২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৭ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১:৫৪
সর্বশেষ খবর

আধুনিক মেয়েদের প্রশ্ন, হিন্দু মেয়েরা সিঁদুর পরে কেন?

রাজিব শর্মা,চট্টগ্রাম ঃ প্রথমেই বলে নেই এটা আপনাকে যে পরতেই হবে আর না পরলে যে আপনি নরকবাসী হবেন তেমন কোন ধর্মীয় বিধান আমার জানা মতে নেই। তবে কেন শাঁখা সিঁদুর আমাদের হিন্দু বিবাহিত নারীরা পরে আসছে ??
১/আধ্যাত্মিক কারণ : শাঁখার সাদা রং- সত্ত্ব, সিঁদুরের লাল রং – রজঃ এবং লোহার কাল রং- তম গুণের প্রতীক। সংসারী লোকেরা তিনটি গুণের অধীন হয়ে সংসারধর্ম পালন করে।
২/ সামাজিক কারণ : তিনটি জিনিস পরিধান করলে প্রথম দৃষ্টিতেই জানিয়ে দেয় ঐ রমণী একজন পুরুষের অভিভাবকত্বে আছেন। সে কারণেই অন্য পুরুষের লোভাতুর, লোলুপ দৃষ্টি প্রতিহত হয়। স্বামীর মঙ্গল চিহ্ন তো অবশ্যই।
৩/ বৈজ্ঞানিক কারণ : রক্তের ৩টি উপাদান শাঁখায় ক্যালসিয়াম, সিঁদুরে মার্কারি বা পারদ এবং লোহায় আয়রণ আছে। রক্তের ৩টি উপাদান মায়েদের মাসিক রজঃস্রাবের সাথে বের হয়ে যায়। তিনটি জিনিস নিয়মিত পরিধানে রক্তের সে ঘাটতি পূরণে সহায়তা করে।

আর্য ঋষিগণ সনাতন ধর্মের প্রতিটি আচার অনুষ্ঠানেই বৈজ্ঞানিক প্রয়োজনীয়তাকে প্রাধান্য দিয়ে আচার বা অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করেছেন। লক্ষ্য করবেন -* সিঁদুর দেয়ার সময় মায়েরা নিচের দিকে নয়, ঊর্ধ্বায়ণ করে। কেন? সিঁদুর ঊর্ধ্বায়ণের মাধ্যমে রমণীগণ নিয়ত তার স্বামীর আয়ু বৃদ্ধির প্রার্থনা করে। *শুভ বিজয়াতে বা বিভিন্ন পূজা পার্বণে মায়ের দেবী দুর্গাকে সিঁদুর ছোঁয়ান বা একে অন্যে সিঁদুর পরান। কেন? দুর্গা দেবীর কাছে প্রার্থনা করেন সিঁথির সিঁদুর যেন অক্ষয় থাকে। একে অন্যকে পড়ান সে বাসনাতেই।
আজ আধুনিকতার নামে অনেক মেয়েই মনে করেন শাঁখা সিঁদুর পরানোর নামে তাদেরকে হেয় করা হচ্ছে/পুরুষের চেয়ে খাটো করে দেখা হচ্ছে আসলে কি তাই? —
**যে স্বামী আজীবন আপনার পাশে ছায়ার মত থাকার শপথ নিয়েছে তার মঙ্গলের জন্য এতটূকু কষ্ট করতে পারবেন না?
**সৌন্দর্যের বিচারে শ্বেত-শুভ্র শাঁখা আর লাল টকটকে সিঁদুরের মত এত অর্থপুর্ন কসমেটিক্স বর্তমান বাজারে ২য় টি কি আছে?
***আমার এই কথার পর হয়তো নয় শিওর ভাবছেন _ তাহলে ছেলেদের এমন কিছু নেই কেন? তাইতো?-
স্বভাবতই মেয়েরা সাজুগুজু পছন্দ করে। তাই মেয়েদের এই দিক টা মাথায় রেখেই শাঁখা সিঁদুরের মত এত পবিত্র উপকরনের কথা চিন্তা করা হয়েছে । সেদিক থেকে ছেলেরা অনেক দুর্ভাগ্যবান যে তাদের এমন কিছু নেই যা বিয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ স্ত্রীরা তাদের দিবেন এবং সবসময় সাথে রাখবেন। তবে হ্যা বস্তুত কিছু না থাকলেও অদৃশ্য কিছু ১টা অবশ্যই আছে । সেটা আপনার ভালবাসার বন্ধন।
আর
যদি সেটা আপনাকে পুরুষের চেয়ে নিচুই করার উদ্দেশ্যে করা হত তবে একবার ভাবুন- মেয়েদের জন্য অবশ্যপরিধান যোগ্য কোন পোশাক হিন্দু নিয়মে আছে? ভাবুন আপনাকে যদি মোড়কে ভর্তিকরে রাখার ব্যাবস্থা চালু থাকত আর সেটা অমান্য করলে শাস্তির বিধান চালু থাকত ধর্মীয়ভাবে!আর সেটা মান্য করলে স্বর্গলাভের আশা দেখানো হত! আপনি সেটা অমান্য করতেন? তাই অনুরোধ ভালো আর খারাপের যথার্থ বিচার স্বয়ং নিজে করুন। আপনার বিবেককে কাজে লাগান। যাকিছু যুক্তিযুক্ত কেবল ততটুকুই গ্রহণ করুন।

আর ১টা কথা যেনে রাখুন
– ফ্যাশন/আধুনিকতা মানেই শালীনতা নয়।
যাকিছু শালীন তা কখনো ব্যাকডেইটেড হয়না।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.