১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৪৭

সাধারণ নারীর ব্যবসায়ীক সাফল্য

ঘরেই বসে থাকতেন স্বামী, কোনো কাজে কর্মে মন ছিল না তাঁর। অন্তঃসত্ত্বা কেন্ড্রা স্কটের দিন কাটছিল দুশ্চিন্তায়। নতুন মা হবেন, এই আনন্দকে ছাপিয়ে দিয়েছিল ভবিষ্যতের শঙ্কা।

কেন্ড্রা বুঝতে পারছিলেন কিছু করতেই হবে তাঁকে। সঞ্চয় বলতে মাত্র ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৪০ হাজার টাকা)। বসে থাকলে তো রাজার ভান্ডারও ফুরায়, তাই ২৮ বছরের কেন্ড্রা যেন শুয়ে থেকেও শান্তি পাচ্ছিলেন না। যুক্তরাজ্যের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অস্টিনে নিজের ছোট্ট বাসার বিছানায় শুয়ে শুয়ে গয়নার নকশা আঁকতেন অন্তঃসত্ত্বা কেন্ড্রা। ওই নকশায় তৈরি করতেন কানের দুল।

এরপর জন্ম নিল তাঁর প্রথম সন্তান। অল্প কয়েক দিনের ছেলেকে বুকের সঙ্গে বেঁধে কাজে লেগে পড়েন কেন্ড্রা। অস্টিনের বিভিন্ন বুটিকের দোকানে গিয়ে নিজের দুল বিক্রি করতে শুরু করেন তিনি। প্রথম দিনেই সাফল্য। সব কটি দুল বিক্রি হয়ে যায়। এসব ঘটনা ১৬ বছর আগের, ২০০২ সালের। ৪৪ বছরের কেন্ড্রার জীবন এখন অন্য রকম। সাফল্যে ঝলমল করছেন, ঢুকেছেন শত কোটিপতির ঘরেও। ফ্যাশন জগতে একনামে সবাই চেনে ‘কেন্ড্রা স্কট ডিজাইন’ কোম্পানির নাম। মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের ২০১৭ সালের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের ৩৬তম ধনী নারী এখন কেন্ড্রা। তাঁর এই সাফল্য অন্যদের চেয়ে অনেক আলাদা। কারণ পুরোপুরি নিজের চেষ্টায় এত দূর এসেছেন কেন্ড্রা।

সফল মানুষের তালিকায় কিন্তু খুব সহজে ওঠেননি কেন্ড্রা। স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর দুই সন্তান নিয়ে এক রকম যুদ্ধ করেই এগিয়েছেন তিনি। বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে উঠে এসে তাঁর জীবনের সেই গল্প।

উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে জন্ম নেওয়া কেন্ড্রা স্কটের শৈশব কাটে ওখানেই। ১৮ বছর বয়সে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার উদ্দেশে টেক্সাসে আসেন তিনি। তবে এক বছরের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে দিতে হয়। এরপর ঠাঁই হয় টেক্সাসের অস্টিনে। প্রায় ১০ বছর ধরে ব্যবসা করেন তিনি। ক্যানসারে আক্রান্ত নারী যাদের কেমোথেরাপি দেওয়া হচ্ছে, তাঁদের জন্য আরামদায়ক টুপি বা হ্যাট তৈরি করতেন তিনি। তাঁর সৎবাবা ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। বাবার কষ্টই ক্যানসার রোগীদের জন্য কিছু করার অনুপ্রেরণা জোগায় তাঁকে। নিজের লাভের কিছু অংশ তিনি স্থানীয় হাসপাতালে দান করে দিতেন।

সে সময় বাজারে দুই ধরনের গয়না ছিল। ভালো মানের খুব দামি গয়না, আর খুবই নিম্নমানের সস্তা। দাম ও মানের এই ব্যবধানের কারণে চাহিদা পূরণের একটা ঘাটতি তৈরি হচ্ছিল। চৌকস কেন্ড্রা বাজারের এ অবস্থা বেশ ভালোভাবেই ধরতে পারেন। শুরু করেন গয়না তৈরির ব্যবসা। ইচ্ছে ছিল ভালো মানের তবে সাশ্রয়ী মূল্যে গয়না তৈরির। তিনি মনে করেন, ‘অর্থনৈতিক অবস্থা যা-ই থাকুক না, প্রতিটি নারীই খুব আত্মপ্রত্যয়ী ও সুন্দর হতে চান।’

প্রথমে পাইকারি হারে বিক্রি করতেন তিনি। বিভিন্ন দোকানে পণ্য জোগান দিতেন। আসলে ব্যবসায় নেমে তাড়াহুড়া করেননি কেন্ড্রা। তাঁর নিজের প্রতিষ্ঠান কেন্ড্রা স্কট ডিজাইন গড়ে তোলেন বেশ ধীরে ধীরে, তবে স্থিতিশীলভাবে।

স্কট মনে করেন, কর্মী হিসেবে অসম্ভব ভালো কিছু মানুষকে পেয়েছিলেন তিনি। এ জন্যই এত বড় প্রতিষ্ঠান তিনি গড়ে তুলতে পেরেছিলেন। কারণ, দ্বিতীয় সন্তান জন্মের পর তাঁর স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। পথচলাটা শুরু হয় পুরোপুরি একা। ‘আমি চেয়েছিলাম, মেধাবী একদল মানুষকে জড়ো করতে, যারা আমাকে ব্যবসা দাঁড়া করাতে সাহায্য করবে’—এভাবেই কর্মীদের কথা বলেন তিনি।

মজার বিষয় হচ্ছে, কেন্ড্রার শক্তি সাত কর্মী, যাঁরা শুরু থেকেই তাঁর সঙ্গে ছিলেন, তাঁরা প্রত্যেকে নারী। এখনো আছেন কেন্ড্রার পাশে। ২০১০ সালে অস্টিনে প্রথম স্টোর খোলেন কেন্ড্রা। অসাধারণ ওই মুহূর্তের কথা মনে করে তিনি বলেন, ‘নিজের তৈরি গয়না দিয়ে প্রচলিত ধারণা পাল্টাতে চেয়েছিলাম।’ তিনি বলেন, ‘সাধারণ গয়নার দোকানগুলো খুব বেশি আনুষ্ঠানিক ধরনের। ভেলভেটের কাপড়ে মোড়া ও বাক্সে আটকানো গয়না দেখতে কেমন ভয় পান সাধারণেরা। আমি চেয়েছিলাম এমন একটি উষ্ণ পরিবেশ তৈরি করতে, সেখানে সবাই সাবলীল থাকবে আর আনন্দপূর্ণ পরিবেশ থাকবে।’

ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। সবাই লুফে নিয়েছে কেন্ড্রার ডিজাইন, নিজস্ব ঢং। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে তাঁর কোম্পানির ৮০টি স্টোর আছে। ২০০০ জন কর্মী আছেন, যার মধ্যে ৯৬ শতাংশই নারী। এমনকি অনলাইনেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিক্রি হয় তাঁর গয়না। বিনিয়োগকারীদের শেয়ার থাকলেও সিংহভাগ শেয়ার রয়েছে কেন্ড্রার হাতেই।

জুয়েলারি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন, কেন্ড্রার সাফল্যের পেছনে মূল চাবি কাঠি হলো ‘বাস্তব চুক্তি’। তিনি নিজের অবস্থা থেকে উঠে আসতে দৃঢ়প্রত্যয়ী ছিলেন। নেইম্যান মার্কাসের ফ্যাশন ডিরেক্টর কেন ডাওনিং বলেন, ‘তাঁর নিজস্ব গয়নাগুলোতে গ্রাহকেরা সেটাই পায়, যেটা তারা চায়। কেন্ড্রা যা করেছে, তা হলো তাঁর তৈরি গয়নার মধ্যে একটি ব্যক্তিগত অনুভূতি দিয়েছে। এমন দামে যা গ্রাহককে সন্তুষ্টির অনুভূতি দেয়।’

পারিবারিক জীবনেও কিন্তু আর একা নন কেন্ড্রা। আবার সংসার গড়েছেন। স্বামী আর তিন সন্তান নিয়ে সফল তিনি সেখানেও।

 

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.