১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:১১
সর্বশেষ খবর

চট্টগ্রাম ঈদের বাজারে মার্কেটগুলোতে ক্রেতাদের ধুম

রাজিব শর্মা, (চট্টগ্রাম ব্যুরো)ঃ ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়ে জমে উঠেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের ঈদের বাজার। ফুটপাত থেকে শুরু করে অভিজাত শপিংমল পর্যন্ত সবখানে সকাল থেকে গভীররাত পর্যন্ত চলছে কেনাকাটা। প্রতিটি মার্কেটে লাখো ক্রেতার ভিড়। ক্রেতাদের চাপে নিঃশ্বাস ফেলার সময় পাচ্ছে না বিক্রেতারাও।

আর এ সুযোগে অনেক অসাধু ব্যবসায়ী হাতিয়ে নিচ্ছেন অতিরিক্ত মুনাফা। বুধবার সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চট্টগ্রামের বেশ কয়েকটি মার্কেট ঘুরে ঈদের কেনাকাটার ভিড়ের অভিন্ন চিত্র দেখা যায়। বিশেষ করে চট্টগ্রামের টেরি বাজার, নিউমার্কেট, শপিং কমপ্লেক্স, মিমি সুপার মার্কেট, সানমার ওশান সিটি, লাকি প্লাজা, মতি টাওয়ার, গুলজার টাওয়ার, সেন্ট্রাল প্লাজা, আফমি প্লাজা, ইউনেস্কা সিটি সেন্টার, জহুর হকার্স মার্কেট, রিয়াজউদ্দিন বাজার, তামাকুমন্ডি লেন, বহদ্দার হাট, সিঙ্গাপুর মার্কেটসহ বেশ কয়েকটি মার্কেট ঈদ কেনাকাটার জমজমাট দেখা গেছে। রমজানের প্রথম থেকেই ঈদের কেনাকাটার জন্য নগরীর টেরিবাজারে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। গত শুক্রবার টেরিবাজারের মেগামার্টসহ তিনটি দোকানে জরিমানা করলে মাঠে উত্তপ্ত হয়ে উটেন টেরিবাজার ব্যবসায়ীরা এর প্রতিবাদে শনিবারে দুইঘন্টা মার্কেট বন্ধ রাখেন। এরপর ব্যবসায়ীরা স্ব স্ব অবস্থানে তাদের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। সেই সঙ্গে নগরীর জহুর হকার্স মার্কেট, নিউ মার্কেট আর রিয়াজউদ্দিন বাজারে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের ভিড় লেগেই আছে। সাধারণ মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত সাধারণ মানুষ কেনাকাটার জন্য রিয়াজউদ্দিন বাজারকেই বেচে নিচ্ছেন। আর যারা নিম্ন আয়ের মানুষ তাদের জন্য ফুটপাতই ভরসা। এর ফলে বেচাবিক্রির কমতি নেই ফুটপাতেও। আর অভিজাত শ্রেণির মার্কেট হিসাবে পরিচিত নগরীর সানমার ওশান সিটি, মিমি সুপার মার্কেট, ইউনেস্কো সিটি সেন্টার, আমীন সেন্টার, সেন্ট্রাল প্লাজাতে কেনাকাটার ধুম লেগেছে।

সানমার ওশান সিটি পোশাকের দোকানের মালিক তানজিম হাসনাত দি ক্রাইমকে বলেন, সকাল ১০টা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মার্কেটে বেচাকেনা চলছে। এবারের পোশাকের দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতারা কিনছেন দেদারছে। ইউনেস্কা সিটি সেন্টারের মেয়েদের পোশাক বিক্রেতা হাসান মফিজ দি ক্রাইমকে বলেন, এবছর ভারতীয় “ডালি” নামের ড্রেসের ব্যাপক চাহিদা। গ্রাম কিংবা শহরের সব শ্রেণির তরুণীরা এই পোশাকটি খুঁজছেন। নারীদের পোশাকের মধ্যে থ্রি পিসের মূল্য সর্বনিম্ম তিন হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা রয়েছে। ছেলেদের পোশাক বিক্রিতেও কমতি নেই। নগরীর ছেলেদের পোশাক বিক্রয়ের ব্যান্ড প্রতিষ্ঠান শৈল্পিক, ম্যানজ, ক্যাটসআই, মুন ওয়াকার, ক্রোকোডাইল প্রতিটি শো-রুমে ব্যাপক কেনাবেচা শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে ছেলেদের পোশাকের মধ্যে পাঞ্জাবির চাহিদাই সবচেয়ে বেশি বলে জানিয়েছেন শৈল্পিকের বিক্রেতা রোমিও। জানালেন এই প্রতিষ্ঠানে সর্বনিম্ম ১৫৫০ টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা দামের পাঞ্জাবি পাওয়া যাচ্ছে।

এ বছর চট্টগ্রামের ঈদ মার্কেটে ভারতের চেন্নাই, কলকাতা, ব্যাঙ্গালোর, দিল্লী ও জয়পুর থেকে বিভিন্ন রঙ ও ডিজাইনের শাড়ি এসেছে। এগুলোর মধ্যে জুট কাতানের দাম ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা, রাজস্থান সিল্ক ৫ থেকে ২০ হাজার টাকা, ভেলবেট সিল্ক ২৫ থেকে ৩৫ হাজার, চেন্নাই কাতান ১০ থেকে ১৫ হাজার, বেনারসি ১৫ থেকে ৪০ হাজার, নেটের শাড়ি ৪ থেকে ১০ হাজার, ব্যাঙ্গালোর কাতান ৫ থেকে ১০ হাজার, কাঞ্চিভরম ১০ থেকে ১৫ হাজার, সানন্দা ১০ থেকে ২০ হাজার, অপেরা কাতান ১৫ থেকে ৩০ হাজার, টাঙ্গাইল সিল্ক ৭০০ থেকে ২ হাজার এবং দেশি সুতি শাড়ি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৬০০ টাকা। নগরীর মিমি সুপার মার্কেটের বাঁধন, বধূয়া, শাড়িজ, পিন্ধন, সেন্ট্রাল, আঁচল, বন্ধন, মানসী, কানন, শাওন ভাদো, সুন্দরীসহ বিভিন্ন দোকানে বিক্রি হচ্ছে নানা কারুকাজ করা বিভিন্ন দেশি ও বিদেশি শাড়ি। সব মিলিয়ে দারুণ জমে উঠেছে চট্টগ্রামের ঈদের বাজার।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.