২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৩৫
জাতীয় সংসদে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী

বাংলাদেশে শিশু ও বালক বালিকার সংখ্যা ৫ কোটি ৮৬ লক্ষ ৬৭ হাজার ৪৩১ জন

বিশেষ প্রতিবেদকঃ দেশে ১-১৮ বছর বয়সের শিশু ও বালক বালিকার সংখ্যা মোট ৫কোটি ৮৬ লক্ষ ৬৭ হাজার ৪৩১ জন। তন্মধ্যে বালকঃ ৩ কোটি ১ লক্ষ ৯১ হাজার ৮২৪ জন এবং বালিকাঃ ২ কোটি ৮৪ লক্ষ ৭৫ হাজার ৬০৭ জন।

আজ ১০ই জুন জাতীয় সংসদের ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের বাজেট অধিবেশনে নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে জনাব ইসরাফিল আলম এমপির প্রশ্নের জবাবে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এসব তথ্য তুলে ধরেন।

জনাব ইসরাফিল আলম এমপির প্রশ্নের জবাবে মেহের আফরোজ চুমকি বলেন যে, ঢাকায় সেগুন বাগিচায় মহিলা ও শিশু ডায়াবেটিক চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে মহিলা ও শিশু ডায়াবেটিক, এন্ডোক্রিন ও মেটাবলিক হাসপাতাল নির্মান করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন যে, দরিদ্র মহিলা জনগোষ্ঠির আর্থ সামাজিক অবস্থা, পুষ্টিমান ও জীবনের সঠিকমান উন্নয়নের জন্যে বিত্তহীন মহিলা উন্নয়ন কর্মসূচীর প্রকল্প দেশের ৮টি জেলায় ৩৬টি উপজেলায় গ্রহন করা হয়েছে।

জনাব ইসরাফিল আলম এমপির প্রশ্নের জবাবে মেহের আফরোজ চুমকি আরো বলেন যে, নারী নির্যাতন প্রতিরোধে মহিলাদের আইনগত সহায়তা, প্রশিক্ষন ও সাময়িক আশ্রয় প্রদানের লক্ষ্যে দেশের ৫টি বিভাগীয় শহরে স্থায়ী ভবন নির্মান করা হয়েছে।

তিনি বলেন যে, দেশের ৬৪টি জেলাতে মহিলা প্রশিক্ষন কেন্দ্র (WTC) রয়েছে এবং সেই কেন্দ্র গুলিতে আধুনিক ও যুগোপযোগী ১০টি প্রশিক্ষন কর্মসূচীর মাধ্যমে প্রশিক্ষন প্রদান করা হচ্ছে।

মহিলা ও শিশু বষয়ক মন্ত্রী বলেন, ভিজিডি কর্মসূচীর মাধ্যমে অতি দরিদ্র গ্রামীন মহিলাদের মাসিক ৩০ কেজি হারে চাল ও আইজিএ প্রশিক্ষন প্রদান করে স্ব-কর্ম  সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হচ্ছে।

জনাব ইসরাফিল আলম এমপির প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, দেশের ৬৪টি জেলায় মাসিক ৫০০ টাকা করে দরিদ্র মা’র জন্য মাতৃত্বকাল ভাতা প্রদান করা হচ্ছে এবং মহিলাদের আত্ম কর্মসংস্থানের জন্য ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ কার্যক্রমের মাধ্যমে ঋনগ্রহীতাদের মাঝে ক্ষুদ্রঋণ বিতরণ করা হচ্ছে।

মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের রাজস্ব খাতের আওতায় বর্তমানে ৪৩টি ডে কেয়ার অর্থাৎ শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। যেখনে প্রতি বছর ৩০০০ হাজার জন শিশুকে সেবা প্রদান করা হয়।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী আরো বলেন যে, বাংলাদেশে ২০১২-১৩ অর্থ বছরে ঢাকাসহ রাজশাহী, খুলনা, চট্টগ্রামে মোট ৬টি শিশু বিকাশ কেন্দ্র বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর মাধ্যমে বাস্তবায়ন করছে। প্রতিটা কেন্দ্রে শিশুদের খাবার, বাসস্থানসহ লেখাপড়া ও চিকিৎসা প্রদানের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সেবা প্রদান করে হচ্ছে।

মেহের আফরোজ চুমকি বলেন যে, বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর আওতায় দরিদ্র শিশুদের কল্যানে দেশের ৬৪টি জেলায় শিশু বিকাশ ও প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা কেন্দ্রের মাধ্যমে ৫+ বছর বয়সী শিশুদেরকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির উপযোগী করে তোলা হচ্ছে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর ৬টি জেলা শাখা কমপ্লেক্স নির্মান প্রকল্পটি গত ৩০জুন ২০১৭ তারিখে সফলভাবে সমাপ্ত হয়েছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.