১৯শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৪৮
ঔষধ ছাড়াই নিরাময় করুন বহুমূত্র রোগ বা ডায়াবেটিস, ঔষধ ছাড়াই রোগ নিরাময়, নিরাময় করুন বহুমূত্র রোগ বা ডায়াবেটিস, ডায়াবেটিস রোগ নিরাময়, ডায়াবেটিস রোগের চিকিৎসা, বহুমুত্র রোগের চিকিৎসা, নিজেই দূর করুন ডায়াবেটিস, ডায়াবেটিস রোগের চিকিৎসা, ডায়াবেটিস রোগের যৌগিক চিকিৎসা, ডায়াবেটিস রোগ নির্মুল, ডায়াবেটিস রোগ প্রতিরোধ

ঔষধ ছাড়াই নিরাময় করুন বহুমূত্র রোগ বা ডায়াবেটিস

বহুমূত্র রোগঃ বহুমূত্র রোগের মূলেই রয়েছে অজীর্ণ রোগ। যোগ শাস্ত্রের ভাষায় অগ্নিগ্রন্থির দূর্বলতাই বহুমূত্র রোগের প্রধান কারণ। সূর্যগ্রন্থি(Pancreas) এবং যকৃৎ(Liver)ই অগ্নিগ্রন্থির অন্তর্গত প্রধান গ্রন্থি। এই গ্রন্থিদ্বয়ের ক্রিয়া বিপর্যয়ের ফলেই বহুমূত্র রোগ সৃষ্টি হয়। সূর্যগ্রন্থির অন্তনিঃসৃত রসের একাংশ প্রবাহিকা নাড়ী অর্থাৎ উর্ধ্ব অন্ত্রে সঞ্চিত খাদ্যবস্তুকে জীর্ণ করে, উহার অন্তর্নিঃসৃত রসের আর এক অংশ খাদ্যবস্তু হইতে গ্লুকোজ বা চিনি তৈয়ারি করিয়া উহা সূর্যগ্রন্থিকোষে সঞ্চিত রাখিবার ব্যবস্থা করে। এই সঞ্চিত চিনিই প্রয়োজনমত দগ্ধ হইয়া দেহের তাপ, দেহস্থ পেশী, তন্তু ও স্নায়ুর জীবনীশক্তি অটুট রাখে।

এই সূর্যগ্রন্থি ও যকৃতের ক্রিয়া দুর্বল হইয়া পড়িলে যকৃৎ তখন আর প্রয়োজনানুরূপে বন্টনের জন্য চিনি স্বীয় কোষে সঞ্চিত করিয়া রাখিতে পারে না। এই চিনি রক্তে যথেচ্ছভাবে প্রবেশ করিয়া রক্তের ক্ষারভাগ(Alkalinity) নষ্ট করিয়া দেয়; ফলে রক্ত তখন সমস্ত দেহযন্ত্রকে বিশুদ্ধ পুষ্টিকর খাদ্য পরিবেশন করিতে পারে না; রক্তের ক্ষারধর্ম নষ্ট হইলে রক্তের রোগবিষ প্রতিরোধ করার ক্ষমতাও দ্রুত হ্রাস পায়। দেহপ্রকৃতি তখন রক্তমিশ্রিত এই অপ্রয়োজনীয় এবং অনিষ্টকারী চিনিকে তরল করিয়া মূত্রগ্রন্থির(Kidney) সাহায্যে ছাঁকিয়া মূত্রের সহিত দেহ হইতে বাহির করিয়া দেওয়ার ব্যবস্থা করে। রক্তের চিনিকে তরল রাখিবার জন্য দেহে প্রচুর জলের প্রয়োজন হয় –এইজন্যই বহুমূত্ররোগীর পুনঃ পুনঃ জল পিপাসার উদ্রেক হয় এবং জলই আবার প্রস্রাবরূপে দেহ হইতে অনিষ্টকারী চিনি বাহির করিয়া দেয়। প্রস্রাবে চিনি থাকে বলিয়াই উহাতে মাছি ও পিপড়া বসে।

সাধারণ ডাক্তারেরা ভুলক্রমে এই রোগকেও বহুমূত্র মনে করিয়া ইন্‌সুলিন ইন্‌জেকশন দেন। ইহার ফলে ইন্‌সুলিন বিষে হতভাগ্য রোগী অবিলম্বে মৃত্যুমূখে পতিত হয়।

এই রোগের কারণঃ দাম্পত্যজীবনে উচ্ছৃলতায় রক্ত নিস্তেজ হইয়া অগ্নিগ্রন্থির ক্রিয়া দুর্বল হইলে এই রোগ সৃষ্টি হইতে পারে। অতিরিক্ত মানসিক পরিশ্রম এবং দুশ্চিন্তা-দুর্ভাবনাও অগ্নিগ্রন্থিগুলিকে দুর্বল করিয়া এই রোগ সৃষ্টি করিতে পারে। যাহারা অতিরিক্ত চা পান করে অথবা প্রত্যহ ক্ষীর, সন্দেশ, রসগোল্লা প্রভৃতি চিনি সংযুক্ত মিষ্টদ্রব্য আহার করে তাহাদের দেহে প্রয়োজনতিরিক্ত চিনি সঞ্চিত হওয়ার ফলেও এই রোগ সৃষ্টি হইতে পারে। অতিরিক্ত মাছ, মাংস বা ডিম ভক্ষণে অথবা অতিরিক্ত ঘৃত মাখন ও ঘৃতপক্ক জিনিস ভোজনে যকৃত ও প্লীহা দুর্বল হইলেও এই রোগ সৃষ্টি হয়। অন্যান্য কারণেও স্বাস্থ্যভঙ্গ হইলেও এই রোগের উদ্ভব হইতে পারে।

চিকিৎসাঃ কোনো ঔষধেই এই রোগ সম্পূর্ণ আরোগ্য হয় না। যৌগিক ক্রিয়া অভ্যাসে নূতন রোগ খুব দ্রুত আরোগ্য হইবে। রোগ পুরাতন হইলে সম্পূর্ণ আরোগ্য হইতে একটু সময় লাগে।

ভোরে সহজ বস্তিক্রিয়া ও তদনুষঙ্গী আসন-মূদ্রাদি। অতঃপর প্রাতঃকৃত্যাদি ও অর্ধস্নান; সহজ অগ্নিসার ৩০ বার, অগ্নিসার ধৌতি ১ নং ২০ বার, ২নং ৬বার; সহজ প্রাণায়াম নং ১, নং ২, নং ৩, নং ৮, বারিসার ধৌতি বা বমন ধৌতি।

মধ্যাহ্নেঃ স্নানের সময় সহজ অগ্নিসার ২৫বার, অগ্নিসার ধৌতি নং ১, নং ২।

সন্ধ্যায়ঃ ভ্রমণ প্রাণায়াম, যোগমুদ্রা, পশ্চিমোত্তান, সহজ অগ্নিসার। সহজ প্রাণায়াম নং ১-৪; বিপরীতকরণী, পবনমুক্তাসন।

আহারান্তে দক্ষিণ নাসিকায় এক ঘন্টা স্বাস প্রবাহ অব্যাহত রাখিবে।

খাবারঃ রোগের সূচনা বুঝিতে পারিলেই উপর্যুপরি ২/৩দিন না খেয়ে থাকবে। শুধুমাত্র পানি পান করিবে; অন্য কোন খাদ্য গ্রহণ করিবে না। অক্ষম হইলে, সুপক্ক অম্রফল অর্থাৎ কমলা, আনারস, আঙ্গুর, ডালিম প্রভৃতি খাইবে। সর্বদা সতর্ক থাকিবে যাহাতে আহারের দোষে অজীর্ণ বা অম্ল সৃষ্টি না হয়, পাকস্থলীতে গ্যাস সৃষ্টি না হয় এবং আহার্যের সহিত অতিরিক্ত চিনি উদরে না যায়। বহুমুত্র রোগের প্রবল অবস্থায় ভাত ও রুটির পরিবর্তে কাঁচা কলা সিদ্ধ, ওল সিদ্ধ বা মানকচু সিদ্ধ খাইবে। চাল, আটা, সাগু, বার্লি প্রভৃতি শ্বেতসারজাতীয় খাদ্য হইতে দেহে চিনি উৎপন্ন হয় এবং আমিষজাতীয় খাদ্যে বহুমূত্র রোগীর যকৃতাদি আরও খারাপ হয়। এই জন্যই এই রোগে আমিষ খাদ্য সম্পূর্ণ বন্ধ রাখা উচিৎ। দধি, নারিকেল প্রভৃতি খাদ্যেও প্রোটিন বিদ্যমান, কিন্তু ইহারা মাছ, মাংস ও ডিম প্রভৃতি আমিষজাতীয় খাদ্যের মতো অম্লধর্মী নয়, বরং শাক-সবজীর মতোই ক্ষারধর্মী।

সুতরাং বহুমূত্ররোগী আমিষ খাদ্য বর্জন করিয়া উপরি উক্ত দধি ও নারিকেল হইতে দেহের পক্ষে প্রয়োজনীয় প্রোটিন উপাদান সংগ্রহ করিবে। সুপক্ক কলা, বিলাতী বেগুন, থোড়, মোচা, ডুমুর এবং অন্যান্য শাকসবজি, বিশেষভাবে টাটকা শাক-পাতা এবং টক ও মিষ্টি ফল এই রোগে সুপথ্য। চা, সিগারেট প্রভৃতি মাদকদ্রব্য যথাসাধ্য বর্জন করিয়া চলিবে। ছানা, সন্দেশ প্রভৃতি সংহত খাদ্য এবং ঘিয়ের তৈয়ারি খাবারাদি এবং আমিষ খাদ্য এই রোগে গ্রহণ করা উচিৎ নয়। এই সব খাদ্য দেহে দুষিত জিনিস(ইউরিক এসিড) সঞ্চিত করিয়া রোগ বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

পরামর্শ পেতে যোগাযোগঃ  আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অব যোগ ও যৌগিক হাসপাতাল এর ঢাকা সেন্টার ১৬ স্বামীবাগ নতুন সড়ক, ঢাকা। মেইলঃ yogabangla@gmail.com. ফোনঃ ০১৭১১১৩৯৪০১

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.