শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ০২:২০ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে ব্যাংকার সজল নন্দী খুন, বেরিয়ে আসে চাঞ্ছল্যকর তথ্য

রাজিব শর্মা, (চট্টগ্রাম ব্যুরো): পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই’র) বন্দর থানা এলাকায় ব্যাংক কর্মকর্তা সজল নন্দী খুনের রহস্য উদঘাটন করেছে। ধরা পড়েছে খুনের ঘটনায় জড়িত তিন অপরাধী। এদের দুই জন স্কুলে এবং অন্যজন সদ্য এইচএসসি পাস করেছে। মাত্র একদিন আগে সজল নন্দীর সন্তান দীপ তার পিতার ছবিতে কারুকাজ করে ফেইসবুকে যুক্ত করে। কে জানতো তার পরদিন ছেলের বন্ধুরাই যমদূত হয়ে হাজির হবে তার পিতাকে হত্যা করতে। তদন্ত কর্মকর্তা সদীপ দাশ আজাদীকে জানান, সজল নন্দীর ছেলে দীপ তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু প্রতীককে জানিয়েছিল– তার বাবা ব্যাংক থেকে ২৯ লাখ টাকা লোন পেয়েছে। তথ্যটি পরে সে তার অপর দুই বন্ধুকে জানায়। পরে প্রতীক তার দুই বন্ধুকে নিয়ে সেই টাকা লুট করার পরিকল্পনা করে। সজল নন্দীকে আটকে রেখে বাসায় খুঁজেও ২৯ লাখ টাকা না পেয়ে হতাশ হয় তিনজন। তারপর তারা সজল নন্দীকে খুন করে। তবে দীপ বিষয়টি জানত না। অভিযান পরিচালনাকারী পিবিআই পরিদর্শক সদীপ কুমার দাশ আজাদীকে বলেন, আমরা প্রথমেই আঁচ করতে পেরেছিলাম ঘটনাটা অপরিপক্ক হাতের কাজ, চুরি–ডাকাতি নয়। তাই আমরা সে পথেই এগিয়ে যাই। একটা সময় এসে সজল নন্দীর ছেলে দীপকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারি– তার কিছু বন্ধু আছে যারা স্বভাবে বখাটে। পাশাপাশি জানতে পারি ৩ মাস আগে তাদের বাসায় ট্রাংক ভেঙ্গে ২৯ হাজার টাকা চুরির ঘটনা ঘটে। আজ তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির জন্য আদালতে উপস্থাপন করা হবে। গত ৩০ মে রাতে নগরের ইপিজেড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বন্দর থানার মাইলের মাথা এলাকার শামসুল হকের পুকুর থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করেন পিবিআই কর্মকর্তারা। গ্রেফতারকৃতরা হলো, নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ থানার সিরাজউদ্দীনপুর এলাকার ডা. উজ্জ্বল চন্দ্র মজুমদারের ছেলে প্রতীক মজুমদার (১৬), ফটিকছড়ি নানুপুর এলাকার তপন রায় চৌধুরীর ছেলে জিকু রায় চৌধুরী (১৬) ও পটিয়ার ভাটিখাইন এলাকার অজিত বড়ুয়া চৌধুরীর ছেলে জয় বড়ুয়া চৌধুরী (১৯)। গ্রেফতারকৃতরা ইপিজেড ও বন্দর এলাকায় বসবাস করে।

বন্ধুত্বের আড্ডায় বখে যাওয়া সন্তান : সজল নন্দীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, তাদের একমাত্র সন্তান দীপ। সকালে প্রথমে মা ও পরে বাবা সজল নন্দী চাকরির উদ্দেশ্যে বের হয়ে যায। ছেলে দীপ এ সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। একে একে তার বন্ধুরা আসতে থাকে দীপের ঘরে। নানা নষ্টামি চলতো এ আড্ডায়। মা বাবার টেনশনের সীমা ছিল না। মাস তিনেক আগে ঘরে একটি পুরনো ট্রাংকে কিছু টাকা ছিল। ছেলে দীপ বন্ধুরের সহায়তায় ট্রাংকের তালা ভেঙে ২৯ হাজার টাকা নেয়। পরের ক’দিন কখনো সিনেমা দেখে, কখনো নেভালে যায়। এটা জানাজানি হলে সজল নন্দী ছেলে দীপকে মারধর করে। পরে তার বন্ধুদের বাসায় গিয়ে তাদের অভিভাবকদের শাসিয়ে আসে, আর কখনো যেন তার ছেলের সাথে মেলামেশা না করে। এরমধ্যে দীপ একটি সাইকেল কিনে। বখাটে ছেলেদের থেকে দূরে রাখতে দীপকে তার মামার বাসা বহদ্দারহাট পাঠিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু কৌশলে যোগাযোগ হতো তার পূর্বের বন্ধুদের সাথে।

পরিকল্পনা ২৯ লাখ টাকা হাতানো : ঊনত্রিশ লাখ টাকা লুটের জন্য ব্যাংক কর্মকর্তা সজল নন্দীকে তার ছেলের বন্ধুরা খুন করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এ ঘটনায় দুই স্কুল ছাত্রসহ তিনজনকে গ্রেফতারের পর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর পরিদর্শক সদীপ দাশ জানিয়েছেন, গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে জয় বড়ুয়া চৌধুরী নগরীর একটি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। অন্য দুইজনের একজন হালিশহর মেহের আফজল উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ও অন্যজন হালিশহর বেগমজান উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবছর এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। তিনজনই সজল নন্দীর ছেলে বন্ধু।

পিবিআইর পুলিশ পরিদর্শক সদীপ কুমার দাশ বলেন, প্রতীক মজুমদার টাকা লুট করার মূল পরিকল্পনাকারী বলে জানতে পেরেছি। তাদের আরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সজলের স্ত্রী চাকরিতে যাওয়ার পর দীপের ব্যবহৃত সাইকেলটি কেনার কথা বলে সল্টগোলায় তাদের বাসায় ঢোকে তারা। এক পর্যায়ে সাইকেল কেনা নিয়ে সজলের সঙ্গে তাদের বিতণ্ডা হয়। এসময় জয় তালা দিয়ে সজলের মাথায় আঘাত করে। সজল চিৎকার করলে জিকু তার মুখ চেপে ধরে। অন্য দুইজন গামছা দিয়ে তার পা বেঁধে ফেলে। পরে জয় বড়ুয়া তার কাছে থাকা ছুরি দিয়ে সজলের গলা কাটে। পরে তারা বাসায় টাকা না পেয়ে সজলের পকেটে থাকা ব্যাংকের চাবি নিয়ে পালিয়ে যায়।

হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি জয় নিউ মার্কেট এলাকা থেকে কিনেছিল জানিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ব্যাংকের চাবি ডাঙ্গারচর এলাকায় ফেলে দিয়েছে বলে তারা পুলিশকে জানিয়েছে। হত্যাকাণ্ড ঘটিয়ে তারা নদী পার হয়ে ডাঙ্গার চর চলে যায়। সেখানে ব্যাংকের চাবিটি ফেলে দেয়। পরে তারা বাসায় ফিরে আসে। তবে ব্যাংকের ক্যাশের যে চাবি আসামিরা ওই বাসা থেকে নিয়ে গিয়েছিল সেগুলো তোড়া থেকে খুলে আলাদা করে পুকুরে ফেলে দেয়া হয়। সেগুলো পাওয়া সম্ভব নয়।

গত ২৭ মে সকাল ১১ টার দিকে বন্দর থানার মধ্যম হালিশহর এলাকায় বাসা থেকে ব্যাংক কর্মকর্তা সজল নন্দীর (৪৮) মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সজল নগরীর সল্টগোলা এলাকায় রাষ্ট্রায়ত্ত রূপালী ব্যাংকের শাখায় ক্যাশিয়ার পদে কর্মরত ছিলেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© All rights reserved © 2019  
IT & Technical Support: BiswaJit