিত দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজে পানি বাড়তে থাকে।

খাগড়াছড়ি : প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে খাগড়াছড়ি জেলা শহর ও রামগড় উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে জেলার দীঘিনালা উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় চার সহস্রাধিক পরিবার এখনো পানিবন্দী এবং বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে তিন সহস্রাধিক পরিবার অবস্থান করছে। দীঘিনালা উপজেলার ২০টি আশ্রয়কেন্দ্রের দেড় হাজার পরিবারের কেউ বাড়িঘরে ফিরতে পারছে না। বৃষ্টি না হওয়ায় খরস্রোতা ফেনী ও চেঙ্গী নদীর পানি কমতে শুরু করায় বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। রাস্তার ওপর থেকে পানি সরে না যাওয়ায় দীঘিনালা-মেরুং-লংগদু সড়ক ও খাগড়াছড়ি-রাঙামাটি সড়ক যোগাযোগ এখনো বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ফটিকছড়ি-নাজিরহাট এলাকায় রাস্তার ওপর পানি উঠে যাওয়ায় খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম সড়কেও যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।

 

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.