২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৩৭
ট্রাম্প-কিমের ঐতিহাসিক বৈঠক

ট্রাম্প-কিমের ঐতিহাসিক বৈঠক চলছে সিঙ্গাপুরে

নিউজ ডেস্কঃ বৈঠকে বসেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের একান্ত বৈঠক শেষে ইতিবাচক অবস্থানে রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এখন দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে বৈঠক চলছে। খবর সিএনএন ও রয়টার্সের।

দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ের বহু আকাঙ্ক্ষিত এ বৈঠক আজ মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরের কাপেলা হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়। কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি প্রতিষ্ঠার সুযোগ তৈরি করছে এই বৈঠক। তবে বৈঠকে দুই নেতার আলোচনার বিষয়গুলোই মানুষের আগ্রহের কেন্দ্রে রয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র থেকে শুরু করে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা বলছেন তাঁরা।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টা (বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টা) সিঙ্গাপুরের সেন্তোসা দ্বীপের পাঁচ তারকা ক্যাপেলো হোটেলে তারা বৈঠকে বসেন। এর আগে পরস্পরের সঙ্গে করদর্মন ও হাসি বিনিময় করেন এ দুই বিশ্বনেতা।

মঙ্গলবার সকালে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথে দেখা হলে কিম বলেন, আপনার সাথে দেখা হওয়া খুশি হয়েছি, মিস্টার প্রেসিডেন্ট।  এসময় কিম এবং ট্রাম্প উত্তর কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা সম্বলিত ব্যাকড্রপ পেছনে রেখে বসছিলেন। ট্রাম্প দুপক্ষের মধ্যে দারুণ একটি সম্পর্ক গড়ে উঠার আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন।

ট্রাম্প কিমকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমার দারুণ লাগছে। এটি দারুণ একটি আলোচনা হতে যাচ্ছে এবং আমি মনে করি দুর্দান্ত সাফল্যের মুখ দেখবে এ আলোচনা।

জবাবে কিম বলেন, কিন্তু, ভালো সম্পর্কে রূপ দেয়া এতোটা সহজ নয়। আমাদের অতীত ইতিহাস আমাদের সামনে অনেকগুলো বাধা দাড় করিয়ে রেখেছিলো, আমরা সকল বাধা অতিক্রম করে আজকের অবস্থানে এসেছি।

এইসময় দুই বিশ্বনেতাকে আত্মবিশ্বাসী দেখাচ্ছিল কিন্তু একই সঙ্গে একটু স্নায়ুচাপের মধ্যে যে তারা ছিলেন সেটাও বুঝা যাচ্ছিল।

বৈঠক শেষে সিঙ্গাপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। পরে রাতে সিঙ্গাপুর ছাড়বেন তিনি। বিরল এ বৈঠকের সংবাদ সংগ্রহ করতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় আড়াই হাজার সাংবাদিক ইতোমধ্যে সিঙ্গাপুরে পৌঁছেছেন। সাংবাদিকদের সামনে এই দুই বিশ্বনেতা আধাঘণ্টার মতো থেকে হোটেলের সম্মেলন কক্ষে ঢুকে যান। সম্মেলনকক্ষে তাদের জন্য অপেক্ষা করছিলো দুই দেশের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বৈঠক চলছিল।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.