১৯শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১০:০৬

মাদক নির্মূলে অল আউট ফাইট বনাম স্বজন হারানোর স্থায়ীক্ষত

অস্থায়ী সমাধানের জন্য স্থায়ী সমস্যা সৃষ্টি করা রাজনৈতিক সরকারের জন্য সহায়ক হয় না। মাদকের ভয়াবহ বিস্তার এবং আগ্রাসী ছোবল থেকে দেশ জাতি এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করার জন্য সরকার জিরো টলারেন্সসহ অলআউট ফাইট শুরু করেছে তার ফলে প্রতিদিনই প্রায় গড়ে ৪/৫ জন মাদক ব্যবসায়ী নাম ধারীরা বন্দুকযুদ্ধে নিহত হচ্ছে। পদক্ষেপটি জনগনের সমর্থন পেলেও এ ধরনের ব্যবস্থা শেষ পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন রাজনৈতিক সরকারের জন্য প্রত্যাশিত ফল বয়ে আনেনি। কারন মাদকের সমস্যা মানব সভ্যতার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্নভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং হ্রাস পেয়েছে কিন্তু নির্মূল হয় নাই।

বাংলাদেশে মাদক সমস্যার সৃষ্টি আশির দশক থেকে দৃশ্যমান রূপ লাভ করলেও রাষ্ট্রের প্রভাবশালীদের দৃষ্টি সেদিকে গভীরভাবে আকৃষ্ট হয়নি।

সম্প্রতি প্রভাব এবং তার কুফল সম্পর্কে অবগত হয়ে সরকার যে অভিযান পরিচালনা করছে তার আইনত নৈতিক ভিত্তি নিয়ে যথেষ্ট মতভেদ রয়েছে। তবে একটি ভাল কাজের যাত্রা পথ যদি মানবিক মূল্যবোধ, নৈতিকতা ও আইনের মৌলিক বৈশিষ্টগুলোকে ধারণ না করে তাহলে তার চূড়ান্ত ফলাফল অভিযান পরিচালনাকারীদের বিরুদ্ধে যায়।

মাদকবিরোধী অভিযানে মাদকের অবস্থানকে বাংলাদেশের সমাজ ও রাষ্ট্রকে নিশ্চয়ই সামাজিকভাবে অনেকটাই পরিত্রাণ দিচ্ছে এবং দিবে কিন্তু কোন স্থায়ীত্বশীল কাঠামো বিকল্প হিসেবে বিবেচিত হতে পারে না। যেমন যে ব্যক্তিটি মারা যাচ্ছে তার আপনজন পরিবার প্রতিবেশী ও আত্মীয়স্বজনরা কোনভাবেই স্বস্তির নিশ্বাস ফেলবে না এবং তাদের মানবিক হৃদয়ে স্বজন হারানোর যে স্থায়ীক্ষত তা চিরদিন তাদেরকে তাড়িয়ে বেড়াবে।

সে জন্য ক্ষতিগ্রস্থ হবে রাজনৈতিক সরকারের তৃণমূলের রাজনীতি এবং বুদ্ধিজীবিসহ মানবাধিকারকর্মীদের কঠিন সমালোচনা তাই অভিযানের পাশাপাশি সরকারের উচিত সংশোধন, পূনর্বাসন ও মাদকের উৎস মুখগুলোকে বন্ধ করার পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

লেখকঃ প্রজ্ঞা রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, আইনজ্ঞ ইসরাফিল আলম এমপি।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.