১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:২০
সর্বশেষ খবর
জাতীয় সংসদে ইসরাফিল আলম

বিশ্বের অত্যন্ত প্রিয় মর্যাদাশীল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিশেষ প্রতিবেদকঃ শেখ হাসিনা এখন শুধু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নন, শুধু বাংলাদেশ আওয়ামীলীগে সভানেত্রী নন, তিনি শুধু আমাদের জাতীর পিতার কন্যা নয়, তিনি এখন বাংলাদেশের অমূল্য সম্পদ, সারা বিশ্বের আলোচিত অত্যন্ত প্রিয় মর্যদাশীল প্রধানমন্ত্রী। বলনে নওগাঁ ৬ আসনের সাংসদ জননেতা ইসরাফিল আলম।

আজ ১২ই জুন মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের বাজেটের উপর বক্তব্যে এসব কথা বলেন নওগাঁ ৬ আসনের সাংসদ, বাংলাদেশ জাতীয় পল্লী উন্নয়ন সমবায় ফেডারেশনের চেয়ারম্যান জনাব মোঃ ইসরাফিল আলম।

জননেতা ইসরাফিল আলম বলেন, বাংলার প্রতিটি মানুষের জন্য, বাঙ্গালী জাতির জন্য, প্রতি ইঞ্চি ধুলিকণার জন্য উনাকে রাষ্ট্রক্ষমতায় রেখে বাংলাদেশের উন্নয়নকে তরান্বিত করতে হবে। জাতির পিতা শেখ মুজিবের আরাধ্য স্বপ্নগুলি বাস্তবায়ন করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে সাংসদ ইসরাফিল আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৭টি পুরস্কার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছেন তারমধ্যে জাতিসংঘ দিয়েছে ৪টি। উনি বিশ্বের চতুর্থ সিদ্ধান্তদানকারী প্রধানমন্ত্রী, বিশ্বের ৩ জন সৎ প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে উনি একজন। যার নেতৃত্বে কাজ করতে পেরে আমরা অত্যন্ত গৌরাবন্বিত এবং সম্মানিত।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ডেভেলপমেন্ট বোর্ড বাস্তবায়ন করেছি। এবার সাসটেইবল ডেভলেপমেন্ট বোর্ড এ কাজ করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একটা সমন্বয় সেল গঠন করা হয়েছে। যার ফলে এবারেও অবশ্যই সফলতা অর্জন করতে পারব।

বিজ্ঞ পার্লামেণ্টারিয়ান বলেন, মহাকাশ জয়ের যাত্রা ১৯৯৭ সালে প্রধানমন্ত্রী প্রথম এই মহাকাশ জয়ের স্বপ্ন দেখে সেখানে অর্থ বরাদ্দ দিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন। কিন্তু সেই কাজ বিএনপি জামায়াতের সময় কার্যক্রম বন্ধ ছিল তাই আমাদের রাশিয়াদের নিকট থেকে স্পেস ভাড়া নিয়ে স্যাটেলাইট স্থাপন করতে হল। বিএনপি জামায়েত যদি বন্ধ না করতেন তাহলে এই স্পেস ভাড়া নিতে হত না। যেভাবে সাইবার ক্যাবল আমরা বিনা পয়সায় নিতে পারতাম কিন্তু ঊনাদের পশ্চাতপদ সিদ্ধান্তের কারণে কোটি কোটি টাকা দন্ড দিতে হয়েছে।

মধ্য আয়ের দেশ স্বীকৃতি প্রসঙ্গে সাংসদ ইসরাফিল আলম বলেন, আমরা মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছি সেখানে প্রয়োজন ছিল মাথাপিছু ১২৩০ ডলার তখন আমাদের সরকার পেয়েছিল ১২৭১ ডলার। সেইজন্য আমরা মধ্য আয়ের দেশের সম্মান পেয়েছি। মানব সম্পদের সূচকে প্রয়োজন হয় ৬৬ আর আমরা সেখানে পেয়েছিলাম ৭২.৯। ২০৪১সালের মধ্যেই সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে আমাদের বাংলাদেশ।

এবার বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে সার্বজনীন উন্নয়ন সূচকে ভারত ও পাকিস্তানকে আমরা অতিক্রম করেছি। এই উন্নয়নের মাধ্যমে প্রমাণিত হল ১৯৭১ সালের স্বাধীনতার যুদ্ধ যৌক্তিক ছিল।

কর্মসংস্থান সম্পর্কে তিনি বলেন, দেশের বাইরে প্রতিবছর দশ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান করছে এই সরকার এবং দেশের ভিতরে যদি ছয় সাত লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির সম্ভব হয় তাহলে এদেশে আর বেকারত্ব থাকবে না। আমাদের প্রতিবছর ৬ থেকে ৭ লক্ষ লোক বেকার থেকে যাচ্ছে। বাজেট বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন গত ৯ বছরে ৬৩ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।

এবার ৬৪ হাজার কোটি টাকা সামাজিক নিরাপত্তা খাতে দেওয়া হয়েছে এই টাকা গুলোকে যদি শ্রমমাধ্যম ও উৎপাদনমূখী কাজে উপযুক্ত ব্যবহার করা যায় তবে বেকারত্ব দুরীকরনে সফলতা অবশ্যম্ভাবী। দারিদ্রতা হ্রাসের জন্য ১০ হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম।

এই বাজেটে সার্বজনীন পেনশন ভাতার ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতেকটা বৃদ্ধ মানুষ পেনশন ভাতা পাবেন। তাই এই সরকার চির স্মরনীয় হয়ে থাকবে সাধারন মানুষের মাঝে।

ডিজিটাল বাংলাদেশের কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন, ইকমার্সের উপর ১৫% ভ্যাট বসানো হল। গ্রামের ছেলেমেয়ে, বেকার লোকেরা কুটির শিল্পসহ অন্যান্যভাবে তৈরিকৃত পণ্য ইকমার্সের মাধ্যমে বিক্রি করছে তাদের প্রতি এই ভ্যাট বসালে তাদের কার্যক্রম বাধাগ্রস্থ হবে। সেই জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ডিজিটাল বাংলাদেশে উত্তোরনের পর ভ্যাট বসানো যেতে পারে।

অতিশ দীপংকর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান শিক্ষাবিদ ইসরাফিল আলম শিক্ষা প্রসঙ্গে বলেন, এতগুলি স্কুল জাতীয়করণ করলেন যেখানে বিএনপিও দেখলেন না জামায়েতও দেখলেন না। ২৬০০০ প্রাইমারি স্কুল জাতীয়করণ করলেন সেই দাবীগুলো তেমন জোড়ালো ছিল না, তেমন যৌক্তিকতা ছিলনা অন্যদিকে যারা শিক্ষার আলো দিচ্ছে তাদের জীবিকার জন্য সুযোগ করে দিলেন না, ভাতা দিলেন না, এটাতো ন্যায় বিচার হতে পারে না। অর্থাৎ যারা শিক্ষকতা করছে ছাত্রছাত্রীদের পড়াচ্ছেন তাদেরকে এমপিও ভূক্তির আওতায় আনার জোড়ালো দাবী জানান তিনি।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.