১৮ই জুন, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:৫৬

আনোয়ারা হাসপাতালের রোগীর বেড এখন কুকুরদের দখলে

ক্রাইম প্রতিবেদক : আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সেবা নিয়ে অভিযোগ আজকের নিত্য নয়, বেশ কিছুদিন আগে ‘রোগী আছে ডাক্তার নেই’ এরপর বেশকিছুদিন আগে আড়াই বছরের বাচ্ছার প্রেসক্রিপশনে সেফিক্সিম এ্যান্টিবায়োটিক ট্যাবলেট, ইসোনিক্স ২০ ,ডেল্টাসোন ট্যাবলেট সহ ঔষধ লিখেছিলেন এক ডাক্তার। পরিশেষে বলা যায় অভিযোগ বরং পুরোনো। ডাক্তার থাকে না। ঠিক মতো সেবা দেন না আয়া–নার্সরা। নার্সদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সব মিলিয়ে প্রতিদিন উটে আসে নতুন নতুন অভিযোগ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কোন রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা করতে গেলে, চিকিৎসার পর দেখা যায় হাসপাতালের সামনে কিছু ফার্মেসীর কর্মরত ছেলে হাসপাতাল থেকে আসা রোগীর হাত থেকে প্রেসক্রিপশন নিয়ে ঔষধ বিক্রির উদ্দেশ্যে নিজেদের ফার্মেসীতে নিয়ে যায়। হাসপাতালের দেয়ালে টাঙানো ঔষধ কোম্পানিদের দুপুর ২ টায় ভিজিট করার নির্দেশনা থাকলেও, ঔষধ কোম্পানিরা তা বৃদ্ধা আঙুল দেখিয়ে সকাল ৯ টা থেকে সারাদিন ডাক্তারদের ভিজিট করে থাকেন।এইরকম অভিযোগ অহরহ। হাসপাতালের ভেতরে অপরিচ্ছন্ন, স্যাতস্যাতে। যথাযথ চিকিৎসার অভাবে প্রতিনিয়ত বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন রোগীরা।

সরকারি এই হাসপাতালটির চিকিৎসা সেবার এখন এতটাই করুণ দশা যে, হাসপাতালের ভেতরেই এখন কুকুর দৌঁড়ে। রোগীদের ওষুধ–পত্র নিয়ে টানাটানি করে কুকুর। বেডের উপরে শুয়ে আছে মানুষ, নীচে যেন কুকুরের বসতি। চরম এই দৈন্যদশা দেখারও যেন কেউ নেই। সম্প্রতি হাসপাতালের ওয়ার্ডে কুকুর দৌঁড়ানোর ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায় হাসপাতালটি যেন কুকুর আর মানুষের ঘর বসতি হয়ে উঠেছে। রোগীর পথ্য টেনে নিয়ে দৌঁড়াচ্ছে কুকুর। এতে কারো কিছু যায় আসে না। মাস পুরোলেই সরকারি বেতন-ভাতাদি পেলেই হয়ছে। রোগি মরলে হাসপাতাল কতৃপক্ষের কি আসে-যায়!

বারশত ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য শাহনুর বলেন, এক আত্মীয়কে দেখতে আনোয়ারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়েছিলাম। কমপ্লেক্সের ২য় তলায় রোগীদের সাথে কুকুরকে হাঁটা চলা করতে দেখে অবাক হয়ে যায়। এ সময় আশপাশে কোন আয়া–নার্সকে না দেখে নিজেই কুকুরটি তাড়িয়ে দেই। অল্প কিছুক্ষনের মধ্যে সেটি আবার ঘুরেফিরে আগের জায়গায় চলে আসে।

রোগীদের অভিযোগ, জরুরি বিভাগসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে দায়িত্বরত ডাক্তার না থাকায় রোগীরা এক রকম দিশেহারা অবস্থায় থাকে। এখানে ভর্তি হয়ে শুধু নার্সদের বকা-ঝকা শুনা ছাড়া আর কোন সেবা নেই বললেই চলে। এখানে দারোয়ানরা ও ডাক্তারদের চেয়ে মূল্যবান। শুধু তাই নয়, মেডিকেলে দায়িত্বরত ডাক্তাররাও সময় মতো আসেন না। সেবা পেতে ছুটে যেতে হয় দায়িত্বে থাকা নার্সদের কাছে। রোগীদের একমাত্র ভরসা এসব নার্স। তাছাড়া হাসপাতালের কর্মচারীরা পরিষ্কার–পরিচ্ছন্নতায় মোটেও মনোযোগী নয়। যে কারণে হরহামেশা কুকুরগুলো ওয়ার্ডের ভেতর চলে আসে।

হাসপাতালের এই দূরবস্থায় স্থানীয় কামাল উদ্দিন নামে এক ব্যক্তি সামাজিক মাধ্যমে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, হাসপাতালের ডাক্তার ও কর্মচারীদের দায়সারা কর্মকাণ্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ ও সবার জন্য স্বাস্থ্য সেবার বিষয়টি ভেস্তে যাচ্ছে। স্থানীয় বৈরাগ গ্রামের শিক্ষানুরাগী মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, হাসপাতালের ভেতর কুকুর ঘুমালে স্বাস্থ্য সেবা কতদূর তা অনুমেয়।

এসব অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাখাল চন্দ্র বড়ুয়া বলেন, ‘আমি অফিসের কাজে চট্টগ্রামের বাইরে ছিলাম। হাসপাতালের ভিতরে কিভাবে কুকুর এল আমি জানি না। তবে হঠাৎ করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১২ জন ডাক্তার একসাথে রোহিঙ্গা ক্যাম্পেসহ বিভিন্ন কাজে বাহিরে থাকার কারণে সেবা দিতে একটু হিমশিম খেতে হচ্ছে । সমস্যাগুলো সহসা সমাধান করা যাবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।’

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.